Amar Sangbad
ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯

উচ্চশিক্ষা ভ‌র্তি‌তে বয়‌সের দেয়াল ভেঙে দিতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী

জ‌বি প্রতি‌নি‌ধি

জ‌বি প্রতি‌নি‌ধি

নভেম্বর ২৭, ২০২২, ০৯:৩৯ পিএম


উচ্চশিক্ষা ভ‌র্তি‌তে বয়‌সের দেয়াল ভেঙে দিতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী

আমাদের দেশের উচ্চশিক্ষায় নানামুখী দেয়াল রয়েছে৷ শিক্ষা যদি জীবনব্যাপী হয় তাহলে উচ্চশিক্ষায় বয়‌সের দেয়ালগুলো ভেঙে দিতে হবে৷ একজন শিক্ষার্থীকে যে কোনো বয়সে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ দিতে হবে৷ যদি কোন শিক্ষার্থী উচ্চমাধ্যমিক গন্ডি পার করে কর্মজীবনে জড়িয়ে পড়েন এবং পরবর্তীতে উচ্চশিক্ষায় ফিরতে চান তাহলে তাকেও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ দিতে হবে৷ এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিতে ধরাবাধা নিয়ম থেকে বের হয়ে এসে শিক্ষা গ্রহনের দরজা উন্মুক্ত রাখতে হবে ব‌লে মন্তব‌্য ক‌রে‌ছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

রোববার (২৭ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর রাওয়া কনভেনশন হলে রিটায়ার্ড আর্মড ফোর্সেস অফিসার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন (রাওয়া) এর আয়োজনে "শিক্ষা এবং নৈতিকতা" শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্য এসব কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী৷

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের নৈ‌তিক, মান‌বিক ও দক্ষ মানুষ হ‌তে হ‌বে। সা‌থে সৎ, মূল‌্যবোধ ও মান‌বিকবোধ হ‌তে হ‌বে। কৃষক ও শ্রমিক‌দের সম্মান দেওয়া শিখা‌তে হ‌বে শিক্ষার্থী‌দের। যোগ‌্য হ‌লে যে বয়‌সেরই হোক যে বয়‌সেরই হোক সবই যা‌তে উচ্চ শিক্ষা নি‌তে পা‌রে সেই ব‌্যবস্থা নি‌তে হ‌বে। প্রত্যেক শিক্ষার্থী‌কে ভাষা‌ ও আই‌সির শিক্ষা অর্জন কর‌তে হ‌বে।

সেমিনারে অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হক বলেন, আমাদের রাষ্ট্র ও জাতির সামনে একটি সুস্পষ্ট লক্ষ্য এবং তার কৌশল বাস্তবায়নের জন্য সুস্পষ্ট কর্মনীতি দরকার। নানা ধারা-উপধারায় বিভক্ত বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা রুপ ও প্রকৃতি অত্যন্ত জটিল৷ যে রাষ্ট্রে অপসংস্কৃতি প্রবল এবং সংস্কৃতি নির্জীব, অপসংস্কৃতিকেই যে রাষ্ট্র সংস্কৃতি বলা হচ্ছেভ, তাতে স্কুলের পাঠ্যপুস্তকে নীতিবিদ্যা ও নীতিশিক্ষাকে স্থান দেওয়া কঠিন।

তিনি বলেন, আমাদের জীবনধারায় উন্নত বিজ্ঞান-প্রযুক্তিকে আমরা যথাসম্ভব গ্রহণ করব৷ আমাদের কল্যাণে আমরা সেগুলোকে ব্যবহার করবো কিন্তু সেগুলো দ্বারা আমরা পরিচালিত হবো না৷

সেমিনারে শিক্ষাবিদ সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, নীতিশাস্ত্রের সফল বিকাশ ঘটাতে পারে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান৷ যদি এর সঙ্গে পরিবার সংযুক্ত থাকে তাহলে বিকাশটি আশানুরূপ হয়৷ কিন্তু আমাদের দেশের সমাজ বাস্তবতা পাল্টেছে, পরিবারের ভেতর সুনীতির চর্চা কমেছে। কোনো কোনো পরিবারের সুনীতির জায়গা নিয়ে নিয়েছে দুর্নীতি। তারপরেও অনেক পরিবার তাদের সন্তানদের মূল্যবোধ চর্চায় আকৃষ্ট করার চেষ্টা করে৷ কিন্তু ঘরের বাইরের জগতে নৈতিকতার স্থলন ও অভাব থাকলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নীতির চর্চা উৎসাহিত না করলে পরিবারগুলির উদ্যেগে শুধুমাত্র একটা নির্দিষ্ট জায়গা পর্যন্ত সন্তানদের নিয়ে যেতে পারে৷ আমাদের দেশে যে পরিক্ষা নির্ভর, সনদমুখি শিক্ষাব্যবস্থা প্রচলিত, তাতে বেশিরভাগ শিক্ষার্থীর প্রকৃত মেধার পরিচয় পাওয়া যায় না, বিকাশ ঘটা তো দূরের কথা। এই শিক্ষা নৈতিকতার বিকাশে সহায়ক নয়৷

সেমিনারে ইউজিসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড, দিল আফরোজা বেগম, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস্(বিইউপি) এর সাবেক উপাচার্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চিফ অব জেনারেল স্টাফ: লে. জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান, জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক খুরশীদা বেগম এবং রাওয়ার সভাপতি মেজর জেনারেল (অব) আলাউদ্দিন এম এ ওয়াদুদসহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন৷

কেএস 

Link copied!