Amar Sangbad
ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট, ২০২২, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯

বাঙলা কলেজস্থ ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ কমিটি নিয়ে ‘বিতর্ক’

বাঙলা কলেজ প্রতিনিধি:

নভেম্বর ২, ২০২১, ০৫:১৫ পিএম


বাঙলা কলেজস্থ ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ কমিটি নিয়ে ‘বিতর্ক’

সরকারি বাঙলা কলেজে ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ পরিষদের কমিটি নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক, পাল্টাপাল্টি কমিটি, ফেসবুক স্ট্যাটাস। 

মঙ্গলবার (২ নভেম্বর) মো. ইউসুফ শাহরিয়ারকে সভাপতি এবং মো. আবু তালহাকে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন কমিটি ঘোষণা করেন মো. মনির হোসেন। কমিটিতে স্বাক্ষরের জায়গায় মনির হোসেনের পদবী ছিলো আহ্বায়ক। এরপরই শুরু হয় পক্ষে-বিপক্ষে বিতর্ক।  

ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ পরিষদের এক অংশের সভাপতি শিহাব তালুকদার বলেন, 'আমি ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ পরিষদের বর্তমান সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি। আমি ভোলার ছেলে-মেয়েদের নিয়ে একসাথে কাজ করছি। আমি ভোলার ছেলে-মেয়েদের পেছনে লাখ লাখ টাকা খরচ করছি। সেখানে আমাকে না জানিয়ে কমিটির দেওয়ার মনির কে? আমি এই কমিটি মানি না। আমি ওর সাথে আলোচনা করতে চাই, যদি আলোচনায় সমাধান না হয় তাহলে আমি নতুন কমিটি দেবো।'

এই বিষয়ে বর্তমান ঘোষিত কমিটির আহ্বায়ক মো. মনির হোসেন বলেন, 'আমি ওদের সাথে সমঝোতা করার অনেক চেষ্টা করেছি। পাঁচবার বসেছি তবে সমাধান হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে আমি এই কমিটি দিয়েছি।' একক স্বাক্ষরের বিষয়ে মনির বলেন, 'আমি আহ্বায়ক ছিলাম। আর আহ্বায়ক একা স্বাক্ষর দিয়েই কমিটি দিতে পারে। তাছাড়া  কমিটি হলে পক্ষে বিপক্ষে আলোচনা থাকবেই। যাদের মনমতো হবে না তারাই বিতর্ক সৃষ্টি করবে। তবে আমি এখন বাড়ি যাচ্ছি। এসে সমাধানের চেষ্টা করব।'

মনির যোগ করেন, আমি রাজকে সেক্রেটারি বানাতে চেয়েছিলাম কিন্তু রাজ (তরিকুল ইসলাম রাজ) অনিক ভাই (কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক প্রেসিডেন্ট) এর রাজনীতি করায় কলেজের সবাই তাতে নারাজ। রাজ কলেজে আসে না। যারা নিয়মিত কলেজে আসে তাদের নিয়েই তো কমিটি হবে। 

এ বিষয়ে বর্তমান কমিটির ১নং সহ সভাপতি ও অন্য অংশের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম রাজ বলেন, 'আমাকে কমিটিতে ১ নং সহ সভাপতি রাখা হয়েছে অথচ আমি নিজেই জানি না। মনির ভাই কারো সাথে আলোচনা না করে নিজে নিজেই কমিটি করেছে। আমি এই কমিটি মানি না। আমি ইতোমধ্যেই কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছি।' 

রাজ আরও বলেন, 'আমি একটু বাড়িতে আছি। আমি ঢাকা আসতেছি। ঢাকা এসে আমি নতুন করে কমিটি দেবো।' 

এ বিষয়ে বর্তমান কমিটির সভাপতি ইউসুফ শাহরিয়ার বলেন, 'মাত্র একটা ছোট ভাই রাজ কমিটি নিয়ে ঝামেলা করতেছে। তবে তা নিয়ে আমাদের মাথা ব্যথা নাই। যারা ক্যাম্পাসে চলমান শিক্ষার্থী এবং যারা ছাত্রদের কল্যাণে কাজ করে তাদেরই কমিটিতে রাখা হয়েছে। এটা অবশ্যই গ্রহণযোগ্য কমিটি।

এ ব্যাপারে বর্তমান কমিটির ২নং সহ সভাপতি ও কলেজের একাধিক স্বেচ্ছাসেবী ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃত্বে থাকা আতিকুর রহমান বলেন, "আমি কিছুই জানতাম না কমিটির ব্যাপারে। হঠাৎ দেখলাম মনির ভাই পোস্ট দিল। এই কমিটি সমঝোতার মাধ্যমে হয়েছে কিনা তা আমি অবগত নই। ব্যক্তিগতভাবে ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ পরিষদের কমিটির তালিকায় আমার নাম নিয়ে আমার বিন্দুমাত্র মাথাব্যথা নেই। তবে সকলের কাছে আমার বিনীত অনুরোধ 'ভোলা জেলা ছাত্রকল্যাণ পরিষদ' দুইভাবে বিভক্ত করবেন না। প্রয়োজনে সবাই মিলে একাধিকবার বসে সিদ্ধান্ত নিন। সমঝোতায় না আসতে পারলে, বিতর্কিত পাল্টাপাল্টি কমিটির তালিকায় ব্যক্তিগতভাবে আমার নাম ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকার বিশেষ আহ্বান রইল।

আমারসংবাদ/এমএস