জলবায়ু পরিবর্তনে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণের দাবিতে সভা

জীবাশ্ম জ্বালানীখাতে বিনিয়োগ বন্ধ ও জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ক্ষতিপূরণের দাবিতে বরিশাল নগরীতে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার নগরীর ২৪ নম্বর ওয়ার্ড সংলগ্ন কীর্তনখোলা নদীর তীরে প্রান্তজন, উপক‚লীয় জীবনযাত্রা ও পরিবেশ কর্মজোট (ক্লিন) এবং এশিয়ান পিপলস্ মুভমেন্ট অন ডেট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (এপিএমডিডি)’র যৌথ উদ্যোগে কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়।

ক্লিন-এর প্রধান নির্বাহী হাসান মেহেদী বলেন, বাতাসে কার্বন নির্গমনের ৭২ শতাংশই আসে জ্বালানি খাত থেকে। তাই কার্বন নির্গমন কমানোর জন্য কয়লা, গ্যাস ও জ্বালানি তেলখাতে উন্নত দেশগুলোর বিনিয়োগ বন্ধ করতে হবে।

ইতোমধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য সহ ৪০টি দেশ জীবাশ্ম জ্বালানিতে বিনিয়োগ করবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

কিন্ত জার্মানি, জাপান, চীন, অস্ট্রিয়া, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, বেলজিয়ামের মতো বড় বিনিয়োগকারী দেশগুলো জীবাশ্ম জ্বালানিতে বিনিয়োগ বন্ধ করার কোনো প্রতিশ্রুতি দেয়নি। এসব দেশের অবিলম্বে জীবাশ্ম জ্বালানিতে বিনিয়োগ বন্ধ করতে হবে।

এপিএমডিডি’র সমন্বয়কারী লিডি ন্যাকপিল বলেন, ২০টি দেশ ও কয়েকটি ব্যাংক ২০২২ সাল নাগাদ জীবাশ্ম জ্বালানিতে বিনিয়োগ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্ত তারা ২০৩০ সালের মধ্যে যদি জীবাশ্ম জ্বালানি ভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ না করে তাহলে পৃথিবীর উষ্ণায়নের হার ১.৫ ডিগ্রির মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখা যাবে না।

তাই অবিলম্বে কয়লাসহ জীবাশ্ম জ্বালানিতে বিনিয়োগ বন্ধ করা, প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী জলবায়ু-বিপদাপন্নদের জন্য পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করা, নবায়নযোগ্য জ্বালানি নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশকে সহায়তা করা, ২০৫০ সালের মধ্যে কার্বন নির্গমণ শুন্যে নামিয়ে আনার জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা এবং টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হবে।

কর্মসূচিতে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন-ননী গোপাল দাস, নুরে আলম মাঝি, আবুল কালাম, মোঃ মোস্তফা প্রমুখ।

আমারসংবদা/এআই