Amar Sangbad
ঢাকা সোমবার, ২০ মে, ২০২৪,

গবেষণা

শিশুখাদ্য সেরেলাক–নিডোতে ক্ষতিকর মাত্রায় চিনি

আমার সংবাদ ডেস্ক

আমার সংবাদ ডেস্ক

এপ্রিল ১৮, ২০২৪, ০৮:০৪ পিএম


শিশুখাদ্য সেরেলাক–নিডোতে ক্ষতিকর মাত্রায় চিনি

বহুজাতিক খাদ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান নেসলের শিশুখাদ্যে ক্ষতিকর মাত্রায় চিনির উপস্থিতি পাওয়া গেছে। সুইজারল্যান্ডের অলাভজনক বেসরকারি সংগঠন পাবলিক আই ও ইন্টারন্যাশনাল বেবি ফুড অ্যাকশন নেটওয়ার্কের যৌথ গবেষণায় চাঞ্চল্যকর এ তথ্য উঠে এসেছে।

তবে, সব দেশের বাজারে সরবরাহ করা নেসলের খাবারে চিনি মেলেনি। শুধু দরিদ্র দেশগুলোতে পাওয়া গেছে এই ক্ষতিকর মাত্রা।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান বলছে, এশিয়া, আফ্রিকা ও লাতিন আমেরিকার দেশের বাজারে পাওয়া নেসলের শিশুখাদ্যের কিছু নমুনা বেলজিয়ামের ল্যাবে পাঠায় গবেষণা প্রতিষ্ঠান দুটো। ল্যাবে টেস্ট করার পর জানা যায়, এসব এলাকার বাজারে সরবরাহ করা নেসলের সেরেলাক ও নিডোতে ক্ষতিকর মাত্রায় চিনি যুক্ত করা হয়েছে। সেই চিনি যুক্ত করা হয় সুক্রোজ বানানোর পর।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান দুটো বলছে, এক বছরের বেশি বয়সী শিশুদের নিডো খাওয়া হয়। আর সেরেলাক খাওয়ানো হয় ৬ মাস থেকেই। এসব এলাকার শিশুরা এই খাবার খাওয়ার কারণে স্থূলতা ও বিভিন্ন জটিল রোগের ঝুঁকিতে আছেন।    

বাংলাদেশ, ভারতসহ অনেক দেশেই নেসলের এই শিশুখাদ্যগুলোর চাহিদা অনেক। অনেকেই দুধের বিকল্প হিসেবে শিশুকে এসব খাবার দেন। গবেষণা প্রতিষ্ঠান দুটো বলছে, এশিয়া, আফ্রিকা ও লাতিন আমেরিকার শিশুখাদ্যে এভাবে চিনি যুক্ত করা হলেও ইউরোপের বাজারে ঠিকই চিনি বাদে এসব খাদ্য সরবরাহ করা হচ্ছে।

সুইজারল্যান্ডের অলাভজনক বেসরকারি সংগঠন পাবলিক আইয়ের কৃষি ও পুষ্টি বিশেষজ্ঞ লরেন্ট গ্যাবেরেল বলছেন, ‘লেসলেকে এই দ্বিচারিতা বন্ধ করতে হবে। বিশ্বের সব জায়গায় তিন বছরের কমবয়সী শিশুদের খাদ্যে এভাবে চিনি যুক্ত করা বন্ধ করতে হবে।’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলছে, স্বল্প ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে স্থূলতা একটি বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ২০০০ সালের পর এখন পর্যন্ত আফ্রিকায় ৫ বছরের কমবয়সী শিশুদের স্থূল হওয়ার হার বেড়েছে ২০ শতাংশ। বৈশ্বিকভাবে এখন ১০০ কোটির বেশি মানুষ এই সমস্যায় রয়েছে।  

বাজারে যেসব শিশুখাদ্য পাওয়া যায়, এতে চিনি আছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখে কেনার সুযোগ ক্রেতাদের নেই। উপাদানগুলো অনেকে দেখেন। কিন্তু তাতেও চিনির কথা সরাসরি বলা থাকে না। এ কারণে এ ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে প্রতিষ্ঠান দুটো।

এ নিয়ে দ্বিচারিতা আছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মধ্যেও। ইউরোপে এসব খাবারে যাতে চিনি না যুক্ত করা হয়, সে ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছে তারা। কিন্তু এর বাইরে কোনো এলাকার জন্য নেই সতর্কবার্তা।  

গবেষণা বলছে, ভারতে যে সেরেলাক বিক্রি করা হয় তার প্রতি প্যাকেটে প্রায় ৩ গ্রাম চিনি থাকে। বাংলাদেশের বাজারে বিক্রি হওয়া নিডো ও সেরেলাকেও চিনি রয়েছে।

এ ব্যাপারে নেসলের এক মুখপাত্র বলেন, ‘শিশুদের বেড়ে উঠায় সব ধরনের পুষ্টিকর উপাদান আমরা যুক্ত করে খাবার বানাই। এ ক্ষেত্রে মাত্রা ঠিক রাখা হয়। একেক এলাকায় একেক মাত্রার নিয়ম, আমরা তা মেনেই খাদ্য বানাই। এসব চিনি আসে মধু থেকে। এই চিনিও কিন্তু আমরা কমিয়ে এনেছি ১১ শতাংশ।’

আরএস

 

Link copied!