Amar Sangbad
ঢাকা রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১০ আশ্বিন ১৪২৯

কুমিল্লায় বুলু ঢাকায় সেলিমা,আলাল,তাবিথ

একদিনে বিএনপির চার শীর্ষ নেতার উপর হামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক

সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২২, ০৯:২৭ পিএম


একদিনে বিএনপির চার শীর্ষ নেতার উপর হামলা

একদিনে বিএনপির শীর্ষ চার নেতার উপর হামলা হয়েছে। কুমিল্লায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী বরকত উল্লাহ বুলু ও রাজধানীর বনানীতে বিএনপির স্থায়ি কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান,  ঢাকা উত্তরের সাবেক মেয়র প্রার্থী বিএনপির আন্তর্জাতিক উইংয়ের সদস্য তাবিথ আউয়াল ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল। আওয়ামী লীগ -যুবলীগের নেতাকর্মীরা হামলা চালিয়েছে বলে দাবী বিএনপির।

জানা যায়, নোয়াখালি থেকে ঢাকায় ফেরার পথে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ বিপুলাসার বাজারে বরকত উল্লাহ বুলুর উপর হামলার ঘটনা ঘটে। রক্তাত্ব অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়। তার মাথায় গুরুতর আঘাতে ফেটে যায়। ডান হাতও ভেঙ্গে গেছে। সাথে তার স্ত্রীসহ আরো ৫ জন গুরুতর আহত হয়। কুমিল্লার আওয়ামী লীগ-যুবলীগের নেতাকর্মীরা হামলা করেছে বলে বিএনপি ও বুলুর পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিএনপির মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান আমার সংবাদকে বলেন বরকত উল্লাহ বুলুর উপর আওয়ামী লীগ যুবলীগের নেতাকর্মীরা হামলা করেছে। রক্তাত্ব অবস্থায় তাঁকে হাসপাতালে নেয়া হয়। 

এ বিয়ে জানতে চাইলে বরকত উল্লাহ বলুর ছেলে সানিয়াত আমার সংবাদকে বলেন, নোয়াখালী থেকে ফেরত ঢাকায় আসার সময় কুমিল্লার আওয়ামী লীগ যুবলীগের এক -দেড়শ নেতা-কর্মী জয়বাংলা বলে উনার (আমার বাবার) উপর হামলা করেছে।  আমার মা ও সিরিয়াসলি আহত হয়েছে।  আমার বাবার মাথা ফেটে গেছে। ওনার ডান হাত ভেঙে গেছে। সাথে উনার ড্রাইভারসহ আরো চারজন মারাত্মক আহত হয়েছে।

এদিকে রাজধানীর বনানীতে সন্ত্রাসী হামলায় বিএনপির স্থায়ি কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান, ঢাকা উত্তরের সাবেক মেয়র প্রার্থী বিএনপির আন্তর্জাতিক উইংয়ের সদস্য তাবিথ আউয়াল ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব  সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল গুরুতর আহত হয়ছে।তারা ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। রাত আটটায় বিএনপির মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান এ তথ্য নিশ্চত করেছেন। তিনি বলেন, তাবিথ আউয়াল রাজনীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন আর সেলিমা রহমান ও মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল চিকিৎসা নিয়ে বাসায় গিয়েছেন।

 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল আমার সংবাদকে বলেন, আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম আমিও হামলা আহত হয়েছি।

তিনি বলেন, আমাদের কর্মসূচি  শুরু হওয়ার আগেই রাস্তার অপরপাশে ছাত্রলীগ, যুবলীগ মিছিল করছিল। কিন্তু যখন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বক্তব্য প্রায় শেষ পর্যায়ে অপর পাশ থেকে এসে আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এই হামলায় বহু নেতাকর্মী আহত হয়েছে। নারী কর্মীরাও আহত হয়েছে। ঢাকা সিটি করপোরেশন উত্তরের মেয়র প্রার্থী ছিলেন, তাবিথ আউয়াল গুরুতরভাবে আহত। সেলিমা রহমানও আহত হয়েছেন।  এভাবে কোনো শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে হামলা হতে পারে মাথায়ই আসেনা।


ই্এফ

Link copied!