community-bank-bangladesh
Amar Sangbad
ঢাকা সোমবার, ১৭ জুন, ২০২৪,

‘ক্রীড়ার মানোন্নয়নে আন্তরিকতার সাথে কাজ করছে সরকার’

নিজস্ব প্রতিনিধি:

নিজস্ব প্রতিনিধি:

মে ২৫, ২০২৪, ১০:৪৫ এএম


‘ক্রীড়ার মানোন্নয়নে আন্তরিকতার সাথে কাজ করছে সরকার’

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ ক্রীড়া পরিদপ্তরের বার্ষিক ক্রীড়া কর্মসূচির আওতায় ক্রীড়া পরিদপ্তর কর্তৃক আয়োজিত ২ দিন ব্যাপী  ‘সরকারি শারীরিক শিক্ষা আন্ত: কলেজ ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ২০২৪’ এর পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান হয়েছে। 

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে ক্রীড়া পরিদপ্তরের পরিচালক আ.ন.ম তরিকুল ইসলাম বলেছেন, ক্রীড়ার মানোন্নয়নে আন্তরিকতার সাথে কাজ করছে সরকার।

বৃহস্পতিবার  (২৩ মে) বিকাল ৫ টায় সরকারি শারীরিক শিক্ষা কলেজ, রাজশাহী এর প্রাঙ্গণে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের ক্রীড়া পরিদপ্তরের পরিচালক (যুগ্মসচিব) আ.ন.ম তরিকুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে অংশগ্রহণকারী ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে মূল্যবান বক্তব্যে এ কথা বলেন। অত:পর প্রতিযোগিতায়  বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

এ অনুষ্ঠান সভাপতিত্ব করেন জনাব মো : মাহবুবর রহমান, উপাধ্যক্ষ (চ:দা:) সরকারি শারীরিক শিক্ষা কলেজ, রাজশাহী প্রধান অতিথি জনাব আ.ন.ম তরিকুল ইসলাম।

এ অনুষ্ঠানে ক্রীড়া পরিদপ্তরের পরিচালক (যুগ্মসচিব) আ.ন.ম তরিকুল ইসলাম বলেন, বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শিক্ষার অবিচ্ছেদ্য অংশ, যা ছাত্র ছাত্রীদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে সহায়ক ভূমিকাসহ জীবন গঠনে ও প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব সৃষ্টিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। জয় পরাজয় খেলায় মুখ্য উদ্দেশ্য নয়, জয় পরাজয়ের পথ ধরে প্রতিযোগিতার সৃষ্টি হয়, আর প্রতিযোগিতার মাধ্যমে খেলার মান উন্নয়ন হয়, একে অপরকে জানার সুযোগ সৃষ্টি হয়। সুস্থ দেহে সুস্থ মন মানসিকতা তৈরির লক্ষ্যে প্রতি বছর ক্রীড়া পরিদপ্তর কর্তৃক এই সরকারি শারীরিক শিক্ষা আন্ত: কলেজের ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় ।

তিনি বলেন, খেলাধুলা শুধু লেখাপড়ার অন্তর্ভুক্ত নয়, এটি লেখাপড়ার প্রাণশক্তি জোগায়। খেলাধুলা না করলে সাধারণ শিক্ষায় উৎসাহ-উদ্দীপনা পাওয়া যায় না। মনের একঘেয়ামী জড়তা দূর করার জন্য খেলাধুলার কোনো বিকল্প নাই। খেলাধুলা ছাড়া লেখাপড়া অসম্পূর্ণ থেকে যায়। 

“শিক্ষা নিয়ে গড়বো দেশ,
শেখ হাসিনার বাংলাদেশ।
সুস্থ দেহ সুন্দর মন,
মানসম্মত শিক্ষা অর্জন।”

এই স্লোগান স্মরণ করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, দেহ ও মন এই ২ এর সমন্বয়ে গঠিত হয় জীবন। মনের উন্নতির জন্য যেমন জ্ঞানচর্চার প্রয়োজন, তেমনি দেহের উন্নতির জন্য প্রয়োজন দেহ সঞ্চালনা করা ও খেলাধুলা শরীর সঞ্চালনের অন্যতম উৎস বা শক্তি । 

তরুণ সমাজকে মাদক-সন্ত্রাস ও   অসামাজিক কার্যকলাপ থেকে দূরে রাখতে, তরুণ প্রজন্মকে উপযুক্ত নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে, প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব সৃষ্টি করতে, জীবনকে  সুন্দর, পরিশীলিত করতে, জীবনে শৃঙ্খলা অর্জনের জন্য, অধ্যবসায়ী হওয়ার জন্য, নিয়মানুবর্তিতা ও চরিত্র গঠনের জন্য, মানসিক ও শারীরিক সুস্হতার জন্য, দীর্ঘ জীবন লাভের জন্য এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশের পরিচিতি ও সম্মান বাড়ানোর ক্ষেত্রে খেলাধুলার/ক্রীড়ার ভূমিকা অতুলনীয়।

তরিকুল ইসলাম বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সেই  স্বপ্নের সোনার বাংলা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের কারিগর হিসেবে গড়ে তুলতে তরুণ প্রজন্মকে  লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার মাধ্যমে উপযুক্ত নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার বিকল্প কিছু নাই। তাছাড়া  ৪র্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেন্জ মোকাবিলায় নিজেকে যোগ্য ও দক্ষ হিসেবে গড়তে না পারলে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা খুব কঠিন হবে।

তিনি বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের অংশ হিসেবে  সরকার উন্নত, সমৃদ্ধ ও দক্ষ  মানব সম্পদ তৈরির লক্ষ্যে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্রীড়া চর্চার বিষয়টি আবশ্যিক করাসহ সকল ধরনের চেষ্টা করছে, এখন শুধু দরকার আমাদের  নিজেদের ইচ্ছা শক্তির। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত  স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের অংশ হিসেবে আমাদের  প্রত্যেকের যার যা কাজ ও দায়িত্ব সেগুলো স্মার্টলি এবং স্মার্ট ওয়েতে করার নির্দেশনা প্রদান করেন উপস্থিত অধ্যক্ষবৃন্দ ও শিক্ষকবৃন্দকে এবং আরও আন্তরিকতার সাথে তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান। 

উল্লেখ্য, দেশের ৬ টি বিভাগীয় ( ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল ও ময়মনসিংহ)  সরকারি শারীরিক শিক্ষা কলেজের প্রায় ৩৫০ জন ছাত্র ছাত্রী ও শিক্ষকবৃন্দ উক্ত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন।

বিআরইউ

Link copied!