Amar Sangbad
ঢাকা বুধবার, ০৬ জুলাই, ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

পরিচালনায় আগ্রহ নেই ববিতার

বিনোদন প্রতিবেদক 

বিনোদন প্রতিবেদক 

মে ১৭, ২০২২, ০২:৫০ এএম


পরিচালনায় আগ্রহ নেই ববিতার

উপমহাদেশের আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন নায়িকা ববিতা অভিনয়ের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি সিনেমাও প্রযোজনা করেছিলেন। সেসব সিনেমা ব্যবসা সফলও হয়েছিল। চলচ্চিত্রে ‘আজীবন সম্মাননা’সহ পেয়েছেন বহুবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও। 

নারগিস আকতারের পরিচালনায় সর্বশেষ ২০১৫ সালে ‘পুত্র এখন পয়সাওয়ালা’ সিনেমাতে অভিনয়ের পর আর কোনো সিনেমায় তাকে অভিনয়ে দেখা যায়নি। আগামীতে আর নতুন কোনো সিনেমায় অভিনয়ে দেখা যাবে কি না, সেটাও নিশ্চিত নয়। 

কারণ, এরই মধ্যে প্রায় সাত বছর পেরিয়ে গেছে অভিনয়ে নেই তিনি। অস্কার বিজয়ী পরিচালক সত্যজিৎ রায়ের ‘অশনি সংকেত’ সিনেমার এই নায়িকার কয়েক বছর আগেও ইচ্ছে ছিল জীবনে একটিবার হলেও একটি সিনেমা পরিচালনায় করবেন। কিন্তু গতকাল জানালেন ভিন্ন কথা। 

ববিতা বলেন, ‘কয়েক বছর আগেও ভেবেছিলাম একটি সিনেমা হলেও নির্মাণ করব। কিন্তু মাঝে করোনার কারণে চলচ্চিত্রে বলা যায় একটা বিপর্যয়ই নেমে এলো। করোনা এখন বলা যায় একেবারেই নেই। কিন্তু সার্বিক বিবেচনায় মনে হচ্ছে চলচ্চিত্র এখনো আগের মতো ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি।

তাই আমিও আমার সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়ালাম। যে ভাবনা ছিল চলচ্চিত্র পরিচালনাকে ঘিরে, সেই ভাবনা থেকে একেবারেই দূরে সরে এলাম। আর কোনো আগ্রহ নেই সিনেমা পরিচালনা করার। 

তবে অবশ্যই এরপরও যারা আশায় বুক বেঁধে চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন, তাদের জন্য অনেক অনেক শুভকামনা। তাদের জন্য আশীর্বাদ রইল যেন তারা যথাযথভাবে সিনেমা নির্মাণ করেন, সেসব সিনেমাও যেন দর্শক হলে গিয়ে দেখেন। সিনেমা ব্যবসা যেন ঘুরে দাঁড়ায়— এটাই আমার সব সময়ের প্রত্যাশা থাকবে।’ 

এদিকে ববিতা জানান, গত ঈদে তিন বোন সুচন্দা, ববিতা, চম্পা বেশ আনন্দের মধ্য দিয়ে ঈদ উদ্যাপন করেছেন। বেশ কয়েক বছর ঈদে তিন বোন এক হতে পারেননি বিধায় এবারের ঈদে তিন বোন এক হয়ে নিজেদের মনের মতো আনন্দ করেছেন। ছোটবেলায় ববিতা ‘শেষ পর্যন্ত’ সিনেমার মধ্য দিয়ে হয়ে উঠলেন এ দেশের একজন জনপ্রিয় নায়িকা। যাকে এখনো ভালোবাসে এ দেশের মানুষ।

‘শেষ পর্যন্ত’ সিনেমার পর মুক্তি পেলো ববিতা অভিনীত এহতেশাম পরিচালিত ‘পিচঢালা পথ’, বাবুল চৌধুরীর ‘টাকা আনা পাই’, মোস্তফা মেহমুদের ‘মানুষের মন’, সুভাষ দত্তের ‘ অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী’, খান আতাউর রহমানের ‘আবার তোরা মানুষ হ’, মিতার ‘আলোর মিছিল’সহ আরও বেশ কিছু সিনেমা। 

মিতার ‘আলোর মিছিল’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য ১৯৭৫ সালে ববিতা প্রথমবারের মতো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। পরপর তিনি মোহসীনের ‘বাঁদি থেকে বেগম’ এবং আমজাদ হোসেনের ‘নয়ন মনি’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্যও একই সম্মাননায় ভূষিত হন। টানা তিন বছর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে তিনি হ্যাটট্রিক করেন।