community-bank-bangladesh
Amar Sangbad
ঢাকা সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪,

অপুর জন্যই শাকিবের বিপদ!

মো. মাসুম বিল্লাহ

মার্চ ২২, ২০২৩, ০৩:৩৫ পিএম


অপুর জন্যই শাকিবের বিপদ!

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ায় ধর্ষণের আর জেল খাটার অভিযোগ তুলেছে প্রযোজক রহমত উল্লাহ নামক এক প্রযোজক। ২০১৬ সালে নির্মাণাধীন ছবি ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ সিনেমার শুটিং করতে গিয়ে মূলত এমন খবর চাউর হয়। 

অন্যদিকে জানা যায় নায়িকা আর প্রযোজকের সূত্র ধরে সিনেমা বন্ধের কথা। এসব কিছু ধামাচাপা দিতে পরিচালককে আরও একটি করার সুযোগ দেন। নাম ‍‍`সুপারহিরো‍‍`। যদিও ছবিটি ঈদের বাজারে এসেও ফ্লপ হয়। এমন তথ্যগুলিই জানানো হয় একটি বিশ্বস্ত সূত্র।

তবে এদিকে পরিচালককের এক ফেসবুক বার্তায় তা অস্বীকার করতে দেখা গেছে। যদিও এসবের বিষয়ে দীর্ঘদিন শাকিব খান চুপ থাকলেও বিশ্বস্ত সূত্রটি জানিয়েছেন ভিন্ন তথ্য! প্রথমে এই ঘটনায় শাকিব খানের সাবেক স্ত্রী অপু বিশ্বাসের আদলে প্রথম সেই প্রযোজকের সাথে মিমাংসার জন্য বসেন। পঅনেকেই ধারণা করছেন অপু বিশ্বাসের জন্য তাকে নতুন ফাঁদে ফেলতে এমনটি করছেন। এমনকি ৩০০ টাকার স্ট্যাম্পে লিখিত নিতে চেয়েছিলেন! তাতেই বাধে বিপত্তি। তাদের সঙ্গে ছিলেন শুভ নামক এক সঙ্গীত শিল্পী।

তাদের মাঝে শেষ পর্যন্ত মিমাংসা না হওয়াতেই ক্ষিপ্ত হন শাকিব খান নিজেই। তবে সেদিন সেই প্রযোজক শাকিব খানকে জানিয়েছিলেন পরের দিন আগে টিকিট অনুযায়ি রাত ৮টায় ফেরত যাবেন বলেও তাকে জানানো হয়। প্রযোজক রহমত উল্লাহ দেশে থাকা কালিন শাকিব খান ভয়ে ঘর থেকে বের হননি বরং অপু বিশ্বাসের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেন বিষয়টি ধামাচাপা দিবার জন্য। কিন্তু তাতে কোন লাভ হয়নি। তার বিরুদ্ধে ২৬ পৃষ্ঠার মামলার নথি ততক্ষণে গণমাধ্যমের হাতে এসে হাজির।

তাহলে কি অপু বিশ্বাস বরংবার এই নায়ককে বিপদে ফেলতে চাচ্ছেন? কেননা মামলার বিষয়ে তাকে এই অপু বিশ্বাস থানায় পাঠানোর চেষ্টা করেছেন এবং জানান বিয়ে ছাড়াই শাকিব-অপু আবারও এক ছাদের নিচে থাকার কথাও তুলেছেন সূত্রটি!

এদিকে শাকিব খানের এই মহা দুঃসময়ে বুবলির পাশে থাকা চোখে পড়লেও অপু বিশ্বাসের কোন হদিস পাওয়া গেল না কেন? অন্যদিকে এই মেয়ের জন্য শাকিব খানের কেন এতো আবেগ তার কি জানা নেই এই অপু বিশ্বাসের জন্য তার শনির লংঙ্কাকা- আর বিপদের ঘনঘটা শুরু হয় দেশসেরা এই সুপারস্টার নায়কের!

