‘সামনে আরও কঠিন সময় আসছে’

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সারাদেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এই পরিস্থিতি আগামীতে আরও কঠিন হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) দুপুরে ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে এ আহ্বান জানান। এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, উপ-দফতর সম্পাদক সায়েম খানসহ উপ-কমিটির নেতারা।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বর্তমানে করোনাভাইরাস আক্রান্ত ২১০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৩৭তম। সামনে আরও কঠিন সময় আসছে বলে অনেকেই আশঙ্কা করেছেন। এই চ্যালেঞ্জিং সময় আমাদের সাহসিকতার সঙ্গে অতিক্রম করতে হবে। তাই দলের সকল স্তরের নেতাকর্মীদের মানসিক প্রস্তুত থাকতে হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জনগণের পাশে আছে। এই দুর্যোগে প্রধানমন্ত্রী দেশ ও জনগণের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন; যা দেশে বিদেশে প্রশংসিত হচ্ছে।’

দলের সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মী ও সংসদ সদস্যরা আওয়ামী লীগের পক্ষে সারাদেশে ৯০ লাখ ২৫ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা এবং নগদ ৮ কোটি ৬২ লাখ অর্থ সহায়তা দিয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এসব কর্মসূচি তৃণমূল পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে।

এছাড়াও ২০০৮ সালের ৭ মে সেনা সমর্থিত সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বিদেশ থেকে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার দেশে ফিরে আসা নিয়েও কথা বলেন কাদের।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগ ও ছাত্রলীগসহ আমাদের সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা কৃষকের ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দেয়ার কর্মসূচি পালন করেছে অত্যন্ত সার্থকভাবে।

ধান কাটা সারাদেশে ইতোমধ্যে ৯০ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। এসব কর্মসূচির পাশাপাশি বিভিন্ন স্থানে ইফতার সেহরিসহ বিনামূল্যে খাদ্য সামগ্রী ও সবজি বিতরণ, অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস, ফ্রি টেলিমেডিসিন লাশ দাফনসহ স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

এর আগে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটির উদ্যোগে বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের মাঝে প্রতিনিধির মাধ্যমে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

আমারসংবাদ/এআই