আপনারা কি চান না নারায়ণগঞ্জে সুষ্ঠু নির্বাচন হোক?

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, আমি শঙ্কিত হব না কেন? নেতাকর্মীদের বাড়িতে যখন পুলিশ হামলা করে। এজেন্টকে যখন পুলিশ ধরে নিয়ে যায় হেফাজতের মামলায়, তখন তো শঙ্কা সৃষ্টি হবেই। এতদিন জনগণ প্রার্থী পায়নি আমরা রাজীও হইনি। এখন আমরা রাজী হয়েছি জনগণ মনের মত প্রার্থী পেয়েছে। যে প্রার্থী সবসময় জনতার থাকবে।  

মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারি) সকালে শহরের মিশনপাড়া এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে একথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবি আমার সিদ্ধিরগঞ্জ প্রচারণা কমিটির প্রধান সমন্বয়ক। তার হাতেই দায়িত্ব ছিল সব এজেন্ট এবং নির্বাচন সংক্রান্ত কাজ পরিচালনা ও সহযোগিতার। আমি জানতে পারলাম, কাল তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমি পুলিশ সুপারের নজরে আনলাম। 

জবাবে বললেন তিনি অফিসে নেই। আমি টেলিফোনে বললাম, রবিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে কেন? তিনি বললেন রবির নামে ওয়ারেন্ট আছে। আপনারা জানেন, বিএনপির এমন কোনো নেতা-কর্মী নেই যার নামে ওয়ারেন্ট নেই। যাদের নামে মামলা নেই। কখন কোন মামলা পুলিশ কীভাবে ব্যবহার করে আপনারা জানেন। আমি পুলিশ সুপারকে বললাম, যেদিন আমি মনোনয়ন ফরম কিনেছিলাম, জমা দেয়া, বাছাই এবং প্রতীক বরাদ্দের দিন রবি আমার পাশে ছিলেন। 

জাতীয় পত্র-পত্রিকায় তার ছবি এসেছে। আপনি তাকে এতদিন গ্রেপ্তার করলেন না, আমাদের সম্মানিত মেহমান জাহাঙ্গীর কবির নানক সাহেব যখন বললেন 'ঘুঘু দেখেছে, ঘুঘুর ফাঁদ দেখেনি', তারপর থেকে কেন আপনারা ফাঁদ দেখানো শুরু করেছেন? আপনারা কি চান না নারায়ণগঞ্জে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে একটি নির্বাচন হোক?

আমি দুঃখের সঙ্গে আরও জানাচ্ছি, সকালে আমার সিদ্ধিরগঞ্জের একটি ওয়ার্ড সদস্য মোশারফ হোসেন জানালেন তার বাড়িতে পুলিশ তল্লাশি চালিয়েছে। মাজাহারুল ইসলাম জোসেফের বাড়িতে পরশু তল্লাশি করেছে। তাকে গ্রেপ্তারের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছে। সে যুবদলের কার্যক্রমে প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করছে। বন্দর থেকে ধামগড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল আমাকে সমর্থন করায় তার বাড়িতে তল্লাশি হয়েছে। কেয়ারটেকারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, বলেন তৈমূর।

প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, আশা করি নারায়ণগঞ্জবাসীর স্বার্থে তাদের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটাবেন। দেশবাসী দীর্ঘ দিন সুষ্ঠু ভোট পায় না। দিনের ভোট রাতে হয়ে যায় সে অভিযোগও রয়েছে। যার জন্য বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলো বর্তমান সরকারের অধীনের নির্বাচনে যেতে চায় না। এই নির্বাচনে যদি আপনি পুলিশ দিয়ে হয়রানি করেন, তবে রাজনৈতিক দলগুলো আপনার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনছে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সে অভিযোগগুলো প্রতিষ্ঠিত হবে বলে আমি মনে করি। 

এমনিতেই সরকারের ভাবমূর্তি নিয়ে অনেক প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। সরকারের অনেক বড় বড় কর্মকর্তা যারা রাষ্ট্রীয় দায়িত্বে ছিলেন, আছেন, তাদের বিদেশ যাওয়ার ভিসা বন্ধ করে দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীকে সবিনয় নিবেদন করে বলছি, আপনার নিজের ভাবমূর্তির প্রশ্নে বিষয়টি আপনি বিবেচনা করবেন এবং নারায়ণগঞ্জে নির্বাচন করতে গিয়ে আমরা যাতে হয়রানির শিকার না হই সে ব্যাপারে আমি আপনার সদয় হস্তক্ষেপ কামনা করি।

তৈমূর বলেন, ভাই বোন এক হয়ে গেলে ভালই হত। মিডিয়ার কল্যাণে এসব কথাবার্তা শুধু নারায়ণগঞ্জের মানুষ শোনে না, বিশ্বব্যাপী মানুষ শোনে। বাইরে কোথাও গেলেই নারায়ণগঞ্জের ব্যাপারে অনেক কথা উঠে যায়।

তিনি আরও বলেন, কার নামে ওয়ারেন্ট নেই? বিএনপি চেয়ারপারসন নিজে জেলে আছেন। তারেক রহমানও তো ওয়ারেন্ট নিয়েই বিদেশে আছে। কে মামলার মধ্যে নেই। রবি করে বিএনপি, তাকে ধরা হয়েছে হেফাজতের মামলায়। হেফাজতের লোকেরাই তো প্রধানমন্ত্রীকে কওমি জননীর উপাধি দিয়েছে। এখন গোলযোগ হেফাজতের সাথে আর মামলা খায় বিএনপি।

তৈমূর বলেন, আমার সাথে শুধু বিএনপি নয় সব দলের লোকেরা আছে। আমি দুই তিন ধাপে এজেন্ট তৈরি করছি। নারায়ণগঞ্জের যারা নাগরিক, যারা ট্যাক্স দেয় তাদের ট্যাক্স বৃদ্ধি করা হয়েছে। তারা পানি পাচ্ছে না, শব্দ দূষণ বায়ু দূষণের শিকার। বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ব্যর্থতার জন্য জনগণ পরিবেশ বান্ধব নগরী পাচ্ছে না।

আমারসংবাদ/এআই