Amar Sangbad
ঢাকা সোমবার, ০২ অক্টোবর, ২০২৩, ১৭ আশ্বিন ১৪৩০

বাংলাদেশে সমুদ্র সম্পদের টেকসই ব্যবহার ও ব্যবস্থাপনা

দেলোয়ার জাহিদ

দেলোয়ার জাহিদ

এপ্রিল ২৮, ২০২৩, ১০:৩৫ এএম


বাংলাদেশে সমুদ্র সম্পদের টেকসই ব্যবহার ও ব্যবস্থাপনা

ব্লু ইকোনমি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির জন্য সমুদ্র সম্পদের টেকসই ব্যবহার এবং ব্যবস্থাপনাকে বোঝায়, যেখানে সমুদ্রের বাস্তুতন্ত্রের স্বাস্থ্য সংরক্ষণ করা হয়। বাংলাদেশ, একটি ব-দ্বীপ দেশ হওয়ায়, উল্লেখযোগ্য সামুদ্রিক এবং উপকূলীয় সম্পদ রয়েছে যা এর অর্থনৈতিক বৃদ্ধিকে সমর্থন করার জন্য একটি টেকসই পদ্ধতির মাধ্যমে তা ব্যবহার করা যেতে পারে।

বিশ্বজুড়ে সফল নীল অর্থনীতির উদ্যোগগুলো থেকে যে পাঠ শেখা যায় তার মধ্যে রয়েছে একটি বিস্তৃত নীতি কাঠামোর প্রয়োজন যা মৎস্য, শিপিং, পর্যটন এবং পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি সহ সমুদ্রের সম্পদ ব্যবহার করে এমন সমস্ত সেক্টরের অন্তর্ভুক্ত করে। উদ্ভাবন এবং প্রযুক্তির উপর ফোকাস পরিবেশগত প্রভাব গুলো কমিয়ে নতুন অর্থনৈতিক সুযোগ তৈরি করতেও সাহায্য করতে পারে।

বাংলাদেশের জন্য, ব্লু ইকোনমি পদ্ধতির নীতিগত প্রভাব গুলোর মধ্যে একটি ব্যাপক সমুদ্র শাসন কাঠামোর উন্নয়ন, টেকসই মাছ ধরার অনুশীলনের প্রচার, সামুদ্রিক স্থানিক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন, সামুদ্রিক পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির বিকাশ এবং ইকো-ট্যুরিজমের প্রচার অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। . সিদ্ধান্ত গ্রহণ কে অবহিত করতে এবং স্থায়িত্ব নিশ্চিত করতে এই জাতীয় নীতিগুলি গবেষণা এবং ডেটা দ্বারা সমর্থিত হওয়া উচিত।

উপরন্তু, বাংলাদেশ তার নীল অর্থনীতির উন্নয়নে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা ও অংশীদারিত্ব থেকে উপকৃত হতে পারে। সমুদ্র সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনার জন্য আঞ্চলিক উদ্যোগগুলোকে সমর্থন করার পাশাপাশি অন্যান্য দেশের সাথে সহযোগিতা জ্ঞান, প্রযুক্তি এবং সর্বোত্তম অনুশীলন আদান-প্রদানকে সহজতর করতে পারে।

সামগ্রিকভাবে, বাংলাদেশের একটি টেকসই নীল অর্থনীতির দৃষ্টিভঙ্গি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়তা করতে পারে এবং এর সাগরের বাস্তুতন্ত্রের স্বাস্থ্য সংরক্ষণ এবং উপকূলীয় সম্প্রদায়ের মঙ্গল নিশ্চিত করতে পারে।

বাংলাদেশে একটি ব্লু ইকোনমি বাস্তবায়নের জন্য বেশ কিছু সেক্টর আছে যেগুলোর দিকে নজর দেওয়া দরকার। এর মধ্যে রয়েছে:

