Amar Sangbad
ঢাকা বুধবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২৪,

কমলনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

বহিরাগতদের দিয়ে চলছে জরুরি বিভাগের অস্ত্রোপচার

কমলনগর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি

কমলনগর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি

ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪, ০৬:২৬ পিএম


বহিরাগতদের দিয়ে চলছে জরুরি বিভাগের অস্ত্রোপচার

লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চলছে হরহামেশে কর্তব্যরত ডিউটি ডাক্তারদের দিয়ে বহিরাগতদের দিয়ে রোগীদের কাটা-ছেড়া সেলাই, ড্রেসিং, ইনজেকশন পুশসহ জরুরি নানাবিধ চিকিৎসা। এতে ঝুঁকি এবং আতঙ্কে থাকেন সেবাগ্রহী রোগীরা। যে কোন ধরনের বড় দুর্ঘটনার আশঙ্কায় থাকেন স্বজনরা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জরুরি বিভাগে একটি শিশুর পায়ে সেলাইয়ের কাজ করছেন তারেক নামের বহিরাগত এক ব্যক্তি। বাচ্চাটির পায়ে ২টি সেলাইসহ যাবতীয় কাজ করছেন তিনি।

সেলাইয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে তারেক আমার সংবাদকে জানান, ম্যাডাম বলেছে ছোটখাটো কাটা-ছেড়া সেলাইয়ের কাজ করতে। দীর্ঘদিন এসব কাজ করছেন বলে জানান তিনি।

সেলাই শেষ হলে, কথা হয় তারেকের সঙ্গে। তিনি জানান, তিনি হাসপাতালে কেউ নন, তিনি ফার্মাসিস্ট কোর্স করেছেন। তার সার্জারির বিষয়ে অভিজ্ঞতার কোন অ্যাকাডেমিক স্বীকৃতি আছে কী না? জানতে চাইলে সে জানান, তার সার্জারি বিষয়ে অ্যাকাডেমিক কোন সার্টিফিকেট নেয়। ডিউটিরত মেডিকেল ডাক্তারের নির্দেশে হসপিটালে সেলাইসহ আনুষঙ্গিক কাজ করেন।

কর্তব্যরত ডিউটি ডাক্তার ডা. ফাতেমাতুজ জহুরা জানান, তিনি তারেককে শিশুটির পায়ে সেলাই করতে অনুমতি দেন। এছাড়াও ডিউটি ডা. ফাতেমাতুজ জহুরা রোগীদের বাহিরে দাঁড় করিয়ে স্বামী সন্তান নিয়েই ব্যস্ত থাকেন ডিউটি রুমে। তারেক কেন সার্জারির কাজ করছেন বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান।

সূত্রে জানা যায়, এভাবেই চলছে ৫০ শয্যা হাসপাতালে বহিরাগতদের দিয়ে হরহামেশাই বিভিন্ন কাটা-ছেড়া রোগিদের ড্রেসিং, সেলাই এবং ইনজেকশন পুশের কাজ। হাসপাতালের প্রতিটি স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সাথে ডিউটিরত চেম্বারে একজন করে বহিরাগত লোক দেখা যায়। এরা হাসপাতাল কেন্দ্রিক ডাক্তারদেরকে দিয়ে রোগিদের রোগ নির্ণয়ে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা লেখান, এবং সেগুলো চুক্তিবদ্ধ বেসরকারি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কমিশন বাণিজ্য করেন। প্রতিনিয়ত ডায়াগনস্টিক সেন্টারে বাণিজ্যভিত্তিক চুক্তিবদ্ধ বহিরাগতদের হাসপাতালের ভিতরে এবং বাহিরে দেখা যায়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মীর মো. আমিনুল ইসলাম মঞ্জুর জানান, বহিরাগতদের হাসপাতালে প্রবেশ নিষেধ। তাছাড়াও জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত ডাক্তার ছাড়া কেউ কাটা-ছেড়া সেলাই, ইনজেকশন পুশ করতে পারবে না।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু তাহের জানান, জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত ডাক্তার ও চেকমো ছাড়া কাটা-ছেড়া সেলাই, ইনজেকশন পুশ, ড্রেসিং অন্য কেউ করতে পারবে না। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ইএইচ

Link copied!