Amar Sangbad
ঢাকা বুধবার, ০৬ জুলাই, ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

‘সুবর্ণভূমি’ সিনেমা শেষে সজলের প্রত্যাশা

বিনোদন প্রতিবেদক 

বিনোদন প্রতিবেদক 

মে ২৫, ২০২২, ০১:৪৬ এএম


‘সুবর্ণভূমি’ সিনেমা শেষে সজলের প্রত্যাশা

সমান তালেই ভালো ভালো গল্পের সিনেমায় অভিনয় করছেন জনপ্রিয় অভিনেতা আব্দুন নূর সজল। ছোটপর্দা থেকে জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থান করা এই অভিনেতা সিনেমাতে ভালো ভালো গল্পে অভিনয় করলেও নাটক থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখেননি। 

কারণ সজল বিশ্বাস করেন এবং সব সময়ই গর্ব করতে ভালোবাসেন যে, তিনি নাটকে অভিনয় করে উঠে আসা একজন অভিনেতা। শিল্পী হিসেবে সেই কৃতজ্ঞতাবোধ বা ভালোবেসে অনায়াসে স্বীকার করার মতো মানসিকতা তার আছে। আর আছে বলেই সজল একজন মানুষ হিসেবে অনন্য, অসাধারণ। শিল্পীদের এমন হওয়াটাই যেন জরুরি। এসময়ে সজল বেশকিছু সিনেমার কাজ করেছেন। 

মেধাবী, গুণী পরিচালক জাহিদ হোসেনের কাহিনি, সংলাপ, চিত্রনাট্য ও পরিচালনায় কুদরত-ই খুদার প্রযোজনায় মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গল্পের সিনেমা ‘সুবর্ণভূমি’র কাজ শেষ করেছেন। বলা যায়, ঈদের পর টানা বেশ কদিন কাজ করে তিনি এই সিনেমার কাজ শেষ করেছেন। এতে তার সহশিল্পী হিসেবে ছিলেন দিলারা জামান, শহীদুজ্জামান সেলিম, ওমর সানী, শাওন আশরাফ, স্নিগ্ধাসহ আরও অনেকে। 

সিনেমাটির শিল্পী-নির্দেশক হিসেবে আছেন উত্তম গুহ, যিনি ১০ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। সিনেমাটিতে মুক্তিযোদ্ধা কুদরত চরিত্রে অভিনয় করেছেন সজল, যিনি একজন লেখক। যিনি সুবর্ণভূমি নামের একটি উপন্যাস লিখেছিলেন যুদ্ধের সময়ের সব রকমের ঘটনাগুলোকে নিয়ে। 

সিনেমাটিতে অভিনয় করা প্রসঙ্গে সজল বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের গল্প আমাকে ভীষণ রকম টানে। ৯ মাস যুদ্ধে কত রক্তের বিনিময়ে, কত শহীদের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের স্বাধীনতা। তাই কোনো কাজের মাধ্যমে যদি আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধকে, আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান, শ্রদ্ধা, সালাম, ভালোবাসা জানানো যায়— সেই সুযোগ আমি কখনোই হাতছাড়া করতে চাই না। জাহিদ হোসেন ভাই ভীষণ গুণী এক নির্মাতা। ভীষণ রকমের যত্ন নিয়ে তিনি চলচ্চিত্রটি তৈরি করেছেন।  

জাহিদ ভাই এমন একজন নির্মাতা যার কাছে এই সিনেমার গল্পটি একেবারে ছককাটা। কোথায় কতটুকু লাগবে, কতটুকু দরকার একদম পরিষ্কার। একটা শট  শেষে যখন পরিচালক বা পুরো সেটের হাততালি কিংবা শট শেষে জাহিদ ভাই যখন মাথায় হাত দিয়ে বলতেন— ভালো করেছো; এটা এক বিশাল প্রাপ্তি। 

এটা একজন শিল্পীর জন্য, বিশেষত আমার জন্য আশীর্বাদ এর মত। যা আমাকে অনুপ্রেরণা দিয়েছে ভালোভাবে কাজটি করার জন্য।’ সজল জানান এরইমধ্যে তিনি মুক্তিযুদ্ধের আরো একটি সিনেমার কাজ শেষ করেছেন, সেটি হলো হূদি হকের ‘১৯৭১ সেইসব সদিন’। এছাড়াও মুক্তির অপেক্ষায় আছে তার অভিনীত আবু সা্য়ীদের ‘সংযোগ’, নাদের চৌধুরীর ‘জিন’, অনন্য মামুনের ‘জাহানারা’ ও উজ্বল-নবী’র ‘পাপ ড্যাডি’ সিনেমার কাজ শেষ হয়ে আছে।