নান্দাইলে ঘর নির্মাণ কাজ পরির্দশন করলেন এডিসি নাসরিন সুলতানা

নান্দাইলে মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে ভূমিহীনদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার সেমিপাকা ঘর নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করলেন ময়মনসিংহের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) নাসরিন সুলতানা। 

শুক্রবার (২১ মে) সকাল থেকে চরবেতাগৈর ইউনিয়ন ও শেরপুর ইউনিয়নে দূর্যোগ ও ত্রাণমন্ত্রণালয় অধিদপ্তরের আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় সদ্য সমাপ্ত ২৫টি ঘর সহ নির্মাণ কাজ চলমান বাকী ঘরসমূহ পরির্দশন করেছেন। 

এ সময় নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.এরশাদ উদ্দিন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহফুজুল হক, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আব্দুল আলীম, চরবেতাগৈর ইউপি চেয়ারম্যান মো. ফরিদ উদ্দিন, শেরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন ভুইয়া মিলটন ও ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তাদ্বয় সাথে ছিলেন। 

এছাড়া নান্দাইলের সিনিয়র সাংবাদিক প্রভাষক অরবিন্দ পাল অখিল, এনামুল হক বাবুল, শামছ-ই-তাবরীজ রায়হান, প্রভাষক আমিনুল হক বুলবুল সহ উপকারভোগী পরিবারের  সদস্য ও স্থানীয় জনগণ উপস্থিত ছিলেন। 

পরিদর্শনকালে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ঘর প্রাপ্তদের কোন সমস্যা আছে কি জানতে চাইলে, তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে দ্রুত পানীয় জলের সমস্যা মিটানোর কথা বলেন। এতে এডিসি ইউএনও’কে বিদ্যুৎ সরবরাহ ও পানীয় জলের স্থায়ী সমাধানের নির্দেশ দেন। 

এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. এরশাদ উদ্দিন জানান, মূল প্রকল্পে বিদ্যুৎ ও পানীয় জলের ব্যবস্থা নাই। তবে স্থানীয়ভাবে বিদ্যুৎ ও পানীয় জলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগ থেকে নলকূপ বসানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। 

এছাড়া ইউপি চেয়ারম্যানদ্বয় এডিসিকে জানান, প্রকৃত ভূমিহীন ব্যাক্তিগণই ঘরের বরাদ্দ পেয়েছেন, উপকারভোগীর তালিকা ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে দেওয়া হয়েছে এবং নির্মাণকাজ চলাকালীন সময়ে তারা প্রশাসনকে সার্বিকভাবে সহযোগীতা করে যাচ্ছেন ও সম্পৃক্ত ছিলেন। 

উল্লেখ্য, দূর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে ১৫টি ঘর, গুচ্ছগ্রাম প্রকল্পের আওয়তায় ৪৭টি ঘর  নির্মাণ সম্পন্ন করা হয়েছে। নতুন ১০টি ঘর (চরবেতাগৈর ইউনিয়ন) এর ৯৫% কাজ শেষ হয়েছে। বাকী কাজ শেষ হলে উপকারভোগীদের মাঝে ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হবে। উল্লেখ্য নান্দাইল উপজেলা পরিবেশ বান্ধব ইটের মাধ্যমে এই ঘর সমূহ নির্মাণ করা হয়েছে। যা অন্য কোন উপজেলায় হয় নাই। 

আমারসংবাদ/কেএস