Amar Sangbad
ঢাকা রবিবার, ১৪ জুলাই, ২০২৪,

যুক্তরাষ্ট্রে জেলবন্দি মুসলিমরা পেল জুমার নামাজের অনুমতি

ইমা এলিস, নিউ ইয়র্ক:

ইমা এলিস, নিউ ইয়র্ক:

জুন ২০, ২০২৪, ১১:১৯ এএম


যুক্তরাষ্ট্রে জেলবন্দি মুসলিমরা পেল জুমার নামাজের অনুমতি

যুক্তরাষ্ট্রে জেলবন্দিরা পেয়েছে জুমার নামাজ আদায়ের অনুমতি। মেরিল্যান্ডের প্রিন্স জর্জের কাউন্টি ডিপার্টমেন্ট অব কারেকশনস মুসলিম বন্দিদের জন্য একত্রে জুমার নামাজের অনুমতি দিয়ে নতুন নীতি গ্রহণ করেছে। ২০২১ সালে মেরিল্যান্ড মুসলিম প্রিজনার প্রজেক্ট দ্বারা উত্থাপিত দাবিগুলো নিয়ে অনেক আলোচনার পর ডিপার্টমেন্ট অব কারেকশনস এই ঘোষণা দেয়।

গত মে মাসে মেরিল্যান্ড মুসলিম প্রিজনার প্রজেক্টের সঙ্গে একটি মিটিং চলাকালীন, প্রিন্স জর্জের কাউন্টি ডিপার্টমেন্ট অব কারেকশন ডিরেক্টর টেরেন্স ক্লার্ক, ইনমেট সার্ভিসেস ডিভিশনের প্রধান ড. গ্রেগরি বিয়ারস্টপ এবং অন্যান্য সংশোধনকারী প্রশাসনিক কর্মীরা নতুন নীতি বাস্তবায়নের পাশাপাশি অন্যান্য পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা করার জন্য মুসলিম চ্যাপলেন, কেয়ার এবং প্রিন্স জর্জের কাউন্টি মুসলিম কাউন্সিলের সঙ্গে দেখা করেছিলেন। সভায় প্রিন্স জর্জের কাউন্টি ডিপার্টমেন্ট অব কারেকশনস বন্দি মুসলমানদের জন্য ধর্মীয় সহায়তা পরিষেবাগুলো উন্নত করার প্রজেক্ট নেওয়া হচ্ছে বলে কর্মকর্তারা জানান। বর্তমানে সেখানে আনুমানিক ৮০০ বন্দির প্রায় এক-চতুর্থাংশ মুসলিম।

কেয়ারের মেরিল্যান্ড ডিরেক্টর জয়নাব চৌধুরী বলেন, এই অগ্রগতি ডেডিকেটেড টিমওয়ার্ক, অনেক মিটিং, আলোচনা এবং কর্মের প্রতিফলন। আমরা ড. বিয়ারস্টপ, ডিরেক্টর ক্লার্ক, যারা আমলাতান্ত্রিক জটিলতার মধ্যেও কাজ করেছেন এবং এ মাইলফলক অর্জনে সাহায্য করেছেন তাদের সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। সংগঠন হিসেবে কেয়ার আমাদের মুসলিম সম্প্রদায়ের সব সদস্যের অধিকার সুরক্ষিত করার জন্য গভীরভাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমাদের কাজ শেষ হয়নি, তবে এটা জেনে আনন্দিত এবং আনন্দদায়ক যে মুসলমানরা এখন এই সুবিধাটিতে জামাতে জুমার নামাজ পড়ার তাদের ধর্মীয় বাধ্যবাধকতা পূরণ করতে সক্ষম হবে।

কারাগারে সংশোধনী সুবিধায় মুসলমানদেরকে ধর্মগুরু সেবাপ্রদানকারী ইমাম বুহেরা আবদুস সবুর বলেন, সব বন্দির জন্য ধর্মীয় আবাসন তাদের সংস্কারের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ এবং বৃহত্তরভাবে মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য সুখবর। এ পরিবর্তনে মুসলিম বন্দিদের চোখে আনন্দাশ্রু দিয়েছে। তারা যে আধ্যাত্মিক দিকনির্দেশনা পেয়েছে, তার ফলে আটকদের সুবিধাগুলোতে ধর্মীয় পরিষেবাগুলো পরিসংখ্যানগতভাবে সহিংসতার কাজগুলোকে হ্রাস করতে এবং মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর যথেষ্ট ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এটি একটি বড় খবর, যদিও মেরিল্যান্ড রাজ্যে এবং সারা দেশে আটকদের যথাযথ ধর্মীয় আবাসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে, তা নিশ্চিত করার জন্য আমাদের এখনো একটি দীর্ঘপথ অতিক্রম করতে হবে।

চ্যাপলিন ইমাম তালিব আবদুস সামাদ বলেন, মেরিল্যান্ড মুসলিম প্রিজনার প্রজেক্টের পক্ষ থেকে আমরা ধীরে ধীরে যে অগ্রগতি অর্জন করেছি, তাতে আমরা খুবই উচ্ছ্বসিত। এটি একটি সহযোগিতামূলক প্রচেষ্টা এবং এটি অর্জন করতে বহু ঘণ্টার সংলাপ হয়েছে। এটি ইতিহাস। যদিও মুসলিম বন্দিদের সংখ্যা বাড়ছে। তাদের যে পরিষেবাগুলো দেওয়া হচ্ছে, তা নিঃসন্দেহে ইতিবাচক এবং উন্নত জীবনযাপন শুরু করতে সাহায্য করবে।

পিজিসিএমসি সভাপতি জামিল জনসন বলেন, পিজিসিএমসি পরিচালক ক্লার্ক এবং সংশোধন বিভাগের কর্মী এবং স্বেচ্ছাসেবক ইমাম বুহেরা আব্দুস সবুর এবং তালিব আবদুস সামাদ বন্দিদের ধর্মীয় চাহিদা মিটমাট করার জন্য কাজ করছেন। লার্জ হকিন্সের কাউন্টি এক্সিকিউটিভ আলসোব্রুকস এবং কাউন্টি কাউন্সিলম্যানের সমর্থনের মাধ্যমে, আমরা জুমার নামাজ জামাতে করতে সক্ষম হচ্ছি। এখন পিজিসিএমসি, ইমাম এবং কেয়ার-মেরিল্যান্ডের সহযোগিতামূলক প্রচেষ্টার মাধ্যমে আমরা প্রিন্স জর্জের কাউন্টি ডিপার্টমেন্ট অব কারেকশনসের সঙ্গে একটি সম্পর্ক তৈরি করেছি যা স্টেটের সব সুবিধায় আমাদের ভাই ও বোনদের ধর্মীয় পরিষেবা উন্নত করবে।

পূর্বে মেরিল্যান্ড মুসলিম প্রিজনার প্রজেক্ট জোট মুসলিম বন্দিদের শুক্রবার জুমার নামাজ সম্মিলিত পরিষেবার পরিবর্তে তাদের নিজ নিজ ইউনিটে পড়ার অনুমতি পেয়েছিল। বর্তমানে যুব ও মহিলা ইউনিট পৃথক একত্রিত জুমার নামাজের প্রার্থনা সেবা পাবে।
বিআরইউ

Link copied!