‘ব্যালন ডি’অরের জন্য মেসিকে শুভকামনা’

লিওনেল মেসি-সার্জিও রামোস। আগে দু’জন ছিলেন চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী শিবিরে। লিওনেল মেসির ডেরা ছিল বার্সেলোনা, আর সার্জিও রামোসের রিয়াল মাদ্রিদ। দু’জনে আবার দুই দলের অধিনায়কও ছিলেন। তারা অনেক সময় মাঠেই বিবাদে জড়িয়ে পড়তেন। 

কিন্তু সময়ের ফেরে দু’জনই এখন খেলছেন একই দলে। সার্জিও রামোসকে আগেই দলে ভিড়িয়েছিল পিএসজি। এরপর গেল আগস্টে লা লিগার বেধে দেওয়া নীতিমালার কারণে মেসিকে ধরে রাখতে পারেনি বার্সা। ফলে কাতালুনিয়ার সঙ্গে ২১ বছরের সম্পর্ক শেষ হয় তার, নতুন গন্তব্য হয় পিএসজি। এখানে এসে পুরনো শত্রুকে নতুন রূপেই পেয়েছেন মেসি। সেই রামোসই এখন হয়ে গেছেন তার পরম বন্ধু!

শনিবার রাতে স্প্যানিশ এই ডিফেন্ডারের সতীর্থ হয়ে প্রথমবারের মতো মাঠে নেমেছিলেন মেসি। আর্জেন্টাইন অধিনায়ক আলো ছড়িয়েছেন, করেছেন গোল করানোর হ্যাটট্রিক, তাতে পিছিয়ে পড়েও জয় তুলে নিতে কোনো সমস্যা হয়নি পিএসজির। রামোসও কম যাননি, দলের জয়ে অবদান আছে তারও। 

ম্যাচশেষে মেসির দারুণ প্রশংসাই করলেন তিনি। রামোসের কথা, ‘সে দারুণ ছন্দে আছে। আর আমি মনে করি, সে এমন একজন খেলোয়াড় যে পার্থক্য গড়ে দেয়। সে একজন অনন্য খেলোয়াড় আর তাকে দলে পাওয়া ভাগ্যের বিষয়।’

মৌসুমের শুরুতে রামোস, জিয়ানলুইজি ডনারুমা, জর্জিনিও ওয়াইনাল্ডাম, ও সবশেষ মেসিকে দলে ভেড়ায় পিএসজি। এরপর থেকেই দলটির প্রত্যাশা বড় কিছুর। রামোসের মনে হচ্ছে, ধীরে ধীরে দল সেসব অর্জনের মতো পর্যায়ে পৌঁছুচ্ছে। বলছেন, ‘আমি মনে করি, ধীরে ধীরে পিএসজিকে আরও বড় দল বানানোর জন্য, আমাদের প্রত্যাশা পূরণের জন্য যে গুণমান দরকার, সেটা দলে আনছি আমরা।’ 

মেসির সঙ্গে শেষ কয়েক বছরে তার মাঠের লড়াই বেশ আলোচিত ছিল। সেই মেসিকেই এখন বুকে জড়িয়ে নিলেন তিনি। জানালেন ব্যালন ডি’অরের জন্য শুভকামনাও। বলেন, ‘আমি আমার দলের সব খেলোয়াড়কেই সমর্থন দেবো। ব্যালন ডি’অরের জন্য মেসিকে শুভকামনা জানাই।’

আমারসংবাদ/এমএস