Amar Sangbad
ঢাকা শনিবার, ০২ মার্চ, ২০২৪,

টি-টোয়েন্টি সিরিজ

দ. আফ্রিকার বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক জয় বাংলাদেশের

মো. মাসুম বিল্লাহ

ডিসেম্বর ৩, ২০২৩, ০৯:৪৮ পিএম


দ. আফ্রিকার বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক জয় বাংলাদেশের

প্রোটিয়ায়দের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে সিরিজ খেলতে কিছুদিন আগে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে গিয়েছে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। এ সফরে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে আজ মাঠে নামে লাল-সবুজের দল। 

বেনোনির উইলোমুর পার্ক স্টেডিয়ামে আগে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় টাইগ্রেস অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি। আগে ব্যাট করতে নেমে মুর্শিদা খাতুনের অর্ধশতক ও জ্যোতির ঝড়ো ক্যামিও ইনিংসে বড় পুঁজি পেয়েছে বাংলাদেশ। নির্ধারিত ২০ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে টাইগ্রেসদের সংগ্রহ ১৪৯ রান। লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে বাংলার মেয়েদের স্পিন ঘূর্ণিতে ১৩৬ রানে থামে স্বাগতিকরা। ফলে ১৩ রানের জয়ে প্রথমবারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে তাদের হারিয়ে ইতিহাস রচনা করেছে বাঘিনীরা।

১৫০ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা পায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ব্যাটিং পাওয়ার প্লেতে কোন উইকেট না হারিয়ে ৫৪ রান তুলে প্রোটিয়া দুই ওপেনার। মিডেল ওভারে স্বাগতিকদের স্পইন ঘূর্ণি জালে আটকে ধরেন ফাহিমা খাতুন ও রাবেয়া খান।

দলীয় ৬৯ রানে প্রোটিয়ারা প্রথম উইকেট হারায়। এরপর শুরু হয় স্পিনার স্বর্ণা আক্তারের ঘূর্ণি জাদু। এক প্রান্তে ওপেনার অ্যানেকে বসচ দাঁড়িয়ে থাকলে অপরপ্রান্ত থেকে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট তুলে নিতে থাকেন টাইগ্রেস স্পিনার স্বর্ণা। এই লেগ স্পিনারের ৫ উইকেটেরইদিনে প্রোটিয়াররা শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেট হারিয়ে ১৩৬ রানে থামে। স্বাগতিকদের হয়ে সর্বোচ্চ ৬৭ রান করেন ওপেনার বসচ।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে সাবধানে শুরু পায় টাইগ্রেসরা। ব্যাটিং পাওয়ার প্লেতে কোন উইকেট না হারিয়ে ৩৫ রান যোগ করে দুই ওপেনার শামিমা সুলতানা ও মুর্শিদা খাতুন। তবে ইনিংসের সপ্তম ওভারে ২৪ বলে ২৪ রান করে সাজঘরে ফিরেন শামিমা। এরপর দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ক্রিজে নামেন সুবহানা মুস্তারি।

মুর্শিদা খাতুনকে সঙ্গে নিয়ে দলের রানের চাকা সচল রাখেন মুস্তারি। দ্বিতীয় উইকেটে ৩৯ রান যোগ করে এলিজের বলে লেগ বি ফোরের ফাঁদে পড়েন সুবহানা। দলীয় ৮৩ রানে দুই উইকেট হারালেও তৃতীয় উইকেটে এসে আগ্রাসী ক্রিকেট খেলতে থাকেন টাইগ্রেস অধিনায়ক।

মুর্শিদাকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশ নারী দলের টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ এনে দেন জ্যোতি। প্রোটিয়া বোলারদের উপর চড়াও হয়ে শেষ ৪২ বলে টাইগ্রেস স্কোরবোর্ডে ৬৬ রান যোগ করেন এই দুই টপ অর্ডার। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ১৪৯ রানের বড় পুঝি পায় বাংলাদেশ।

সর্বোচ্চ ৬২ রান করে অপরাজিত থাকেন ওপেনার মুর্শিদা। জ্যোতি খেলেন ২১ বলে ৩৪ রানের দুর্দান্ত এক ক্যামিও ইনিংস।

আরএস

Link copied!