চট্টগ্রাম কলেজের ইতিহাস বিভাগের প্রধানকে বিদায় সংবর্ধনা

চট্টগ্রাম কলেজের ইতিহাস বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর শাহীনা আক্তারের পি.আর.এল গমন উপলক্ষে বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে কনফারেন্স রুমে ইতিহাস বিভাগের আয়োজনে এই বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

ইতিহাস বিভাগের প্রফেসর আবু তাহের ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- চট্টগ্রাম কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর মোজাহেদুল ইসলাম চৌধুরী।

ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক কামরুন নাহার সালমার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের প্রাক্তন চেয়ারম্যান প্রফেসর আবু জাফর চৌধুরী, চট্টগ্রাম সিটি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. সুদীপা দত্ত, খাগড়াছড়ি সরকারী মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ শাহ আলমগীর, চট্টগ্রাম সরকারী টিচার্স ট্রেনিং কলেজের উপাধ্যক্ষ দিলরুবা আক্তার চৌধুরী।

এছাড়াও চট্টগ্রাম কলেজের বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক, শিক্ষক ক্লাবের সম্পাদকসহ ইতিহাস বিভাগের বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন।

পরিবারের পক্ষ থেকে প্রফেসর শাহীনা আক্তারের একমাত্র কন্যা জারিন সুবাহ খান উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে অতিথিগণের বক্তব্যে প্রফেসর শাহীনা আক্তার কর্মময় বর্ণাঢ্য জীবনের স্মৃতিচারণ করেন ও তাঁর অবসর জীবনের সাফল্য কামনা করেন।

এসময় সংবর্ধিত প্রফেসর শাহীনা আক্তার বলেন, গত ২৩ বছর আমি চট্টগ্রাম কলেজে অতিবাহিত করেছি। বিভাগের দায়িত্ব পালনে আমার সহকর্মীরা আমাকে অনেক আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করেছেন, আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। উন্নয়ন ফান্ড থেকে কিছু কিছু কাজ করেছি। একটি মুক্তিযোদ্ধা কর্ণার করার ইচ্ছে ছিল কিন্তু করোনার কারণে সেটি করতে পারিনি। আমি আশা করছি আমার সহকর্মীরা আমার অসমাপ্ত কাজ গুলো সম্পন্ন করবেন।

সবার কাছে দোয়া চেয়ে তিনি বলেন, সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন- আমার একটা মাত্র কন্যাসন্তান জারিন সুবাহ খান, সে যেনো তার জীবনের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারে, একজন ভাল মানুষ হতে পারে এবং আমি যেন ভাল থাকি, সুস্থ থাকি। কাজ করতে গিয়ে আমি স্বজ্ঞানে কারও প্রতি কোনো খারাপ আচরণ করিনি বা কষ্ট দিইনি। যদিও দিয়ে থাকি আমাকে ক্ষমা করে দেবেন।

উল্লেখ্য, প্রফেসর শাহীন আক্তার ঢাকা মহিলা কলেজে প্রভাষক হিসেবে কাজ শুরু করেন। সেখান থেকে ১৪ তম বিসিএস -এর মাধ্যমে চট্টগ্রাম কলেজে যোগ দেন। পরিশেষে আজ আনুষ্ঠানিক বিদায় সংবর্ধনার মধ্য দিয়ে চট্টগ্রাম কলেজের ২৩ বছরসহ মোট ২৮ বছর ২ মাসের কর্মজীবন শেষ করে অবসরে যান। 

আমারসংবাদ/এমএস