সামনে আরও তার মহাবিপদ বিপদ সংকেত রয়েছে শাকিব খানের নামে। ইন্ডাস্ট্রিজের সবাই কম বেশি জানেন। জানা গেছে চিত্রনায়িকা ‘বি’ এবং নাচের এক মেয়ে ‘এস’ নামের কক্সবাজারের সেই মুমূর্র্ষ দিনের ঘটনার কথা। মদব্য অবস্থায় যৌন হয়রানিসহ রক্তাক্ত অবস্থায় বিমানযোগে ঢাকায় চিকিৎসা করানো হয়েছিল। আরেকজনের চিকিৎসা হয় মোহাম্মাদপুরের একটি হাসপাতালে।

এদিকে নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক এক প্রযোজক ইতিমধ্যে শাকিব খানকে রাফ এন্ড টাফ ধর্ষকের তকমা দিয়েছেন।

এদিকে এই নায়ককে নিয়ে পরিচালক এফ আই মানিক জানিয়েছিলেন ভিন্ন তথ্য, ‘নায়ক শাকিব খানের সামনে আরও মহাবিপদ রয়েছে। তার জন্য এই পরিচালকের সব কিছু হারিয়ে নিঃস্ব হবার ঘটনাও ঘটেছে। অপু বিশ্বাসকে নায়িকা না নিয়ে পূর্ণিমাকে নায়িকা নিবার কারণে তার প্রায় ৩ কোটি টাকা গচ্ছা দিতে হয়েছে বলেও দাবি করেছেন এই পরিচালক।’

পরিচালক এফ আই মানিক আরও জানিয়েছিলেন, ‘শত শত প্রযোজকদের পথে বসিয়েছেন এই নায়ক শাকিব খান। প্রকৃতি তারই প্রতিশোধ নিয়েছেন বলেও অভিযোগ করেছেন। শাকিব খান টাকা ছাড়া জীবনে কিছুই চেনেন না বলেই আজ এই বিপদে একটা মানুষ নাই। তিনি মারা যাওয়া পাওয়া পর্যন্ত তাকে অভিশাপ চালিয়ে যাবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।’ 
  
তবে শাকিব খানের পক্ষে দাঁড়িয়েছেন বর্তমান সময়ের নায়ক ইমন। তিনি একটি বার্তা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন। তারা লিখেছেন, ‘ বনে জঙ্গলে যে গাছটা সবচেয়ে বড় থাকে, সেই গাছে ঝড়বাতাস বেশি লাগে। কিন্তু ঝড়ের পরে সেই গাছটাই উচুঁ হয়ে থাকে। আপনি আমাদের সুপারস্টার। একজন শাকিব খান আমার বড়ভাই, সহকর্মী। বিশ্বাস করি সব সমস্যার সঠিক সমাধান হয়ে আপনি রাজার মতো কামব্যাক করবেন।’

তাকে নিয়ে বেশ সরব নায়ক নিরব। তিনিও শাকিব খানের পক্ষে একটি বার্তা ছুঁড়েছেন, ‘বহুবছর ধরে এই মানুষটির স্নেহ ও পরামর্শ পেয়ে আসছি। কাছ থেকে দেখেছি তাঁর ফ্যান-ফলোয়ার্স তাকে কতটা ভালোবাসে। হয়তো এ কারণে তিনি বাংলাদেশের সুপারস্টার। সত্যি কথা বলতে সিনেমার মাধ্যমে একজন শাকিব খান ওঠা বা তাঁর কাছাকাছি অবস্থানে পৌঁছানো যে কতটা ডেডিকেশনের ব্যাপার, যারা এখানে কাজ করেন তারা হয়তো ভালো করে বোঝেন। আমার বিশ্বাস বাংলাদেশের সিনেমাও জানে শাকিব খানকে কতটা দরকার। দ্রুত সবকিছুর সুষ্ঠু সমাধান হোক।’

