Amar Sangbad
ঢাকা বুধবার, ০৬ জুলাই, ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

বিবাহিত হয়েও পদ পেলেন ইডেনের সোনালী

ঢাকা কলেজ প্রতিনিধি

ঢাকা কলেজ প্রতিনিধি

মে ১৫, ২০২২, ০৬:২০ পিএম


বিবাহিত হয়েও পদ পেলেন ইডেনের সোনালী

রাজধানীর ইডেন মহিলা কলেজে ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠিত হয়েছে গত ১৩ মে (শুক্রবার)। কমিটিতে ১নং সহ-সভাপতি পদ পেয়েছেন রহিমা খাতুন (সোনালী) ওরফে সোনালী আক্তার। তিনি বিবাহিত হয়েও এ পদ পেয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

খুলনা জেলার কয়রা উপজেলার ঘাটাখাল এলাকায় সোনালী আক্তারের বাড়ি। সেখানে তিনি রহিমা খাতুন (সোনালী) নামে পরিচিত তবে ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের কমিটিতে তার নাম দেখা গেছে সোনালী আক্তার নামে। তবে রহিমা খাতুন (সোনালী) তার প্রকৃত নাম সেটা ....  নিশ্চিত করেছেন তিনি নিজে।

প্রাপ্ত অভিযোগ অনুসারে, ২০১১ সালের ২৭ মে মেহেদী হাসান দিদারুল নামে এক ব্যক্তিকে বিয়ে করেন সোনালী আক্তার। তাদের বিবাহের কাবিননামার একটি কপি এই প্রতিবেদকের হাতে এসেছে। এদিকে ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বিবাহিত কেউ ছাত্রলীগের পদ পাওয়ার সুযোগ নেই।

এই বিষয়ে সোনালী আক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমার বিয়ের কাবিননামার বিষয়টি জেনেছি তবে এটা সত্য নয়। আমার এন্ট্রি কেউ হয়তো এমনটা ছড়াচ্ছে। আপনি আমার এলাকায় খোঁজ নিয়ে দেখতে পারেন।

সোনালী আক্তারের এলাকায় এই বিষয়ে খোঁজ নিলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান রহিমা খাতুন (সোনালী) এর ২০১১ সালে বিয়ে হয় মেহেদী হাসান দিদারুলের সঙ্গে এর পর সোনালী ঢাকা যাওয়ার পর কি হয়েছে ঠিক বলতে পারবো না।

এদের মধ্যে একজন জানান, তাদের বিয়ের সম্পর্ক ভাঙার একটা বিষয় জেনেছি তবে দিদারুল অনেক চেষ্টা করেছে যেন সম্পর্কটা টিকিয়ে রাখতে। এলাকায় থাকতে তাদের সম্পর্ক ভালোই ছিলো কিন্তু সোনালী ঢাকা যাওয়ার পর তাদের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হয় বলে শুনেছি।

এই বিষয় জানতে সোনালী আক্তারের স্বামী মেহেদী হাসান দিদারুলের মুঠোফোনে একাধিক বার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

এর আগে ১৩ মে ইডেন মহিলা কলেজ শাখা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে বিবাহিত, অধিক বয়সী ও বিতর্কিতরা পদ পেয়েছেন বলে অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে ওইদিন রাতে ইডেন কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ হয়। এসময় নতুন কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কক্ষে তালা দেন বিক্ষুব্ধরা। পরে ভোররাতে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

এদিকে গত শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন থেকে বের হওয়ার সময় বিতর্কিত বিষয়ে কথা বলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য। তিনি জানান, ছাত্রলীগের কমিটিতে বিবাহিত অভিযোগের প্রমাণ থাকলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আমারসংবাদ/কেএস