Amar Sangbad
ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২৪,

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ভাঙচুর, বিএনপি কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুর

বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৩, ০৮:১৪ পিএম


বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ভাঙচুর, বিএনপি কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুর

পটুয়াখালীর বাউফল পৌরসভার মুজিব চত্বরের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি ভেঙে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনার প্রতিবাদে রোববার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে উপজেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেছে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের কর্মীরা।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রোববার বিকেল চারটার দিকে এক পথচারী মুজিব চত্বরে হাটতে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ভাঙা দেখতে পেয়ে বাউফল পৌরসভার মেয়রকে অবহিত করেন।

এদিকে বিষয়টি জানাজানি হলে বিকেল পাঁচটার দিকে উপজেলা যুবলীগের ব্যানারে একটি  র‌্যালী থেকে উপজেলা সদরের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সড়কে উপজেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে হামলা চালানো হয় । ওই সময় ওই কার্যালয়ের জানালার থাই গ্লাস, চেয়ার ও অন্যান্য আসবাব ভাঙচুর করা হয়।

বাউফল পৌরসভা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ বাউফল পৌরসভার মেয়র ও পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হকের উদ্যোগে বাউফল আদর্শ বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় সড়কের পাশে  সরকারি পুকুর পাড়ে মুজিব চত্বরের পাশে ওই প্রতিকৃতিটি স্থাপন করা হয়।

বিকেল পাঁচটার দিকে সরেজমিনে দেখা গেছে, পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত আছেন। মুজিব চত্বরের নাম ফলকের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতির মুখের অংশ ভাঙা। ধারণা করা হচ্ছে রোবববার ভোর রাতে কেউ হাতুড়ি কিংবা ইট দিয়ে আঘাত করে ভেঙে ফেলেছে।

এ ব্যাপারে বাউফল পৌরসভার মেয়র জিয়াউল হক বলেন,খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি এবং পুলিশকে জানিয়েছি।

তিনি তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, এর চেয়ে জঘন্য কাজ আর কি হতে পারে? তিনি এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুর্বৃত্তদের খুঁজে বের করে তাঁদের  বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশ প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান।

মেয়র জিয়াউল হক জুয়েল বিএনপি কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুরের বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানান।

উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মো. তসলিম তালুকদার বলেন,যুবলীগের ব্যানারে কোনো কারণ ছাড়াই বিএনপি কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুর করা হয়েছে।

জেলার জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (বাউফল সার্কেল) শাহেদ আহম্মেদ বলেন, সরেজমিন পরিদর্শন করেছি। প্রথম ঘটনায় নিয়মিত মামলা হবে এবং ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের চিহিৃত করার সব ধরনের চেষ্টা অব্যাহত আছে। আর বিএনপি কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুরের বিষয়ে আমার জানা নাই।

বিএনপি কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুরের বিষয়ে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আল মামুন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে এ বিষয়েও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কেএস 

Link copied!