কিন্তু অন্যদিক পুলিশ ইনভেস্টিগেশন করে মেডিকেল রিপোর্ট অনুযায়ী, ধর্ষণকারী শাকিব খান মাতাল হয়ে অ্যানি সাবরিনকে যোনি ও পায়ুপথে নির্মমভাবে যৌনচার চালিয়েছেন। এমন অভিযোগ সামনে আনার কারণে প্রযোজক রহমত উল্লাহকে সন্ত্রাসী ভাড়া করে মারার পরিকল্পনা করার কথাও একটি সূত্রে জানা গেছে। পরে বাধ্য হয়েই দেশ ত্যাগ করতে হয় সেই প্রযোজককে।

তবে বিপক্ষেও অস্ট্রেলিয়া থেকে মন্তব্য করেছেন প্রযোজক রহমত উল্লাহ। তিনি বলেন, ‘আমি পালিয়ে আসিনি। কাজের টানেই অস্ট্রেলিয়া এসেছি। কারো ভয়ে পালিয়ে আসিনি। আমি আবার আসব। অল্প কিছুদিনের মধ্যেই হয়তো সকল প্রমাণ নিয়ে দেখা হচ্ছে।’

এদিকে গণমাধ্যমে অস্ট্রেলিয়ান পুলিশের একটি রিপোর্ট পাঠান প্রযোজক। ২৬ পৃষ্ঠার সেই পিডিএফ ফাইলে দেখা যায়, বর্বর এক ধর্ষণের বর্ণনা। পুলিশের নথিতে উঠে এসেছে মামলার বাদী ধর্ষণের শিকার হওয়া নারী অ্যানি সাবরিন নিজেই। মামলার স্বাক্ষী প্রযোজক রহমত উল্লাহ। যাকে রিপোর্টে অ্যানির ‘আংকেল’ উল্লেখ করা হয়েছে। মামলার তদন্তকারী পুলিশ কর্মকর্তার নাম ম্যাথিউ জন ক্রুকসন।

মামলাটি করা হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলসের সেন্ট জর্জ পুলিশ স্টেশনে। রিপোর্টে ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত শাকিব খান ওরফে রানা। ক্যারিয়ারের প্রথমবার অস্ট্রেলিয়া গিয়েই এমন কা- ঘটিয়েছেন ঢাকাই সিনেমার এই নায়ক। শাকিব খানের বিষয়ে পুলিশ রিপোর্টে এমন তথ্যই মিলেছে।

পুলিশ রিপোর্টে আরও জানা যায়, ২০১৬ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর রাতে নভোটেল দ্য গ্র্যান্ড প্যারেড অ্যাপার্টমেন্ট ৭২১ ব্রাইটন লা স্যান্ডস হোটেল কক্ষে রাত ২টা থেকে ৪টা পর্যন্ত, দুই ঘণ্টা অ্যানিকে ধর্ষণ করেন শাকিব খান। সেসময় ওই নারীর ওপর পাশবিক নির্যাতন চালান ঢালিউডের শীর্ষ নায়ক।

পুলিশ সেই প্রতিবেদনে আরও বলেছে, ‘শাকিব খান রানা একজন বাংলাদেশি চলচ্চিত্র অভিনেতা। ভুক্তভোগী অ্যানি সাবরিন তার আঙ্কেল রহমত উল্লাহ’র ফিল্ম প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানে প্রডিউসার হিসেবে কাজ করেন। সাবরিন ও উল্লাহ বাংলাদেশি সিনেমার কাজ শুরু করেছে। যার শুটিং অস্ট্রেলিয়া, থাইল্যান্ড ও বাংলাদেশে হবে। অস্ট্রেলিয়ায় শাকিব খানের সঙ্গে অ্যানি সাবরিনের প্রথম দেখা হয়  ২০১৬ সালের ৩১ আগস্ট। এরপর থেকে অস্ট্রেলিয়ায় যাওয়া শাকিব খানের নিয়মিত ট্রান্সপোর্ট, হোটেল, খাওয়া-দাওয়া ও যাবতীয় বিষয়াদি দেখাশোনা করেন অ্যানি। একাধিক সূত্রে জানা যায় খুব শিঘ্রই অ্যানি এই বিষয় নিয়ে লাইভে আসবেন। ’
 

Link copied!