ফরিদপুরে জাল ভোট দিতে গিয়ে গ্রেপ্তার ২, সংঘর্ষে আহত ১০

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় ইউপি নির্বাচনে জাল ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন। এদিকে জাল ভোট দেওয়ার সময় দুই যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

রোববার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে উপজেলার ঘারুয়া ইউনিয়নের রাজেশ্বরদী এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী জানায়, ঘারুয়া ইউনিয়নের রাজেশ্বরদী কেন্দ্রে জাল ভোট দেওয়া হচ্ছে এমন খবর ছাড়িয়ে পড়লে আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: মুনসুর মুন্সী ও আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী নিরু খলিফার (চশমা প্রতীক) সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এতে দুই পক্ষের কমপক্ষে ১০জন আহত হয়।

মারাত্মক আহত রবি শেখ (৩৫), সরোয়ার শেখ (৩৯) ও উচমান হাওলাদারকে (৪১) ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যান্যদের প্রাথমিকভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়। 

এ ঘটনায় প্রায় এক ঘণ্টা ধরে রাজেশ্বরদী ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ বন্ধ থাকে। তাৎক্ষণিকভাবে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। 

ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) জামাল পাশা জানান, ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরবর্তীতে ওই কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু করা হয়। আপাতত পরিবেশ শান্ত রয়েছে।

এদিকে একই উপজেলায় চান্দ্রা ইউনিয়নে জাল ভোট দিতে গিয়ে দুই যুবক আটক হয়েছে। রোববার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে চান্দ্রা ইউনিয়নের দিঘলকান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে জাল ভোট দেওয়ার সময় তাদের আটক করা হয়।

আটকৃত দুই যুবক হলেন- উপজেলার দিঘলকান্দা গ্রামের লাভলু মোল্যার ছেলে হাফিজুল মোল্যা (২৫) ও একই গ্রামের শান্তি মোল্লার ছেলে মো: ওহিদুল মোল্যা (৩১)।

এ ব্যাপারে দিঘলকান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার শরীফ মো. ইসা জানান, ওই দুই যুবক ভোট কেন্দ্রে জাল ভোট দিতে আসলে বুথ থেকে তাদের আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।

এ বিষয়ে ফরিদপুরের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার সুমন কর বলেন, জাল ভোট দেওয়ার সময় আটককৃত দুই যুবক পুলিশের হেফাজতে আছে। তাদের ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

আমারসংবাদ/এমএস