ঢাবির সাবেক শিক্ষিকা জেলে, বিভিন্ন মহলের প্রতিবাদ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সিনেট সদস্য, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস.এ. ইসলামকে ঢাকার উত্তরা পশ্চিম থানায় দায়েরকৃত একটি বিস্ফোরক ও নাশকতার মামলায় জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে ঢাকার একটি আদালত।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে রাজধানীর উত্তরার ১৩ নাম্বার সেক্টরের ১১ নাম্বার রোডের একটি বাসা থেকে  গ্রেপ্তার করে ২০১৮ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর উত্তরা পশ্চিম থানায় দায়েরকৃত একটি বিস্ফোরক ও নাশকতার মামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ তাকে আদালতে পাঠায়। আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কাশিমপুর মহিলা কারাগারে পাঠায়।

বিএনপি সমর্থিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্র এবং ছাত্রদল সূত্রে জানা যায়, ড. তাজমেরী এস এ ইসলাম একজন দেশপ্রেমিক শিক্ষাবিদ। তার পিতা মরহুম  আলহাজ্ব সিরাজুল হক তালুকদার একজন সংসদ সদস্য ছিলেন। তাজমেরী এসএ ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতার পাশাপাশি প্রশাসক হিসেবেও খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন এবং বিজ্ঞান অনুষদে একাধিকবার  ডিন হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। রোকেয়া হলের প্রভোস্ট হিসেবেও তিনি ছাত্রীদের মাঝে জনপ্রিয় ছিলেন। সর্বোপরি সহকর্মী  শিক্ষক-শিক্ষিকা, শিক্ষার্থীসহ বিশ্ববিদ্যালয় অঙ্গণের সবার মাঝে সজ্জন, সদালাপী এবং গুণী শিক্ষক হিসেবে তিনি একজন সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব ছিলেন। এমন একজন ব্যক্তির বিরুদ্ধে বিস্ফোরক আইনে মামলা দেওয়া এবং জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানো এক ধরনের নির্মম পরিহাস এবং হাস্যকর।

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ড. তাজমেরী এস এ ইসলামকে কারাগারে প্রেরণ করার প্রতিক্রিয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ফেসবুক কেন্দ্রিক বিভিন্ন গ্রুপে তারা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদল মনে করে, এটি  জেল-জুলুমের মাধ্যমে দেশের গুণী নাগরিকদের হেনস্তা করার একটি ঘৃণ্য প্রচেষ্টা। স্বৈরতান্ত্রিক এবং অগণতান্ত্রিক সরকারকে অবৈধ মসনদে টিকিয়ে রাখতে যারা প্রশাসনকে ব্যবহার করছে তাদেরকে অচিরেই জবাবদিহির আওতায় এনে বিচারের মুখোমুখি করা হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল অবিলম্বে অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলাম এর নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়েছে।

৭৫ বছর বয়সী এই শিক্ষাবিদকে জেলখানায় পাঠানোর নিন্দা জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সাবেক নেত্রী বাণী ইয়াসমিন হাসি। তিনি তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে বলেছেন, রোকেয়া হলের প্রভোস্ট হিসাবে উনি ছিলেন সবার কাছে জনপ্রিয় এবং গ্রহণযোগ্য। তার মত প্রবীণ শিক্ষককে বিস্ফোরক ও নাশকতার মামলায় জেলে পাঠানো অতি উৎসাহিত পুলিশের বাড়াবাড়ি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপি সমর্থিত শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দলের আহ্বায়ক প্রফেসর লুৎফর রহমান এক বিবৃতিতে ডক্টর তাজমেরী এস এ ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের এবং তাকে জেলে পাঠানোর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। অবিলম্বে তাকে মুক্তি দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন।

আমারসংবাদ/কেএস