মৎস্যসম্পদ: বাংলাদেশের একটি সমৃদ্ধ মৎস্য সম্পদের ভিত্তি রয়েছে যা লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবিকা নির্বাহ করে। যাইহোক, অতিরিক্ত মাছ ধরা, বাসস্থানের অবক্ষয় এবং জলবায়ু পরিবর্তন এই সেক্টরের স্থায়িত্বের জন্য উল্লেখযোগ্য হুমকির সৃষ্টি করে। ব্লু ইকোনমি পন্থা বাস্তবায়নের জন্য, টেকসই মাছ ধরার অভ্যাস, যেমন বাইক্যাচ কমানো এবং গুরুত্বপূর্ণ আবাসস্থল সুরক্ষা প্রচার করে এমন নীতি ও প্রবিধান গুলি তৈরি এবং প্রয়োগ করতে হবে।

শিপিং: গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র এবং মেঘনা নদীর ব-দ্বীপে বাংলাদেশের অবস্থান এটিকে আন্তর্জাতিক জাহাজ চলাচলের জন্য একটি কৌশলগত অবস্থান পরিণত করেছে। যাইহোক, এই খাতটি পরিবেশের জন্য ঝুঁকি তৈরি করে, যার মধ্যে রয়েছে দূষণ এবং আবাসস্থল ধ্বংস। যে নীতিগুলি পরিষ্কার জ্বালানি ব্যবহারে উৎসাহিত করে, বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নতি করে এবং সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্রের উপর শিপিং এর প্রভাব কমায় সেগুলো তৈরি এবং প্রয়োগ করতে হবে৷

পর্যটন: বাংলাদেশের সুন্দর উপকূল রেখা, ম্যানগ্রোভ বন এবং সামুদ্রিক জীববৈচিত্র্য ইকো-ট্যুরিজমের জন্য উল্লেখযোগ্য সম্ভাবনা প্রদান করে। যাইহোক, পর্যটন কার্যক্রম যাতে প্রাকৃতিক পরিবেশের ক্ষতি না করে বা স্থানীয় সম্প্রদায়ের জীবিকা ব্যাহত না করে তা নিশ্চিত করে খাতের টেকসই ভাবে গড়ে তুলতে হবে। বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, আবাসস্থল সংরক্ষণ এবং সাংস্কৃতিক সংরক্ষণ সহ দায়িত্বশীল পর্যটন অনুশীলনের প্রচার করে এমন নীতিগুলি বিকাশ ও প্রয়োগ করা প্রয়োজন।

নবায়নযোগ্য শক্তি: বাংলাদেশের উপকূলীয় ও উপকূলীয় সম্পদ থেকে নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়নের উল্লেখযোগ্য সম্ভাবনা রয়েছে। যে নীতিগুলি নবায়নযোগ্য শক্তি প্রযুক্তির বিকাশ কে উত্সাহিত করে যেমন বায়ু, তরঙ্গ এবং জলোচ্ছ্বাস শক্তি জীবাশ্ম জ্বালানির উপর দেশের নির্ভরতা কমাতে এবং জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমনে অবদান রাখতে সহায়তা করতে পারে।

সামুদ্রিক স্থানিক পরিকল্পনা: একটি বিস্তৃত সামুদ্রিক স্থানিক পরিকল্পনা কাঠামো তৈরি করা সমুদ্র সম্পদের প্রতিযোগিতামূলক ব্যবহার পরিচালনা করতে সাহায্য করতে পারে, যেমন মাছ ধরা, শিপিং এবং পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি উন্নয়ন। এই ধরনের কাঠামো নিশ্চিত করতে পারে যে সমুদ্র সম্পদের টেকসই ব্যবহার সংরক্ষণ এবং পরিবেশ সুরক্ষার সাথে ভারসাম্যপূর্ণ।

উপসংহারে বলা যায়, বাংলাদেশে একটি টেকসই নীল অর্থনীতি বাস্তবায়নের জন্য এই খাতগুলো মোকাবেলা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। টেকসই প্রবৃদ্ধি অর্জন এবং দেশের সামুদ্রিক ও উপকূলীয় সম্পদ টেকসই উপায়ে ব্যবহার করা হয় তা নিশ্চিত করার জন্য এই সেক্টর গুলোর সাথে সামগ্রিক এবং সমন্বিত দৃষ্টিভঙ্গির সাথে যোগাযোগ করা দরকার।

লেখক : মুক্তিযোদ্ধা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র রিসার্চ ফ্যাকাল্টি মেম্বার, সভাপতি, বাংলাদেশ নর্থ আমেরিকান জার্নালিস্টস নেটওয়ার্ক

Link copied!