Amar Sangbad
ঢাকা বুধবার, ০৬ জুলাই, ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পদ্মাকন্যা উপাধি দিলেন আব্দুর রহমান 

নিজস্ব প্রতিবেদক

জুন ২৩, ২০২২, ০৫:২৩ পিএম


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পদ্মাকন্যা উপাধি দিলেন আব্দুর রহমান 

নানামুখী ষড়যন্ত্র এবং সংকট মোকাবিলা করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পদ্মাকন্যা উপাধি দিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান। 

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি উপাধি দেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্যে করে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, প্রিয় আপা আপনি বিশ্বাস করেন, পদ্মাকন্যা শেখ হাসিনাকে দেখার জন্য পদ্মাপারের লক্ষ কোটি মানুষ অপেক্ষায় আছে। পদ্মাও আপনার জন্য অধির আগ্রহে আছে। বিশ্বাস করেন, ওখানে শুধু মানুষের সমাবেশ হবে না। ওখানে উৎসবের সামাবেশ হবে। ওখানে আনন্দের জোয়ারে নতুন পদ্মা সৃষ্টি হবে। সেই অপেক্ষায় সবাই আছে। পদ্মাসেতু উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে ৭৫’এর খুনীদের আমরা জবাব দিবো। উদ্বোধনের দিন আমরা বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশ দেখতে চাই। 

রাজনৈতিক ভাবে জিয়ার রাজনৈতিক বংশ উচ্ছেদ করতে হবে দাবি করে আব্দুর রহমান বলেন, জিয়াউর রহমান সেদিন সোয়স জাহাজ থেকে অস্ত্র নামানোর এক পর্যায়ে অনুপ্রবেশকারী হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেছিল। পাকিস্তানের গুপ্তচর হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে নাম লিখেছিল। তাই রাজনৈতিক ভাবে জিয়ার রাজনৈতিক বংশ উচ্ছেদ করতে হবে। কারণ ওরা ২১ শে ফেব্রুয়ারিতে শহিদ মিনারে যেতে চায় না। ৭ ও ২৬ মার্চ মানে না। ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস পালন করে না। অথচ তারা অথচ নিজেদের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে দাবি করে।

খুনীদের সাথে আওয়ামী লীগের আপোষ নেই ইঙ্গিত দিয়ে আব্দুর রহমান বলেন, যারা আমাদের খুন করেছে। আমরা যারা তাদের হাতে খুনের শিকার হয়েছি। সেই খুনীদের সাথে আমাদের অবস্থান হতে পারে না। হয় ওরা থাকবে, নইলে আমরা থাকবো। সেই পথ আমাদের খুজে বের করতে হবে। 

পদ্মাসেতু নিয়ে ষড়যন্ত্র হয়েছে উল্লেখ্য করে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, পদ্মাসেতু দুর্নীতি হয়েছে অভিযোগ তুলেছে, কিন্তু প্রমাণ করতে পারেনি। পদ্মাসেতুর ব্যয় বৃদ্ধিও অভিযোগ প্রমান করতে পারেনি। এরপর বললো, পদ্মাসেতু জরাতালি দিয়ে হচ্ছে, মানুষ উঠে পড়ে যাবে। সেটাও হচ্ছে না। মূলত তারা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এদের বিরুদ্ধে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। 

তিনি আরও বলেন, আমাকে এজনক বললো, পদ্মাসেতু হয়ে গেছে। এখানে আর ফেরি রাখার দরকার নেই। ফেরিগুলো পাটুরিয়া পাঠালেই হয়। আমি তাকে বললাম, কিছু ফেরি রাখার দরকার আছে। কারণে এই খালেদা জিয়ারা তো এই পদ্মায় উঠবে না। তাকে ফেরিতে পার হতে হবে। এজন্য কয়েকটি ফেরি রেখে দিতে হবে। 

এসময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, জাহাঙ্গীর কবির নানক, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম, এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, এসএম কামাল হোসেন, আফজাল হোসেন, ত্রাণ ও সমাজকন্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী প্রমুখ।

আমারসংবাদ/এবি