Amar Sangbad
ঢাকা বুধবার, ১৮ মে, ২০২২, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

অতিরিক্ত মিষ্টি দেহের নার্ভাস সিস্টেমের ওপর প্রভাব ফেলে

আমার সংবাদ ডেস্ক

অক্টোবর ২৮, ২০২১, ১১:৩৫ এএম


মিষ্টিজাতীয় খাবার বহু ধরনের স্বাস্থ্যগত ক্ষতির জন্য দায়ী।কেননা অতিরিক্ত চিনি খেলে বা মিষ্টি খাবার খেলে অবসাদের শিকার হতে পারেন- এমনই জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।  বিজ্ঞানীদের মতে, অতিরিক্ত মাত্রায় মিষ্টি খেলে পুরুষদের মধ্যে মেন্টাল ডিজঅর্ডার দেখা যায়।  সমীক্ষার মাধ্যমে জানাযায় পাঁচ বছরে যাঁরা বেশি মাত্রায় মিষ্টি খাবার ও পানীয় খেয়েছেন, তাঁদের অধিকাংশই অবসাদে আক্রান্ত হয়েছেন। তার তুলনায় যারা কম মিষ্টি খেয়েছেন তারা কম অবসাদগ্রস্ত হয়েছেন।

চিকিৎসকদের মতে, অবসাদ বা ডিপ্রেশনে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিনদিন বেড়ে চলেছে। অধিকাংশ রোগেরই মূল কারণ অবসাদ বলে জানিয়েছেন তাঁরা। কম বয়স থেকেই অবসাদের শিকার হলে, ব্লাড সুগার, স্নায়ু রোগ, হার্টের সমস্যা ইত্যাদি হতে পারে। এই রোগগুলিই বেশি দূর পর্যন্ত গড়ালে মৃত্যুও হতে পারে। মিষ্টির কিছু নেতিবাচক দিক নিচে তুলে ধরা হলো-

১. ক্যান্সার-অতিরিক্ত চিনির কারণে ক্যান্সারের আশঙ্কা বেড়ে যেতে পারে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। এ ক্ষেত্রে ইনসুলিন রেজিস্ট্যান্সকে মূল কারণ হিসেবে তুলে ধরছেন তাঁরা। এ পরিস্থিতিতে কোষগুলো ইনসুলিনের সঙ্গে সঠিকভাবে কাজ করে না। তাতে হরমোনের ভারসাম্যহীনতা তৈরি হয় এবং একপর্যায়ে নানা ধরনের ক্যান্সার সৃষ্টি করে।
 

২. নেশা-চিনি খাওয়া এক ধরনের নেশা। এটি আমাদের মস্তিষ্ক ও দেহের নানা রাসায়নিককে উজ্জীবিত করে। এতে আমরা আরো বেশি পরিমাণে চিনি গ্রহণে আগ্রহী হয়ে উঠি।
 
৩. হৃদরোগ-অতিরিক্ত চিনি খেলে তা দেহে বাড়তি ইনসুলিনের কারণ হয়ে ওঠে। গবেষকরা জানিয়েছেন, অতিরিক্ত ইনসুলিন দেহের নার্ভাস সিস্টেমের ওপর প্রভাব ফেলে। এতে রক্তচাপও বেড়ে যায়। বাড়তি রক্তচাপ থেকে হতে পারে নানা হৃদরোগ।

৪. স্মৃতিশক্তির ক্ষতি-অতিরিক্ত মিষ্টি খাবার-পানীয় বা চিনি খেলে স্মৃতিশক্তির ক্ষতি হয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অতিরিক্ত চিনি খাওয়ার কারণে দেহে যথেষ্ট পরিমাণ ইনসুলিন উত্পন্ন হতে পারে না। এতে মস্তিষ্কের অনেক কার্যক্রম বদলে যায়। ফলে মস্তিষ্কের স্মৃতিশক্তি নষ্ট করে—এমন রোগের আশঙ্কা বেড়ে যায়

আমারসংবাদ/এএজে