অভিমানে ইউনিয়ন আ.লীগ সভাপতির পদত্যাগ

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার দেশিগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ থেকে পারিবারিক ও শারীরিক কারণ দেখিয়ে স্বেচ্ছায় অব্যাহতি নিয়েছেন ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি জ্ঞানেন্দ্রনাথ বসাক। তবে তিনি আসন্ন পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। তিনি আমার সংবাদ'র নিকট স্বীকার করেছেন আওয়ামী লীগের প্রতীক নৌকার মনোনয়ন না পেয়ে অভিমানে এই সিধ্যান্ত নিয়েছেন তিনি। তবে কারও প্রতি অভিযোগ তুলতেও চাননি এই ব্যাক্তি। 

সোমবার (৬ ডিসেম্বর) দুপুরে তাড়াশ উপজেলা আ.লীগের দলীয় কার্য়ালয়ে তিনি উপজেলা আ.লীগের দপ্তর সম্পাদক স্বপন দাসের নিকট এই পদত্যাগ পত্র জমা দেন। 

বিষয়টি আমার সংবাদকে নিশ্চিত করেছেন দেশিগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জ্ঞানেন্দ্রনাথ বসাক ও তাড়াশ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জিত কুমার কর্মকার। 

অব্যাহতি চাওয়া দেশিগ্রাম ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি জ্ঞানেন্দ্রনাথ বসাক আমার সংবাদকে বলেন, অভিমান কষ্ট তো থাকবেই। ১৯৯৫-২০০১ সাল পর্যন্ত আমি দেশিগ্রাম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলাম। এরপরে ২০০৩-২০১২ সাল পর্যন্ত উপজেলা আ.লীগের কার্যকারী সদস্য ছিলাম। এরপর ২০১২-২০২০ সাল পর্যন্ত দেশিগ্রাম ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে বর্তমানে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছি।  আমি মুজিব আদর্শ বুকে ধারণ করে ছোটবেলা থেকে নিজেকে গড়ে তুলেছি। তবুও আমার মতো মানুষকে যদি দলীয় মনোনয়ন না দেওয়া হয় সেটা তীব্র কষ্টের। তবুও আমার পারিবারিক ও শারীরিক সমস্যার কারণ দেখিয়েই দলীয় পদ থেকে অবহ্যতি চাচ্ছি।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে ইউপি নির্বাচন করবেন কি না জানতে চাইলে তিনি আমার সংবাদকে বলেন, জনগণ আমাকে চায়। আমাকে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য জনগণ চাপ দিচ্ছে। তাদের ইচ্ছায় আমি আসন্ন নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসাবে অংশ নিবো। 

আমারসংবাদ/কেএস