সারাক্ষণ দুর্বল লাগলে যেসব খাবার খাবেন

ফাইল ছবি

শারীরিক অসুস্থতার পাশাপাশি মানসিকভাবেও দুর্বল হয়ে পড়ছেন অনেকে। পর্যাপ্ত পুষ্টির অভাবে এমনটা হতে পারে। খাবার খেলেও তাতে প্রয়োজনীয় পুষ্টির কতটা থাকে, সে বিষয়ে আমরা বেশিরভাগই জানি না। 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আমরা খাবারের প্রতিই সবচেয়ে বেশি আকৃষ্ট হই। খাবারের থেকে বেশি স্বস্তি আর কোনোকিছুই দিতে পারে না। সঠিক খাবার শরীরে পৌঁছালে মানসিক চাপ কমে, ভালো থাকে শরীর ও মন। তাই অসুখ থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য সঠিক খাবার খাওয়ার বিকল্প নেই। আপনার যদি সারাক্ষণই দুর্বল লাগে তবে খাবারের প্রতি আরও বেশি মনোযোগী হতে হবে।

সামুদ্রিক মাছ: সামুদ্রিক মাছ আমাদের শরীরের জন্য অনেক বেশি প্রয়োজনীয় একটি খাবার। দুর্বলতা দূর করার জন্য সামুদ্রিক বিভিন্ন মাছ খাওয়া উচিত। ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিডযুক্ত খাবার নিয়মিত খাবেন। মানসিক চাপ কমাতে কাজ করে মাছের তেল। সামুদ্রিক বিভিন্ন মাছ খেলে তা হরমোনের ক্ষরণের মাত্রাও ঠিক রাখে। সেইসঙ্গে বাড়ায় হজমক্ষমতাও।

ফার্মেন্টেড খাবার: দুর্বলতা কাটাতে বিশেষজ্ঞরা ফার্মেন্টেড খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন। ফার্মেন্টেড হলো সঠিক উপায়ে ফাঁপানো খাবার। সেইসঙ্গে খেতে হবে প্রো বায়োটিক খাবার। করোনা থেকে সেরে ওঠার পর এ জাতীয় খাবার খাওয়া সবচেয়ে বেশি জরুরি। প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় রাখুন এই সমৃদ্ধ খাবারগুলো। প্রতিদিন দুপুরের খাবারের পর এক বাটি টকদই খেয়ে নেবেন।  

অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যযুক্ত খাবার: শরীরের ভেতরে সৃস্থ প্রদাহ কমাতে কাজ করে এমন খাবার খাওয়া জরুরি। সেজন্য পাতে রাখুন অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যযুক্ত খাবার। শরীরের প্রদাহ কমিয়ে শরীর ঠান্ডা রাখতে কাজ করে এসব খাবার। হলুদ, ডাবের পানি ইত্যাদি নিয়মিত খাওয়ার অভ্যাস করুন।

ফাইবারযুক্ত খাবার: এসময়ে ফাইবারযুক্ত খাবার খাবেন বেশি বেশি। কারণ ফাইবার আমাদের স্নায়ুকে সতেজ করে এবং সেইসঙ্গে বাড়ায় মানসিক কার্যক্ষমতা। বিভিন্ন শাক-সবজি ও শস্য জাতীয় খাবার রাখুন প্রতিদিনের খাবারে। এতে শরীর ভালো থাকবে, দূর হবে দুর্বলতা। আপনি যেকোনো কাজ করার শক্তি ফিরে পাবেন। 

মাল্টি ভিটামিন: আমাদের শরীর ও মন ভালো রাখতে প্রয়োজন উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন মাল্টি ভিটামিন। শরীর ঝরঝরে রাখতে এবং দুর্বলতা দূর করতে ভিটামিনের বিকল্প নেই। উদ্বেগ ও অস্থিরতা কমিয়ে সুস্থভাবে বাঁচতে চাইলে মাল্টি ভিটামিন খাবেন। যদি সাপ্লিমেন্টের দরকার হয় তবে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন।

আমারসংবাদ/এমএস