Amar Sangbad
ঢাকা শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯

অবৈধ ফোন কিনলে ক্রেতার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা: ডিবি

নিজস্ব প্রতিবেদক

জুলাই ২৫, ২০২২, ০৩:২৮ পিএম


অবৈধ ফোন কিনলে ক্রেতার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা: ডিবি

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের প্রধান ও অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশিদ বলেছেন, রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্ক থেকে চুরি হওয়া নামিদামি ব্রান্ডের মোবাইল ফোন বিক্রি করা হচ্ছিল বসুন্ধরা শপিংমলে। তবে, চুরি যাওয়া ফোনগুলো সবই ছিলো লাগেজ পার্টির মাধ্যমে আনা অবৈধ ফোন। 

তিনি বলেন, কোনো শপিংমলে এ ধরনের অবৈধ ফোন বিক্রি হলে বিক্রেতাদের আইনের আওয়াতায় আনা হবে। পাশাপাশি কেউ অবৈধ ফোন কিনলে ওই ক্রেতাকেও আইনের আওতায় আনা হবে। 

সোমবার (২৫ জুলাই) যমুনা ফিউচার পার্ক থেকে চুরি হওয়া ফোনগুলো উদ্ধারের পর এসব কথা বলেন তিনি । 

ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, গত ৫ই জুলাই সকাল সাড়ে ১০টায় একটি চোর চক্রের সক্রিয় সদস্যরা যমুনা ফিউচার পার্কের লেভেল-৪, ব্লক-সি এর শেফা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল শোরুম থেকে তালা ভেঙে অ্যাপল, স্যামসাং ও সনি ব্র্যান্ডের ৫৫টি দামি মোবাইল ব্যাগে করে নিয়ে যায়। বিভিন্ন সিসিটিভি ফুটেজ ও গোয়েন্দা তথ্য বিশ্লেষণ করে ডিবি পুলিশ নিশ্চিত হয় যে, চোর চক্রের তিন সদস্যদের মধ্যে দুইজন একটি/দুইটি করে মোবাইল বসুন্ধরা মার্কেটের বিভিন্ন দোকানে এবং দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে থেকে আগত ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করেছে।

পরে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল রোববার রাজধানীর বসুন্ধরা, ভাটারা এবং কুমিল্লায় ধারাবাহিক অভিযান চালিয়ে তাদের চোর চক্রের ৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা- অনিক হাসান, নাহিদ হোসেন ও নাদিম মোহাম্মদ সাগর। তাদের হেফাজত থেকে চোরাইকৃত বিভিন্ন ব্রান্ডের ৪৫টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে। চোর চক্রের অনেকে টিকটক ভিডিও বানিয়ে চুরাই মোবাইল বিক্রির প্রচারণাও চালিয়ে আসছিল।

ডিবি প্রধান বলেন, লাগেজ পার্টির মাধ্যমে কর ফাঁকি দেয়া অহরহ মোবাইল বিভিন্ন শপিংমলে বিক্রি হচ্ছে। যা আইনগত অপরাধ।

যদি কোনো বিক্রেতা এ ধরনের কাজে যুক্ত থাকে, তাহলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এই বিষয়ে সংশ্লিষ্ট শপিংমল কর্তৃপক্ষকেও সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানান হারুন অর রশিদ।

এবি

Link copied!