Amar Sangbad
ঢাকা মঙ্গলবার, ২৪ মে, ২০২২, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

নায়িকা শিমুর খুনি কে, জানালো পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

জানুয়ারি ১৮, ২০২২, ০৯:৩৫ এএম


নায়িকা শিমুর খুনি কে, জানালো পুলিশ

ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার জানিয়েছেন, দাম্পত্য কলহের জেরে চিত্রনায়িকা শিমুকে তার স্বামী খন্দকার শাখাওয়াত আলীম নোবেল হত্যা করেছেন।

মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) পুলিশ সুপার তার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। হত্যাকাণ্ডে আসামির বাল্যবন্ধু এস এম ওয়াই আব্দুল্লাহ ফরহাদ জড়িত রয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, নায়িকা শিমু হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ২৪ ঘণ্টার আগেই জড়িতদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি আমরা। এ ঘটনায় শিমুর স্বামী নোবেল ও তার বাল্যবন্ধু ফরহাদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সেই সঙ্গে জব্দ করা হয়েছে মরদেহ লুকানোর কাজে ব্যবহৃত প্রাইভেটকারসহ বিভিন্ন আলামত।

হত্যার মোটিভ কী ছিলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, পারিবারিক কলহের জেরে এই হত্যাকাণ্ড। তদন্তের স্বার্থে এর বাইরে কিছু বলা যাচ্ছে না। তার স্বামী হত্যার দায় স্বীকার করে প্রাথমিকভাবে বলেছে দাম্পত্য কলহের কারণে এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। হত্যার পর মৃতদেহ লুকিয়ে নিখোঁজ নাটক সাজাতে চেয়েছিলো তারা।

স্বামী ও দুই সন্তানকে নিয়ে রাজধানীর কলাবাগান এলাকার বাসায় থাকতেন শিমু। রোববার (১৬ জানুয়ারি) সকালে বাসা থেকে বেরিয়ে তিনি আর ফেরেননি। তার মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় রাতেই কলাবাগান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। পরদিন সোমবার কেরানীগঞ্জের হজরতপুর ব্রিজের কাছে আলিয়াপুর এলাকায় রাস্তার পাশ থেকে শিমুর বস্তাবন্দি খণ্ডিত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এর আগে গতকাল সোমবার কেরানীগঞ্জ থেকে চলচ্চিত্র অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমুর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। বর্তমানে তার মরদেহ রাখা হয়েছে রাজধানীর স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (মিটফোর্ড) মর্গে। সেখানেই শিমুর স্বামী ও গাড়িচালক ফরহাদ গেলে তাদের আটক করে র‌্যাব।

এদিকে শিমুর বড় ভাই শহীদুল ইসলাম খোকনের অভিযোগ, শিমুর সঙ্গে প্রায়ই ঝগড়া করতেন নোবেল।  তিনি মাদকাসক্ত ছিলেন। 

‘আমার ভগ্নিপতি অ্যাডিক্টেড। ...প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়াঝাটি হতো’-যোগ করেন শহীদুল।

শহীদুলের অভিযোগ, এ ঘটনায় আটক নোবেলের গাড়িতে রক্ত পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, তার (নোবেল) গাড়ির ভেতর রক্ত দেখেছি।  সোমবার সকাল ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত তিনি বাসায় ছিলেন না; সেই সময়ের মধ্যে তিনি লাশ গাড়িতে করে নিয়ে ফেলে দিয়েছেন। 
 
শহীদুল অভিযোগ করে আরও বলেন, নোবেল তাকে নৃশংসভাবে খুন করেছেন।  আমার বোন যে কাপড় পরেছিল, সেটি পরে কোনো দিন সে বের হয় নাই। তাকে খুন করে ফেলে রাখা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, কাজী হায়াৎ পরিচালিত ‘বর্তমান’ সিনেমা দিয়ে ১৯৯৮ সালে চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে শিমুর। পরের বছর দেলোয়ার জাহান ঝন্টু, চাষি নজরুল ইসলাম, শরিফ উদ্দিন খান দিপুসহ আরও বেশ কিছু পরিচালকের প্রায় ২৫টি সিনেমায় পার্শ্বচরিত্রে দেখা যায় তাকে। শাকিব খান, অমিত হাসানসহ কয়েকজন তারকার সঙ্গেও কাজ করেছেন শিমু।

শিমু বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সহযোগী সদস্য ছিলেন। চলচ্চিত্রের পাশাপাশি কয়েকটি টিভি নাটকে অভিনয় এবং প্রযোজনায়ও করেছেন।

আমারসংবাদ/জেআই