৯৯৯ ফোন: বলাৎকারের অভিযোগে মাদ্রাসার পরিচালক আটক

ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার সদর ইউনিয়নের পূর্ব পাঁচপাড়া (ফায়ার সার্ভিস সংলগ্ন) অবস্থিত মারকাজুল হিদায়াহ মাদ্রাসার পরিচালক মুফতি ফরিদ আহম্মেদ (৪০) কে শিশু বলাৎকারের অভিযোগে আটক করছে ত্রিশাল থানা পুলিশ।

এ বিষয়ে ওসি মাইন উদ্দিন বলেন, হালুয়াঘাট উপজেলার ধোপাগুছিনা গ্রামের ভিকটিম মারকাজুল হিদায়া মাদ্রাসা থাকতো। লকডাউন চলা সময় মাদ্রাসা মাদ্রাসা বন্ধ ছিল। মাদ্রাসা পরিচালক মুফতি ফরিদ আহম্মেদ মাদ্রাসায় থাকতেন। মাদ্রাসার ওই ছাত্র গত ২১ এপ্রিল থেকে উক্ত মাদ্রাসায় থাকাকালীন সময়ে মুফতি ফরিদ আহম্মেদ প্রায় দিনই তাকে বলাৎকার করতেন। ঘটনার দিন গত ৮ মে রাত অনুমান ১১ ঘটিকার সময় মুফতি ফরিদ আহম্মেদ ভিকটিম কে বলাৎকার করতে চাইলে ওই ছাত্র বাধা দিলে হুজুর তাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে বলাৎকার করেন। ঘটনার পর আসামি কাউকে কিছু না বলার জন্য ভিকটিমকে ভয়ভীতি দেখায়। 

ওই ছাত্র ঘর থেকে বের হয়ে ৯৯৯ এ কল দিলে ত্রিশাল থানা পুলিশের উপ- পরিদর্শক (নিঃ) মোঃ আমিনুল হক সঙ্গীয় ফোর্স সহ মাদ্রাসা ছাত্রকে উদ্ধার করে ত্রিশাল  থানায় নিয়ে আসেন। 

ভিকটিমের জবানবন্দি অনুযায়ী উপ-পরিদর্শক(নিঃ) মোহাম্মদ আমিনুল হক এর নেতৃত্বে ত্রিশাল থানা পুলিশের একটি টিম উক্ত মাদ্রাসা থেকে মুফতি ফরিদ আহম্মেদ কে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। পরবর্তীতে ভিকটিমের মা হালুয়াঘাট থেকে সংবাদ পেয়ে ত্রিশাল থানায় এসে মামলা দায়ের করেন। ত্রিশাল থানার মামলা নং ১১, তাং ০৯/০৫/২০২১, ধারাঃ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশা/০৩) এর ৯(১)। 

আসামি মুফতি ফরিদ আহম্মেদকে ময়মনসিংহ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হইলে আসামি ফৌজদারি কার্যবিধি ১৬৪ ধারা মোতাবেক জবানবন্দি প্রদান করে অপরাধ স্বীকার করেছেন।

আমারসংবাদ/কেএস