Amar Sangbad
ঢাকা মঙ্গলবার, ২৪ মে, ২০২২, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

মিষ্টি-ফুল নিয়ে ‘কাকা তৈমুরের’ বাসায় আইভী

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

জানুয়ারি ১৭, ২০২২, ০১:৪০ পিএম


মিষ্টি-ফুল নিয়ে ‘কাকা তৈমুরের’ বাসায় আইভী

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) নবনির্বাচিত মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, কাকা (তৈমূর আলম খন্দকার) যেটা বলল আমাদের এটা পারিবারিক সম্পর্ক। আমি পুরো নির্বাচনজুড়েই বলেছি রাজনীতির জায়গায় রাজনীতি আর পারিবারিক সম্পর্কের জায়গায় পারিবারিক সম্পর্ক। এ সম্পর্কে কখনও ঘাটতি হবে না। আমিও জানি আমার তরফ থেকে এটা নষ্ট হবে না। কাকাও এটা জানে।

টানা তৃতীয়বারের মতো নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে জয়লাভের পর সেলিনা হায়াৎ আইভী মিষ্টি ও ফুল নিয়ে সোমবার (১৭ জানুয়ারি) বিকেলে নগরীর মাসদাইরে তার প্রতিদ্বন্দ্বী তৈমুর আলম খন্দকারের বাসায় গিয়ে এসব কথা বলেন। এ সময় তৈমুর ও তার পরিবারের সদস্যরা আইভীকে স্বাগত জানান। পরে দুই নেতা পাশাপাশি বসে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন।

আইভী বলেন, আমি ভবিষ্যতেও বিভিন্ন কাজে তার পরামর্শ নেব, কাকা অনেক পরামর্শ দিয়েছেন। আমি যখন পৌরসভায় নির্বাচিত হয়ে আসলাম তখন তিনি আমাকে সাহায্য করেছেন। হীরালাল খাল ও বোয়ালিয়া খালের জন্য তিনি অনেক সাহায্য করেছেন। মুসলিম একাডেমির জায়গার কথা কাকা বলেছেন আমি দিয়েছি। তিনিও আমার একটা স্কুল করার জন্য সহযোগিতা করেছেন। আমরা সবাই নারায়ণগঞ্জের মানুষ।

তিনি বলেন, যে যেই দল করি না কেন নারায়ণগঞ্জবাসীর স্বার্থে দলের ঊর্ধ্বে উঠে কাজ করা আমাদের উচিত এবং আমরা সবাই করবো। যে পরামর্শ কাকা দিয়েছেন সেগুলো বাস্তবায়নে চেষ্টা করবো। শুধু সমালোচনার জন্য সমালোচনা না করে আপনারাও আমাকে সহযোগিতা করবেন এ আশা ব্যক্ত করছি। কাকির সঙ্গে আমার সব সময় কথা হয়। কাকা ব্যস্ত থাকলেও কাকির সঙ্গে সব সময় ফোনে কথা হয়। দাদি আমাকে অসম্ভব মায়া করতেন। আমি আগে কবরস্থানে গেলেই এখান দিয়ে যাওয়ার সময় দাদির সঙ্গে দেখা করে যেতাম।

নাসিক মেয়র বলেন, কাকার ছোট ভাই খোরশেদ আমারই কাউন্সিলর। আমরা সব সময় সহযোগিতার সঙ্গে কাজ করেছি, ভবিষ্যতেও করবো।

মেয়র আইভীর বাবা আলী আহমদ চুনকার প্রসঙ্গ তুলে তৈমূর বলেন, ছাত্রজীবন থেকে তার হাত ধরেই বিভিন্ন সংগঠনের মাধ্যমে আমার রাজনীতিতে উত্থান। চুনকা ভাই আমার মাকে মা বলতেন, আমি তাকে ভাই বলতাম। তার মেয়ের পেছনে আমি আছি। যেকোনো জায়গায় সে থাকুক, তার যেকোনো বিপদ-আপদে অদৃশ্য শক্তির মতো তার মাথায় আমার হাত আছে। আগামী দিন যেন সুন্দর হয়, তার পাশে আমি ছিলাম, ভবিষ্যতেও থাকবো। অন্য কোনো কথাবার্তা কাজে আসবে না।

তিনি আরও বলেন, আমি আগেই বলেছি, এটা অন্তরের সম্পর্ক। আমার শ্রদ্ধাবোধ চুনকা ভাইয়ের জন্য আজীবন থাকবে।

একে অপরকে মিষ্টি খাইয়ে দেন তৈমূর ও আইভী। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন তৈমূরের স্ত্রী ফারজানা খন্দকার, কন্যা মার-ই-য়াম খন্দকার, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম।

আমারসংবাদ/জেআই