Amar Sangbad
ঢাকা শনিবার, ২০ আগস্ট, ২০২২, ৫ ভাদ্র ১৪২৯

১২০ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ৮৩০ জন!

নিজস্ব প্রতিবেদক

মে ৯, ২০২২, ১২:৩৪ পিএম


১২০ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ৮৩০ জন!

রাজধানীর জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানে (পঙ্গু হাসপাতাল) এক হাজার ২৫০ জনেরও বেশি রোগী ভর্তি হয়েছেন। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই সময়ে হাসপাতালে আসাদের মধ্যে ৩০ শতাংশই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার। আহত হয়ে যাঁরা চিকিৎসা নিতে আসছেন, তাঁদের বড় অংশ মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার। আবার তাঁদের ৯০ শতাংশই তরুণ। তাদের অনেকেরই হাত-পা কেটে ফেলতে হয়েছে।  রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম চার মাসে (জানুয়ারি-এপ্রিল) মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারা গেছেন ৮৩০ জন।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, এক হাজার শয্যার হাসপাতালে কোনো শয্যা খালি নেই। পুরো হাসপাতালই রোগীতে ঠাসা। শয্যা না পেয়ে বাধ্য হয়ে হাসপাতালের মেঝেতে থেকে চিকিৎসা সেবা নিতে হচ্ছে রোগীদের। জানা গেছে, মোটরসাইকেল ছাড়াও সিএনজিচালিত অটোরিকশায় দুর্ঘটনা বেশি ঘটেছে। সে তুলনায় বাস ও ট্রাকের দুর্ঘটনা কম। আহতদের অধিকাংশেরই আঘাত গুরুতর।

পঙ্গু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, চলতি মে মাসের প্রথম সাত দিনে বিভিন্ন ধরনের দুর্ঘটনায় আহত ১ হাজার ৪৭৪ জন সেবা নিয়েছেন। এর মধ্যে ৬৫ থেকে ৭০ শতাংশই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় কেউ হাত বা পা ভাঙলে সুস্থ হতে ৩ থেকে ৯ মাস সময় লাগছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত ২ মে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ১৯৭ জন পঙ্গু হাসপাতালে আসেন। তাদের মধ্যে সংকটাপন্ন অবস্থায় ৬৫ জনের অস্ত্রোপচার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাকি ১৩২ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাসায় পাঠানো হয়। এরপর ৩ মে (ঈদের দিন) ১৭৯ জন হাসপাতালে আসেন, তাদের মধ্যে ৮২ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়। ৪ মে দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ২৫২ জন হাসপাতালে আসেন। তাদের মধ্যে গুরুতর আহত ৮৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেওয়া হয় ১৬৭ জনকে।

এরপর গত ৫ মে ২৩৬ জন হাসপাতালে আসেন, তাদের মধ্যে ১০৮ জনকে অস্ত্রোপচার শেষে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাকি ১২৮ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়। ৬ মে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার আরও ১৮৩ জন হাসপাতালে আসেন। তাদের মধ্যে ৬৪ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গতকাল শনিবার (৭ মে) নতুন করে আরও ২০৩ জন হাসপাতালে আসেন। তাদের মধ্যে ৮৯ জনকে অস্ত্রোপচার শেষে ভর্তি করা হয়। বাকি ১১৪ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাসায় পাঠানো হয়।

জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানের পরিচালক অধ্যাপক ডা. আবদুল গণি মোল্লাহ জানান, প্রতি ঈদেই আমাদের একটা ভয়ংকর অবস্থার মুখোমুখি হতে হয়। তবে অন্যান্য বারের তুলনায় এবার দুর্ঘটনায় হাসপাতালে আসা রোগীর সংখ্যা বেশি।

রোগী যতই আসুক, কষ্ট সত্ত্বেও আমাদেরকে তো ম্যানেজ করতেই হবে। কারণ দুর্ঘটনায় হাত-পা ভাঙা এসব রোগীদের তো আর আমরা ফেরত দিতে পারব না। আমাদের স্বাস্থ্যকর্মীরা তাদের নির্ধারিত সময়ের বাইরেও সেবা দিচ্ছেন। নিয়মিত সিনিয়র চিকিৎসকরাও খোঁজ-খবর নিচ্ছেন। এর বাইরে বিশেষ সমস্যা হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানাই। তখন অতিরিক্ত চিকিৎসক এসে কাজ করেন।


আমারসংবাদ/ইএফ

Dairy-Farm
Prani Sompod

বাংলাদেশ থেকে আরও