জাবিতে টানা দ্বিতীয় বারের মতো অনলাইনেই বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় এবং বিস্তার ও নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন প্রতিরোধের লক্ষ্যে টানা দ্বিতীয় বারের মতো অনলাইনেই পালিত হয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় দিবস।

বুধবার (১২ জানুয়ারি) সকাল ১০টায় বিজনেস স্টাডিজ চত্বরে বিশ্ববিদ্যালয় এবং জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে দিনটির কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। 

জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. মো. নূরুল আলম এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে পতাকা উত্তোলন করেন উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হক।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজের সঞ্চালনায় অনলাইনে যুক্ত হয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নিহত শহীদ, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে হত্যাকান্ডে বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকল শহীদদের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন।

উপাচার্য বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ হলো জ্ঞান জাগ্রত রাখা। এই জ্ঞান চর্চার মধ্যদিয়ে দেশ, জাতি এবং বিশ্বের জন্য কাজ করতে হবে। প্রত্যেককে শিক্ষিত হওয়ার পাশাপাশি মানবিক মানুষ হতে হবে।

তিনি আরও বলেন, বিগত ৫ দশকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা, গবেষণা ও ভৌত অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। এই উন্নয়নকে উচ্চ মাত্রায় নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রায় সাড়ে ১৪শ কোটি টাকার অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছেন। এই উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অবয়ব আমুল বদলে যাবে। শিক্ষা ও গবেষণার নতুন সুযোগ সৃষ্টিসহ বিশ্ববিদ্যালয় পূর্ণ আবাসিক চরিত্র ফিরে পাবে।

কর্মসূচির অংশ হিসেবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর অনলাইন জুম আইডি এবং জনসংযোগ অফিসের ফেসবুক আইডি থেকে সকাল দশটা ৪০ মিনিটে শিক্ষার্থী কল্যাণ ও পরামর্শদান কেন্দ্রের উদ্যোগে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়। বেলা এগারোটা ৫ মিনিটে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের উদ্যোগে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, এগারোটা ৩৫ মিনিটে একক পরিবেশনা, এগারোটা ৫০ মিনিটে রঙ্গন-মাইম একাডেমি পরিবেশিত মূকাভিনয়, বারোটা ১০ মিনিটে বাংলাদেশের পুতুলনাট্য গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্রের পরিবেশনায় পুতুল নাট্য প্রচার করা হয়।

১৯৭১ সালের ১২ জানুয়ারি তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর রিয়ার অ্যাডমিরাল এস এম আহসান জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শুভ উদ্বোধন করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য ছিলেন বিশিষ্ট রসায়নবিদ অধ্যাপক ড. মফিজ উদ্দিন আহমদ।

উল্লেখ্য, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে গত বছরের বিশ্ববিদ্যালয় দিবসও অনলাইনে পালন করা হয়। ২০২০ সালের ১৮ মার্চ বন্ধ ঘোষণার দীর্ঘ ৫৭৮ দিন পর ২০২১ সালের ১৮ অক্টোবর আবাসিক হলগুলো খুললেও সশরীরে ক্লাস শুরু হয় ২১ অক্টোবর। তৃতীয় ধাপে করোনার ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় এ বছরের ৬ জানুয়ারি থেকে আবারো অনলাইন ক্লাসে ফিরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।