Amar Sangbad
ঢাকা মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২৪,

সেহরি ও ইফতারে কেন খেজুর খাবেন

মানতাসা তাসনিম

মানতাসা তাসনিম

মার্চ ১৫, ২০২৪, ০৪:১৮ পিএম


সেহরি ও ইফতারে কেন খেজুর খাবেন

ইফতারে খেজুর খেতে আমরা সবাই পছন্দ করি। অন্যান্য পরিচিত ইফতারের পাশাপাশি খেজুর কিন্তু প্রতিদিন ইফতারের মেনুতে দেখা যায়। ডায়াবেটিস রোগীরাও এই রমজানে কিন্তু খেজুর খেতে পারবেন।

কিডনি রোগীরাও পটাসিয়াম ভালো থাকলে ১ পিস খেজুর এই রমজানে খেতে পারবেন।

সারাদিন রোজা রাখার পর শরীরে গ্লুকোজের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। খেজুর সেটি দ্রুত পূরণে সাহায্য করে। তাই খেজুর খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই শরীরের ক্লান্তিভাব দূর হয়। আছে প্রচুর ভিটামিন বি। যা মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে থাকে।

হৃদরোগের সমস্যা দূর করতে প্রতিদিন খেজুর খাওয়া জরুরি। খেজুরে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়।

খেজুরে পটাসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম খুব ভালো পরিমাণে থাকে। যা উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে। প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। যার ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়। ফাইবার সমৃদ্ধ খেজুর নিয়মিত খেলে দূর হয় হজমের সমস্যা।

খেজুর ক্ষুধার তীব্রতা কমিয়ে দেয় এবং পাকস্থলীকে কম খাবার গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করে। ফলে ওজন কমাতে সাহায্য করে থাকে।

খেজুরে রয়েছে প্রচুর আয়রন। প্রতিদিন খেজুর খাওয়ার অভ্যাস দেহের আয়রনের অভাব পূরণ করে এবং রক্তস্বল্পতা রোগের হাত থেকে রক্ষা করবে।

খেজুর বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েদের জন্য সমৃদ্ধ এক খাবার, যা মায়ের দুধের পুষ্টিগুণ আরও বাড়িয়ে দেয় এবং শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। খেজুরে আছে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম যা হাড়কে মজবুত করে।

পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ ও প্রাকৃতিক আঁশে পূর্ণ খেজুর ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। তাই যারা নিয়মিত খেজুর খান, তাদের বেলায় ক্যান্সারের ঝুঁকিটাও অনেক কম থাকে।

নোট: শুধু ইফতারে না সেহেরিতেও খেজুরের অনেক উপকারিতা রয়েছে। খেজুর আমাদের শরীরকে সারাদিন রোজা রেখে হাইড্রেট রাখতে সাহায্য করে থাকে। ডায়াবেটিস রোগীরাও সেহরিতে ১ পিস খেজুর রাখবেন। যা আপনাকে সারাদিন অল্প অল্প করে এনার্জি দিতে সাহায্য করবে ও হাইপোগ্লায়সেমিয়া হওয়ার সম্ভবনা কমাতে সাহায্য করবে।

লেখক: প্রধান পুষ্টিবিদ ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল ও কার্ডিয়াক সেন্টার মিরপুর।

ইএইচ

Link copied!