খালেদা জিয়ার বিষয়ে আমরা অসহায় বোধ করছি: চিকিৎসক  

খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা আজ সন্ধ্যায় জরুরি এক ব্রিফিংয়ে বলেছেন, খালেদা জিয়ার বর্তমান অবস্থা নিয়ে আমরা খুব অসহায় বোধ করছি। ওনার সিরিয়াস বিষয়টা আমরা পরিবারকে জানিয়েছি। আপনারা যত দ্রুত পারেন তাকে দেশের বাইরে নেয়ার ব্যবস্থা করেন। কারণ টানা তিনদিন ওনার ব্লিডিং হয়েছে। এখন একটা পর্যায়ে ব্লিডিংটা বন্ধ আছে। 

শঙ্কা প্রকাশ করে চিকিৎসকরা বলেন, খালেদা জিয়ার ব্লিডিং আবার হতে পারে এটাই স্বাভাবিক। ওনার যে পরিস্থিতি রয়েছে হওয়ার ইঙ্গিতই বহন করে। চলমান পরিস্থিতি নিয়ে আমরা অসহায় বোধ করছি। কারণ ওনার থার্ড টাইম ব্লিডিং হয়েছে। ডায়াবেটিস, লিভারসহ সমস্যাগুলি নিয়ে এরপর ব্লিডিং হলে মারাত্মক ঝুঁকিতে পড়বে, বিষয়টা আমরা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষসহ পরিবারকে জানিয়েছি।  

তাঁরা আরো বলেন, একটা সময় আসতে পারে তাঁকে আর স্থানান্তরিত করাও যাবে না। কারণ এর আগে ম্যাডামের ব্লিডিং বন্ধ হচ্ছিল না টানা তিনদিন। তাই এতোদিন আমরা আপনাদের সামনে আসতে পারিনি। ম্যাডাম অনুমতি দিয়েছেন, তা নিয়েই আজ এসেছি।  

চিকিৎসকরা বলেন, চার মাস আগে বিদেশ গেলে এই ব্লিডিং হতো না। পরিবারকে রিক্স বলেছি, ভয়ের বিষয়টা চিকিৎসক হিসেবে স্পষ্ট বলতে পারি না। কারণ ওনার লিভার প্রায় তছনছ হয়ে গেছে।

চিকিৎসকরা আরও বলেন, মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ওনার রেকর্ডে তখন ব্লাড প্রেসার ছিলো-উপরে ৯০ নীচে ৫০ এর মতো। তখন আমরা বুঝতে পারি যে ওনার খাদ্যনালীতে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। তখন বাজে রাত সাড়ে নয়টার মতো। তখন আমরা তাঁকে বিভিন্ন সাপোর্ট দিতে থাকি। দ্রুত রক্তের ব্যবস্থা করি। তখন ওনার যে সমস্যাটা ছিলো এতে যে কোনো সময় মৃত্যুর ঝুঁকি থাকে। ওনাকে ওই সময়ে তিন ঘণ্টার মতো রক্ত দেয়াসহ চিকিৎসার সর্বোচ্চটুকু দেয়া হয়। ওনার রক্ত বন্ধ করাটা ছিলো আমাদের জন্য বড় একটা ব্যাপার। ওনার পালস খারাপ অবস্থা চলে গিয়েছিলো। রাত দু'টোর দিকে ওনার রক্তের চলাচল ও পালসের বিষয়টা কিছুটা স্বাভাবিক হয়। তখন আরও ডাক্তারকেও খবর দেই। রাত তিনটার দিকে তখন আমাদের একটা নতুন সেটআপ তৈরি করতে হয়।

‘এরপর কোনোভাবে আমরা ব্লিডিংটা বন্ধ করতে সমর্থন হই। রাত সাড়ে তিনটার দিকে জ্ঞান ফিরে আসার পর তাৎক্ষণিক ওনাকে বিশেষভাবে রাখি। কারণ আমাদের এ ও মনে রাখতে হয় উনি ডায়াবেটিসের রোগী, হার্টে সমস্যাসহ নানান জটিলতার মধ্যে রয়েছে। অনেক কিছু বিবেচনা করেই নতুন মেডিসিন দেই। এরপর তিনি কিছুটা স্টাবল হোন। এরপর আবার ১৭ তারিখে ওনার ব্লিডিং শুরু হয়।’

আমারসংবাদ/এমএস