Amar Sangbad
ঢাকা মঙ্গলবার, ২৪ মে, ২০২২, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

শান্তিরক্ষা মিশনে র‍্যাবকে নিষিদ্ধের দাবিতে ১২টি সংস্থার চিঠি

আমার সংবাদ ডেস্ক

জানুয়ারি ২০, ২০২২, ০১:০৫ পিএম


শান্তিরক্ষা মিশনে র‍্যাবকে নিষিদ্ধের দাবিতে ১২টি সংস্থার চিঠি

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে (র‍্যাব) নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক ১২টি মানবাধিকার সংস্থা।

এ বিষয়ে সংস্থাগুলো জাতিসংঘের আন্ডার-সেক্রেটারি জেনারেল জ্যঁ পিয়ের ল্যাকোঁয়ারকে একটি চিঠি দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) মানবাধিবার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে। গত বছরের ৮ নভেম্বর জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারিকে এই চিঠি পাঠান তারা। 

চিঠিতে বলা হয়েছে, 'আমরা, ১২টি নিম্নস্বাক্ষরকারী সংস্থা গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে জানাচ্ছি যে জাতিসংঘের ২০১২ সালের পলিসি অন হিউম্যান রাইটস স্ক্রিনিং অব ইউনাটেড ন্যাশন পারসোনেল বাংলাদেশি নাগরিকদের ক্ষেত্রে যথাযথভাবে প্রয়োগ করা হচ্ছে না।'

আরও বলা হয়, 'আপনি জানেন, বাংলাদেশ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে শীর্ষ সেনা ও পুলিশ মোতায়েনকারী দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। ২০২০ সালে দেশটি বিভিন্ন মিশনে ৬ হাজার ৭৩১ জন ইউনিফর্মধারী কর্মী মোতায়েন করে সর্বোচ্চ অবদান রাখে।'

'বিশেষ করে আমরা উদ্বিগ্ন যে, যেসব ব্যক্তিরা র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-এর সঙ্গে কাজ করেছেন তাদের জাতিসংঘ মিশনে পাঠানো হচ্ছে। 

২০০৪ সালে এই ইউনিটটি গঠিত হওয়ার পর থেকে ইউনিটের সদস্যদের মাধ্যমে বিচারবহির্ভূত হত্যা, নির্যাতন এবং জোরপূর্বক গুম করার ধারাবাহিক ও বিশ্বাসযোগ্য প্রমাণ থাকার পরও।' 

'২০২১ সালের মার্চ মাসে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট উল্লেখ করেছেন, 'র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ানের দ্বারা নির্যাতন ও দুর্ব্যবহারের অভিযোগ দীর্ঘস্থায়ী উদ্বেগ তৈরি করেছে', বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

চিঠিতে সই করেছে—অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, এশিয়ান ফেডারেশেন এগেইনস্ট ইনভলান্টারি ডিসাপিয়ারেন্সেস (এএফএডি), এশিয়ান ফোরাম ফর হিউম্যান রাইটস এন্ড ডেভেরপমেন্ট (ফোরাম- এশিয়া), এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশন, এশিয়ান নেটওয়ার্ক ফর ফ্রি ইলেকশনস (এএনএফআরইএল), ক্যাপিটল পানিশমেন্ট জাস্টিস প্রজেক্ট, সিভিকাস: ওয়ার্ল্ড অ্যালায়েন্স ফর সিটিজেন পার্টিসিপেশন, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন ফর হিউম্যান রাইটস, রবার্ট এ. কেনেডি হিউম্যান রাইটস এবং দ্য অ্যাডভোকেটস ফর হিউম্যান রাইটস এবং ওয়ার্ল্ড অরগানাইজেশন এগেইনস্ট টর্চার (ওএমসিটি)।

তবে জাতিসংঘের পক্ষ থেকে এই চিঠির আনুষ্ঠানিক কোনো উত্তর দেয়া হয়নি। 

উল্লেখ্য, মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে র‍্যাবের সাবেক ও বর্তমান সাত কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট (রাজস্ব বিভাগ) ও পররাষ্ট্র দপ্তর ১০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসে পৃথকভাবে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

চিঠিতে বলা হয়, বেনজির আহমেদ ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত র‌্যাবের মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এসময় ১৩৬ টি বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড এবং ১০টি গুমের ঘটনা ঘটেছে।

এক টেলিভিশন সাক্ষাত্কারে, পুলিশের প্রধান বেনজির আহমেদ বলেন, মার্কিন নিষেধাজ্ঞা “মিথ্যা এবং বানোয়াট। মিথ্যা’র ওপর ভিত্তি করে কিছু লোক লোক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা থেকে র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞার ও “আমাদের সরকার এবং আমাদের দেশকে বিব্রত করার চেষ্টা করছে।”

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার ঘোষণার প্রতিক্রিয়ায় র‌্যাবের উপ-প্রধান কে এম আজাদ বলেন, ‘কোনো অপরাধীকে আইনের আওতায় আনা যদি মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়, তাহলে দেশের স্বার্থে এই মানবাধিকার লঙ্ঘন করতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই।’

আমারসংবাদ/এআই