নাঈম হত্যার দায় কার

দুর্ঘটনার নামে হত্যাকাণ্ড বন্ধ করতে হবে

প্রতিদিন বাংলাদেশের সড়কে ঝরছে তরতাজা প্রাণ। দেশের সড়ক-মহাসড়কে এমন কিছু দুর্ঘটনা ঘটে, যেগুলোকে নিছক দুর্ঘটনা না বলে হত্যাকাণ্ড বলা যায়। আমাদের দেশে যানবাহন মালিকরা এমন অনেক চালকের হাতে যানবাহন তুলে দেন, যাদের প্রয়োজনীয় শিক্ষাগত যোগ্যতা নেই।অনেকেরই আবার বৈধ লাইসেন্স নেই।

গত বুধবার গুলিস্তানে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ময়লা টানার গাড়িচাপায় নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈম হাসানের মৃত্যুর পর জানা গেলো— গাড়িটি যিনি চালাচ্ছিলেন, তিনি সিটি কর্পোরেশনের নিয়োগপ্রাপ্ত বৈধ চালক নন, একজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী। তার যানবাহন চালানোর বৈধ লাইসেন্সও নেই। এ ঘটনাকে কী দুর্ঘটনা বলা যায়? এ মৃত্যুর দায় কার? 

প্রকাশিত খবরে দেখা যাচ্ছে, নিহত নাঈম হাসানের বাবা একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। একটি পরিবারের স্বপ্ন পিষে দিল ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ময়লা টানার গাড়ি! সিটি কর্পোরেশনের ময়লার গাড়িচাপায় গত এক বছরে আরো অনেকের মৃত্যু হয়েছে। 

নিহত নাঈম হাসানের বাড়িতে গিয়েছিলেন দক্ষিণ সিটি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। স্বজনদের সান্ত্বনা দেয়ার পাশাপাশি দায়ী চালকের বিচারের আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। কিন্তু নিয়মিত চালকের পরিবর্তে ক্লিনার কেন গাড়ি চালাচ্ছিলেন— এ প্রশ্নের জবাব কে দেবে? সিটি কর্পোরেশনের গাড়িচাপায় গত এক বছরে যে নিহতের ঘটনা ঘটেছে, সেগুলোর বিচার কী হয়েছে? সেসব পরিবারের সান্ত্বনা কী হবে?
  
জানা যায়, ডিএসসিসির মোট ৫১৩টি যানবাহনের জন্য নিবন্ধিত চালক মাত্র ১৪৭ জন। ২০০টি গাড়ি চলে মাস্টার রোলে নিয়োগপ্রাপ্ত চালক দিয়ে। তাদের বেশির ভাগই ক্লিনার। যাদের বেশিরভাগের নেই তেমন প্রশিক্ষণ ও লাইসেন্স। বাকি ১৬৬টি গাড়ি কীভাবে চলে— তার সঠিক তথ্য নেই ডিএসসিসির কাছে। প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, নিবন্ধিত চালক ছাড়া ডিএসসিসির অনেক গাড়ি অদক্ষ ও অনিবন্ধিত চালক দিয়ে চালানো হয় বলেই সংস্থার গাড়িগুলো মাঝেমধ্যেই দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে। 

প্রশ্ন হচ্ছে, সিটি কর্পোরেশনের মতো একটি প্রতিষ্ঠানের এ অবস্থা কেন?  নাঈম হত্যার প্রতিবাদে রাজধানীর বিভিন্ন কলেজের শিক্ষার্থী বুধবার ও বৃহস্পতিবার সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। কিন্তু ওই পরিবারটির কী হবে? ওই চালকের কী আদৌ শাস্তি হবে? 

নাকি তদন্ত কমিটির সুপারিশের পরও সিটি কর্পোরেশনের যানবাহন চলবে অদক্ষ-অনিবন্ধিত চালক দ্বারা? শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলাকালেই বৃহস্পতিবার দুপুরেই রাজধানীর পান্থপথে সিটি কর্পোরেশনের দ্রুতগতির ময়লার গাড়িচাপায় এক তরুণ নিহত হয়েছেন। আমরা চাই, দুর্ঘটনার নামে এসব হত্যাকাণ্ড বন্ধ হোক।