Amar Sangbad
ঢাকা শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২৩, ৮ আশ্বিন ১৪৩০

বিষক্রিয়ায় দুই ভাইয়ের মৃত্যু

পেস্ট কন্ট্রোল সার্ভিস কোম্পানির এমডি-চেয়ারম্যান রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক

জুন ৮, ২০২৩, ০৬:০০ পিএম


পেস্ট কন্ট্রোল সার্ভিস কোম্পানির এমডি-চেয়ারম্যান রিমান্ডে

ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় এক ব্যবসায়ীর বাড়িতে দেওয়া ‘তেলাপোকা মারার ওষুধের’ বিষক্রিয়ায় দুই সন্তানের মৃত্যুর মামলায় পেস্ট কন্ট্রোল সার্ভিস প্রতিষ্ঠান ডিসিএস অর্গানাইজেশন লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও এমডির তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (৮ জুন) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুব আহমেদের আদালত শুনানি শেষে রিমান্ডের আদেশ দেন।

রিমান্ডে যাওয়া দুই আসামি হলেন- প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামান ও ফরহাদুল আমিন।

এর আগে, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ভাটারা থানার সাব-ইন্সপেক্টর রফিকুল ইসলাম আসামিদের আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন।

আসামিদের পক্ষে তাদের আইনজীবী হাসনাইন তালুকদার (সুজন) রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। শুনানিতে তিনি বলেন, কোম্পানির কর্মচারীরা বাসায় স্প্রে করে আসে। তাদের ৮/১০ ঘণ্টা পরে বাসায় প্রবেশ করতে বলেন। কিন্তু তারা দুই ঘণ্টা পরই বাসায় প্রবেশ করেন। বাসায় এসেই এসি ছেড়ে দেন।

তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠানটি ১০ বছর যাবত এ কাজ করে যাচ্ছে। এমন ঘটনা প্রতিষ্ঠানের ঘটেনি। তারা ট্রেনিংপ্রাপ্ত। আর আসামিদের এজাহারে নাম নেই। তাদের রিমান্ড বাতিলপূর্বক জামিনের প্রার্থনা করছি।

রাষ্ট্রপক্ষ থেকে এর বিরোধিতা করা হয়। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত তাদের তিন দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন বলে জানান ভাটারা থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন শাখার সাব-ইন্সপেক্টর রণপ কুমার।

এর আগে, এদিন সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে ডিবি পুলিশ। এ মামলায় ৬ জুন স্প্রে ম্যান টিটু মোল্লার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

‘তেলাপোকা মারার ওষুধের’ বিষক্রিয়ায় রোববার ব্যবসায়ী মোবারক হোসেন তুষারের দুই ছেলে শাহিল মোবারত জায়ান (৯) ও শায়েন মোবারত জাহিনের (১৫) মৃত্যু হয়। মোবারক হোসেন ঢাকা রয়েল ক্লাব লিমিটেডের (উত্তরা) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। পরিবার নিয়ে তিনি বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার থাকতেন। এ ঘটনায় তিনি ভাটারা থানায় মামলা করেন।

পুলিশ জানায়, পোকামাকড় মারতে মোবারক হোসেন নিজের বাসায় ওষুধ প্রয়োগে ‘ডিসিএস অর্গানাইজেন লিমিটেড’ নামে ওই কোম্পানিকে দায়িত্ব দিয়েছিলেন। সেই পেস্ট কন্ট্রোল কোম্পানির কর্মীরা পোকামাকড় নিধনের জন্য অ্যালুমিনিয়াম ফসফাইড ট্যাবলেট (গ্যাস ট্যাবলেট) ব্যবহার করেছিলেন। ওষুধ দেওয়ার ৬ ঘণ্টার মধ্যে ঘরে ঢুকতে নিষেধ করা হয়। কোম্পানির নির্দেশনা মেনে ১৫ ঘণ্টা পর পরিবারের সদস্যরা ঘরে প্রবেশ করেন। এরপরেই বিষাক্ত গ্যাসের বিক্রিয়ায় আক্রান্ত হতে শুরু করেন তারা। সেই ঘটনায় ওই দুই কিশোরের মৃত্যু হয়।

আরএস

Link copied!