Amar Sangbad
ঢাকা বুধবার, ২৫ মে, ২০২২, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

মাসে কত আয় করেন হিরো আলম?

বিনোদন ডেস্ক

জানুয়ারি ১৮, ২০২২, ০৭:৪০ এএম


মাসে কত আয় করেন হিরো আলম?

ছিলেন বগুড়ার ডিসলাইনের (ক্যাবল অপারেটর) ব্যবসায়ী। সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে রাতারাতি বনে যান তারকা। বলছি আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমের কথা।

আলোচনায় এসে সমালোচিতও কম হতে হয়নি তাকে। তবে এই সমালোচনাকে নিজের দূর্বলতা না বানিয়ে তুরুপের তাস বানিয়েছেন তিনি। এখন  সমালোচনা দিয়েই আলোচনায় থাকেন তিনি।মূলত হিরো আলমকে নিয়ে সমালোচনা করা যায়, কিন্তু তাকে এড়িয়ে যাওয়া যায় না। 

যে যা যাই বলুক, তাতে খুব বেশি পাত্তা দেন না তিনি। কাজ করেন আপন মনে।

আর তাই তার শুধু সমালোচক নয়, ভক্তের সংখ্যাও অসংখ্য। মূলত সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুকে হিরো আলমের অনুসারীর সংখ্যা বড় বড় তারকাদেরও টেক্কা দেয়। বিভিন্ন সময়ে গরিব মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেখা যায় তাকে। 

সম্প্রতি আবারও জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৪ (কাহালু এবং নন্দীগ্রাম উপজেলা) থেকে অংশ নেবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। 

এমনকি এপার বাংলা পেরিয়ে ওপার বাংলার শিরোনামেও দেখা যায় হিরো আলমের নাম। অর্থাৎ দুই বাংলার মানুষের কাছে পরিচিত নাম হিরো আলম।

তবে অনেকের মনে জানার আগ্রহ হিরো আলমের আয়ের উৎস কী? কীভাবে তিনি  সিনেমা প্রযোজনা করে? 

এ ব্যাপারে হিরো আলম গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ফেসবুকে আমার ১৯ লাখের একটি ফ্যান পেজ রয়েছে। আর ইউটিউবে Hero Alom Official-এ সাবস্ক্রাইবার এখন ১৩ লাখের বেশি। মূলত সোশ্যাল মিডিয়ার এই প্লাটফর্মগুলো ব্যবহার করেই আমার যত আয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন তো আমার গাওয়া গানও দর্শকশ্রোতারা গ্রহণ করছেন। তবে আয় স্থিতিশীল না- কখনো বাড়ে, কখনো কমে। কোনো মাসে ৩ লাখ, কোনো মাসে আবার ১ লাখ, আবার এমনও হয় ৫০ হাজার আয় হয়।’

সোশ্যাল মিডিয়া ব্যতীত স্টেজ-শো করেও আয় করেন হিরো আলম। তিনি জানান, ‘বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পারফর্ম করে কিছু টাকা আসে। এই আয়ের টাকা থেকে গরিবদের সাহায্য করি, সিনেমা নির্মাণ করি। টাকা তো জমাই না; যা আয়, তাই ব্যয়। তবে অর্থ বেশি হলে খুব ইচ্ছে ছিল বড় আয়োজনের আরও ভালো ভালো সিনেমা নির্মাণ করার।’

প্রসঙ্গত, হিরো আলম অভিনীত ও প্রযোজিত ‘টোকাই’, ‘বউ জামাইয়ের লড়াই’, ‘নষ্ট হওয়ার কষ্ট’ সিনেমা তিনটি মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে।

আমারসংবাদ/এডি