Amar Sangbad
ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪,

ঢাকা রেঞ্জ পুলিশের ১১০ বছরপূর্তি আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিজস্ব প্রতিবেদক

জুন ২৪, ২০২৪, ১২:৫৫ এএম


ঢাকা রেঞ্জ পুলিশের ১১০ বছরপূর্তি আজ

বর্তমান ডিআইজি সৈয়দ নুরুল ইসলামের উদ্যোগে প্রথমবারের মতো উদ্যাপিত হচ্ছে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ‘সৌরভে-গৌরবে ঢাকা রেঞ্জ, ফিরে দেখা ১১০ বছর’ স্লোগান ধারণ করে প্রতিষ্ঠার ১১০ বছরপূর্তি উদ্যাপন করতে যাচ্ছে ঢাকা রেঞ্জ পুলিশ। ১৯১২ সালের  ১ এপ্রিল ব্রিটিশ ইন্ডিয়ার তৎকালীন বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির বৃহত্তর ঢাকা, ময়মনসিংহ, ফরিদপুর ও বাকেরগঞ্জ (বরিশাল) জেলা নিয়ে ঢাকা রেঞ্জ প্রতিষ্ঠার প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। 

১৯১৪ সালের ১৮ মে’র গেজেট অর্ডারের ভিত্তিতে তৎকালীন বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির বৃহত্তম ময়মনসিংহ জেলার পুলিশ সুপার জন মার্টিন কোটস, ইএসকিউ, আইপিকে ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি (ভারপ্রাপ্ত) হিসেবে পদায়ন করা হয়। ডিআইজি জন মার্টিন কোটস, ইএসকিউ, আইপি ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়, লাল বিল্ডিংয়ের এক অংশে (বর্তমান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অফিস) ১৯১৪ সালের ২৪ জুন ঢাকা রেঞ্জ অফিসের প্রথম পতাকা উত্তোলন করে কার্যক্রম শুরু করেন। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের পর ১৯৭২ সালে সেগুনবাগিচায় (১২ তলা ভবন) ঢাকা রেঞ্জ অফিস স্থানান্তরিত হয়।  

সুদূর অতীত থেকে শুরু করে যেসব কীর্তিমান বাঙালি ঢাকা রেঞ্জের এই ভূখণ্ডে দ্যুতি ছড়িয়েছেন, তাদের অন্যতম হলেন অতীশ দীপঙ্কর, জগদীশ চন্দ্র বসু, ঈশা খাঁ, সুলতান গিয়াসউদ্দীন আজম শাহ, অমর্ত্য সেন, শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকসহ আরও অনেকে। আর এসব দীপ্তিমান ব্যক্তির সম্মিলিত দ্যুতি নিয়ে সবশেষে জ্যোতি ছাড়ালেন বঙ্গেয় ‘ব’ দ্বীপের সর্বকালের শ্রেষ্ঠ উদ্ভাসিত নক্ষত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, যার জন্ম থেকে শীর্ষে আরোহণের সিংহভাগ বিচরণক্ষেত্র ছিল ঢাকা রেঞ্জে। 

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম থেকে শুরু করে সুদীর্ঘকাল ধরে স্বাধীনতা সংগ্রামের ঘামে ভেজা মৃত্তিকা এবং বিচরণক্ষেত্র টুঙ্গিপাড়া থেকে রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বর, তৎকালীন স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রায় সব আন্দোলনক্ষেত্রেই ঐতিহ্যবাহী এই ঢাকা রেঞ্জ অন্তর্ভুক্ত।  

মহান মুক্তিযুদ্ধে ঢাকা রেঞ্জ পুলিশের রয়েছে গৌরবময় ইতিহাস। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ দিবাগত মধ্যরাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণায় সাড়া দিয়ে ঢাকা রেঞ্জের অধীন ঢাকা জেলার তৎকালীন রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে কর্মরত বঙ্গবন্ধুপ্রেমী বাঙালি পুলিশ সদস্যরা প্রথম প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। এ সময় শাহাদাতবরণ করেন ৭৮ বীর বাঙালি পুলিশ সদস্য।  

ঈদ, পূজা, বড়দিন, বুদ্ধপূর্ণিমা, কিংবা সংবিধান ও রাষ্ট্রবিরোধীচক্রের ঢাকা অবরোধের কর্মসূচি যা-ই হোক না কেন, ঢাকা মহানগরীর চারপাশে বিদ্যমান ১৩ জেলাবিশিষ্ট ঢাকা রেঞ্জ যেন সার্বক্ষণিক ভ্যানগার্ডের ভূমিকায় অবতীর্ণ, চীনের সুউচ্চ ও দুর্ভেদ্য প্রাচীর।

বর্তমান রেঞ্জ ডিআইজি সৈয়দ নুরুল ইসলামের উদ্যোগে ঢাকা রেঞ্জ প্রতিষ্ঠার ১১০ বছর পর প্রথমবারের মতো ঢাকা রেঞ্জের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্্যাপিত হতে যাচ্ছে। বর্তমান সরকারের ‘রূপকল্প-২০৪১’ অর্জনে এবং ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’  বিনির্মাণে পেশাগত দক্ষতার মাধ্যমে নিরাপত্তাসেবা তৃণমূল পর্যায়ে পৌঁছে দিতে ঢাকা রেঞ্জের বিভিন্ন ইউনিটে কর্মরত সদস্যরা সর্বদা তৎপর থাকবেন।
 

Link copied!