Amar Sangbad
ঢাকা বুধবার, ২৫ মে, ২০২২, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

দেশীয় উদ্যোক্তারা বিদেশে বিনিয়োগ করতে পারবেন

নিজস্ব প্রতিবেদক

জানুয়ারি ২৫, ২০২২, ১০:১০ এএম


দেশীয় উদ্যোক্তারা বিদেশে বিনিয়োগ করতে পারবেন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশীয় উদ্যোক্তারা বিদেশে সার কারখানা নির্মাণে বিনিয়োগ করতে পারবেন।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প নিয়ে আলোচনার সময় তিনি এ কথা জানান।

সভা শেষে প্রধানমন্ত্রীর অভিপ্রায় তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের সারের চাহিদা রয়েছে, কিন্তু উৎপাদন করতে গেলে গ্যাসের সংকট হয়। ফলে বিদেশে সার কারখানা নির্মাণে দেশের উদ্যোক্তারা বিনিয়োগ করতে পারবেন। সেই সার দেশে ব্যবহার করা যায় কি না- সেই সম্ভাবনাটা বেসরকারি খাত উন্মোচন করতে পারে।

তিনি বলেন, বিদেশে উৎপাদিত সার বাংলাদেশের চাহিদা মেটাবে। উদ্যোক্তারা চাইলে বাইরের দেশেও সার কারখানা নির্মাণে বিনিয়োগ করতে পারবেন। এর মাধ্যমে গ্যাসের সংকট কমবে এবং বিদেশে বিনিয়োগও বাড়বে। তবে দেশের স্বার্থ যেন আগে রক্ষা হয়, সে বিষয়টি উদ্যোক্তাদের নিশ্চিত করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, এদিন একনেক সভায় ৭২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ‘ইউরিয়া ফরমালডিহাইড-৮৫ প্ল্যান্ট স্থাপন প্রকল্প’ অনুমোদন দেওয়া হয়। প্রকল্পটি অনুমোদনের সময় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এম এ মান্নান বলেন, হাওরে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। হাওর এলাকায় পিলারের সাহায্যে এ এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ করতে হবে। এজন্য সব ধরনের পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়েছেন সরকারপ্রধান।

প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন তুলে ধরে এম এ মান্নান বলেন, হাওরে যেখানে ছোট সেতু দরকার সেটা করতে বলেছেন তিনি। যেন ঠিকমতো পানি চলাচল করতে পারে। সেতুর জন্য যেন নৌকা চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না হয়, সে বিষয়টিও নজরে রাখতে বলেছেন। খুঁটি দিয়ে ছোট ছোট সেতু বানিয়ে ফেলার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

মন্ত্রী জানান, ক্লাইমেট স্মার্ট অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট প্রজেক্টের (সিএসএডাব্লিউএমপি) আওতায় সিলেট অঞ্চলে কৃষি উন্নয়নও করা হবে। প্রকল্পটি অনুমোদনের সময় সিলেটের হাওরাঞ্চলের কথাও উঠে আসে।

উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে দেরি হওয়ায় বিরক্ত হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়ন দ্রুত করতে হবে। কেননা দেরি হলে ব্যয় যেমন বাড়ে, তেমনি জনগণও সঠিক সেবা প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হয়।

নেত্রকোনা-বিশিউড়া-ঈশ্বরগঞ্জ সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন করতে গিয়ে বিরক্ত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কেননা প্রকল্পটি ২০১৭ থেকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নের কথা ছিল। কিন্তু এখন মেয়াদ বাড়িয়ে ২০২২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত করা হয়েছে। সেই সঙ্গে মূল ব্যয় ছিল ২৬১ কোটি টাকা। এখন সেটি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৮১ কোটি ২০ লাখ টাকা। সড়ক পরিবহণ ও মহাসড়ক বিভাগ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।  

আমারসংবাদ/জেআই