Amar Sangbad
ঢাকা মঙ্গলবার, ১৭ মে, ২০২২, ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

আন্তর্জাতিক নার্স দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

মে ১৩, ২০২২, ০২:০৫ এএম


আন্তর্জাতিক নার্স দিবস পালিত

মানবসেবায় অনন্য দায়িত্বপালনকারী নার্সদের স্বীকৃতি ও সম্মান প্রদর্শনের দিন হিসেবে বিশ্বব্যাপী গতকাল বৃহস্পতিবার যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক নার্স দিবস। আধুনিক নার্সিংয়ের প্রতিষ্ঠাতা লেডি ইউথ দ্য ল্যাম্প খ্যাত এই মহীয়সী নারীর ২০২তম জন্মবার্ষিকী ছিল গতকাল। 

আন্তর্জাতিক নার্সিং কাউন্সিল কর্তৃক নির্ধারিত এ বছরের নার্স দিবসের প্রতিপাদ্য ‘স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনায় শক্তিশালী নার্স নেতৃত্বের বিকল্প নেই, বিশ্ব স্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে নার্সিং খাতে বিনিয়োগ বাড়ান ও নার্সদের অধিকার সংরক্ষণ করুন’। নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের উদ্যোগে দিনব্যাপী নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন করা হয়।

বর্ণাঢ্য র্যালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ফ্লোরেন্স নাইটিংগেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচি শুরু করা হয়। আন্তর্জাতিক নার্স দিবস-২০২২ উপলক্ষে এদিন সকাল ১১টায় অধিদপ্তরের মিলনায়তনে এক আলোচনা সভা ও সেমিনারের আয়োজন করা হয়। 

আলোচনা সভা ও সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লোকমান হোসেন মিয়া, সিনিয়র সচিব, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নীতিশ চন্দ্র সরকার, অতিরিক্ত সচিব, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডা. আহমেদুল কবীর, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. এ কে এম আমিরুল মোরশেদ, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. মো. আবু ইউসুফ ফকির, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) মো. রেজাউল করিম (অতিরিক্ত সচিব), বাংলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউন্সিলের রেজিস্ট্রার রাশিদা আক্তার, ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের চেয়ারম্যান প্রীতি চক্রবর্তী, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি ডা. বর্ধন জং রানা, কানাডিয়ান হাইকমিশনের উন্নয়নবিষয়ক উপদেষ্টা ফারজানা সুলতানা প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সিদ্দিকা আক্তার (অতিরিক্ত সচিব)।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে লোকমান হোসেন মিয়া বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছানো। তারই সুযোগ্যকন্যা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় আপামর জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতকরণে ২০০৯ থেকে ২০২২ সালের মধ্যে সারা দেশের হাসপাতালসমূহে ৩৩ হাজার ৭৪৯ জন নার্স নিয়োগ দিয়েছে, যা স্বাস্থ্য খাতকে অনেক ধাপ এগিয়ে নিয়েছে এবং এর ফলে স্বাস্থ্যসেবার মান অনেক গুণে বৃদ্ধি পেয়েছে’। তিনি সব নার্সকে ফ্লোরেন্স নাইটিংগেলের আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে সেবা প্রদানের আহ্বান জানান।

আলোচনা অনুষ্ঠান ও সেমিনারের বিশেষ অতিথিরা তাদের বক্তব্যে স্বাস্থ্য খাতে নার্সদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার কথা তুলে ধরেন। উন্নত বিশ্বে দক্ষ নার্সের ব্যাপক চাহিদা এবং বাংলাদেশ থেকে বিদেশে দক্ষ নার্স পাঠানোর সুযোগের বিষয়গুলো বক্তাদের আলোচনায় উঠে আসে। সভাপতির বক্তব্যে সিদ্দিকা আক্তার বলেন, ‘বাংলাদেশে নার্সিং পেশার উন্নয়ন রচিত হয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কর্মময় সময়ে, যেখানে তিনি নার্সিং পেশাকে একটি অনন্য উচ্চতায় উন্নীত করার স্বপ্ন লালন করতেন। 

এরই ধারাবাহিকতায় নার্স বান্ধব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নার্সদের পদমর্যাদা বৃদ্ধি করে সবার মাঝে নার্সিং পেশায় আসার আগ্রহ বাড়িয়ে দিয়েছেন’। জনগণের জন্য উন্নত নার্সিংসেবা নিশ্চিতকরণে সরকারের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তর নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে এবং সরকারের একান্ত ইচ্ছায় নার্সিং শিক্ষা ও সেবা খাতে ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে বলে তিনি জানান।

সেমিনারে নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক নার্স দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয়ের ওপর একটি প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করা হয়। অনুষ্ঠানে কোভিড রোগীর সেবা প্রদানকারী দুজন নার্স তাদের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন। 

উল্লেখ্য, বৈশ্বিক কোভিড-১৯ মহামারিতে নার্সরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফ্রন্টলাইনার হিসেবে মানবতার সেবা দিয়েছেন এবং বর্তমানেও দিয়ে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে দেশের ৩৫ জন নার্স কোভিড রোগীর সেবা দিতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন। দেশব্যাপী কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম সফলভাবে সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে নার্সরা অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন। স্বাস্থ্য খাতে সরকারের সাফল্যে অন্যতম অবদান রাখছেন নার্সরা।