যেসব বক্তব্য নিয়ে সমালোচনায় তথ্য প্রতিমন্ত্রী

যেসব বক্তব্য নিয়ে সমালোচনায় তথ্য প্রতিমন্ত্রী

গেলো শনিবার বেসরকারি একটি টেলিভিশনের টকশোতে অংশ নিয়ে প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান অপর আলোচক, বিএনপির একজন নেত্রী, সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দা আসিফা আশরাফী পাপিয়াকে আলোচনার এক পর্যায়ে 'মানসিক রোগে আক্রান্ত' এবং তার 'চিকিৎসা দরকার' বলে মন্তব্য করেন। সেই সময় দুই জনের মধ্যে তুমুল ঝগড়া লেগে যায়।

এর দুদিন আগে ইউটিউবে প্রকাশিত একটি সাক্ষাৎকারে শীর্ষস্থানীয় একজন বিএনপি নেতার কন্যাকে উদ্দেশ্য করে অশালীন বক্তব্য দিতে দেখা যায় মুরাদ হাসানকে।

ইউটিউবের ওই টকশোতে মুরাদ হাসানকে বলতে শোনা যায়, ''আমার মুখ ভীষণ খারাপ।'' এসব বক্তব্য নিয়ে সামাজিক তুমুল সমালোচনা চলছে।

সাবিনা ইয়াসমিন মাধবী নামের একজন ফেসবুকে লিখেছেন, ''আপনি রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হয়ে আরেকটি রাজনৈতিক পরিবারের একজন তরুণীকে যে শব্দগুলো ব্যবহার করে বক্তব্য দিয়েছেন, তা শুনে অত্যন্ত লজ্জিত এবং একজন নারী হিসাবে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েছি।''

কানন বড়ুয়া বিশাল নামের একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী আওয়ামী লীগ ও সরকারকে উদ্দেশ্য করে লিখেছেন, ''আপনারা আপনাদের মুরাদ হাসানকে থামাচ্ছেন না কেন?"

"সে বিএনপি ও নেতাকর্মীদের নিয়ে অশ্রাব্য, অসভ্য ভাষায় যা-তা কথা বলে বেড়াচ্ছে। অথচ, সে একটা সাংবিধানিক দায়িত্বে আছে,'' ফেসবুকে লিখেছেন কানন বড়ুয়া।

বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, তিনি বক্তব্য দেয়ার আগে তাকে 'নোংরা ভাষায়' আক্রমণ করে কথা বলেছেন শীর্ষস্থানীয় ওই বিএনপি নেতার কন্যা।

'আমার মেয়ের বয়সের চেয়ে সে এক বছরের বড়। আমার কন্যার মতো বয়সী হয়ে যে নোংরা ভাষায় আমাকে নিয়ে ট্রল করেছে, সেটা তো কুচিন্তনীয়। এটা আমার কাছে খুব দুঃখজনক মনে হয়েছে। তার সম্পর্কে সামাজিক মাধ্যমের অনেক ছবি আমার কাছে চলে এসেছে।''

আর টকশোতে হাজির হয়ে বিএনপি নেত্রী সৈয়দা আসিফা আশরাফী পাপিয়াকে আক্রমণ করে মন্তব্য করা প্রসঙ্গে মি. হাসান বলেন, ''আপনি যদি ওই টকশোটা দেখেন, তাহলেই বুঝতে পারবেন আমি কেন বলেছি"।

"আমি একজন চিকিৎসক। সেই হিসাবে তার সম্পর্কে আমার যে অবজারভেশন, সেটা আমি বলেছি। সেটা ভুল হলে আমি দুঃখিত।''

উল্লেখ্য, সম্প্রতি মুরাদ হাসানের একটি সাক্ষাৎকার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। এতে তিনি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, তাঁর ছেলে তারেক রহমান ও নাতনি জাইমা রহমান সম্পর্কে নানা মন্তব্য করেছেন। এ নিয়ে তীব্র সমালোচনা হচ্ছে।

তবে মুরাদ হাসান বলেছেন, তিনি এসব বক্তব্য দিয়ে কোনো ভুল করেননি। এগুলো তিনি প্রত্যাহারও করবেন না কিংবা প্রত্যাহার করার ব্যাপারে সরকার ও দলের উপর থেকে কোন চাপও নেই।

আমারসংবাদ/এআই