মাইকিং করে ইলিশ বিক্রি, অতঃপর...

জাটকা সংরক্ষণ ও মা ইলিশ রক্ষায় ৪ অক্টোবর থেকে ২২ দিন মেঘনা নদীতে ইলিশসহ সকল ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ করেছে সরকার।

এই ঘোষণার পর পটুয়াখালীতে মাইকিং করে গভীর রাত পর্যন্ত ইলিশ বিক্রি করেছে বিক্রেতারা।

রোববার (৩ অক্টোবর)  রাত ৯টা থেকে ১২টা পর্যন্ত মৎস্য বন্দর আলীপুর, মহিপুর ও কলাপাড়াসহ উপজেলার অধিকাংশ মাছ বাজারে চলে এ ইলিশ বিক্রি।

রোববার মধ্যরাত থেকে নদী ও সাগরে ইলিশ ধরা ও বিক্রির ওপর ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু হওয়ায় গভীর সমুদ্র থেকে ইলিশ ভর্তি ট্রলার এসে পৌঁছায় মৎস্য বন্দরগুলোতে। নিষেধাজ্ঞার এমন খবরে বাজারগুলোতে ক্রেতাদের ছিলো উপচে পড়া ভিড়। তবে ক্রেতাদের দাবি প্রতিবছরের ন্যায় এবছর ইলিশের দাম ছিলো তুলনামূলক বেশি।

মৎস্য ব্যবসায়ীরা জানান, মা ইলিশ রক্ষায় প্রজনন মৌসুমে ২২ দিন নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সরকার। আজ রোবরার মধ্যরাতে থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত সাগরে ইলিশ ধরবে না জেলেরা। এমনকি আহরণ, পরিবহন ও মজুদকরণের ওপরও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। ফলে শেষ দিনের মতো বাজারে ইলিশ বেচাকেনায় ধুম পড়েছে।

৪৫০-৫০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ কেজি প্রতি বিক্রি হয়েছে ৪০০ টাকা কেজি দরে। এছাড়া ৭৫০-৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা, ৯০০-৯৫০ গ্রাম ওজনের ইলিশ ৭০০-৮০০ টাকা, এক কেজি ওজনের ইলিশ এক হাজার ১ হাজার থেকে ১২শ টাকা দরে বিক্রি করতে দেখা যায়।

আমারসংবাদ/এআই