Amar Sangbad
ঢাকা বৃহস্পতিবার, ৩০ মে, ২০২৪,

পুলিশের ৮৮টি এসআই (নিরস্ত্র) পদ সংরক্ষণের নির্দেশ হাইকোর্টের

আমার সংবাদ ধর্ম ডেস্ক

মে ১৫, ২০২৪, ০৮:০৬ পিএম


পুলিশের ৮৮টি এসআই (নিরস্ত্র) পদ সংরক্ষণের নির্দেশ হাইকোর্টের

বাংলাদেশ পুলিশের ৮৮টি উপপরিদর্শক (নিরস্ত্র) পদ সংরক্ষণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বুধবার (১৫ মে) এ বিষয়ে করা আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী বি.এম ইলিয়াস। তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী মো. মনিরুল ইসলাম মিয়া। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশগুপ্ত।

আদালত থেকে বেরিয়ে মনিরুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ বিগত ৩ মে বাংলাদেশ পুলিশের ক্যাডেট সাব-ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) পদের প্রকৃত শূন্যপদের বিপরীতে নিয়োগের লক্ষ্যে উপযুক্ত আগ্রহী পুরষ ও নারী চাকরিপ্রার্থীদের অনলাইনে আবেদনপত্র আহ্বান করে।

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে অনলাইন আবেদন পূরণ পূর্বক চাকরিপ্রার্থীরা ওয়েব স্ক্রিনিং পাস করে গত ২০২৩ সালের ৬-৮ জুন ৩ (তিন) দিনের শারীরিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। উক্ত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে লিখিত পরীক্ষার জন্য অনলাইনে আবেদনপত্র দাখিল করেন। দুই দিনের লিখিত ও মনস্তত্ব পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ৩০ জুলাই ২০২৩ তারিখে সর্বমোট ৫৮৩৯ জন উত্তীর্ণ হন। পরবর্তীতে কম্পিউটার টেস্টে অংশগ্রহণ করে ১১ আগস্ট মোট উত্তীর্ণ হন ৫০৩১ জন। ওই বছরের ১৯ আগস্ট পর্যন্ত মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। গত ১৩ অক্টোবর ৫০৩১ জন প্রার্থীর মধ্যে মাত্র ৯২১ জনকে প্রাথমিকভাবে সুপারিশ করা হয়। পরবর্তীতে ১৭-২৩ অক্টোবর মেডিকেল শেষে মোট ৮৫৭ জন চূড়ান্তভাবে সুপারিশপ্রাপ্ত হলেও ৪ নভেম্বর সারদায় মোট ৮২৩ জন যোগদান করেন।

বাংলাদেশ পুলিশের ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজ, ও কয়েকটি অনলাইন পত্রিকা থেকে প্রাপ্ত তথ্য মতে ১৪০০ প্লাস শুন্য পদ থাকা সত্ত্বেও সারদায় আবাসন সিট সংকটের জন্য ৯২১ জনকে প্রাথমিকভাবে সুপারিশ করা হয়েছে। ২০২১ সালের ৩৯তম এসআই নিরস্ত্র নিয়োগের পর ২০২২ সালের বাংলাদেশ পুলিশের এক পরিসংখ্যানে পাওয়া যায় এসআই (নিরস্ত্র) শুন্যপদ সংখ্যা ১৩২০ জন।

বিজ্ঞপ্তিতে শুন্য পদের নিয়োগ বলা থাকলেও উক্ত নিয়োগে শুন্যপদ পূরণ হয়নি। আবাসন সংকটের জন্য ৯২১ জনকে প্রাথমিকভাবে সুপারিশ করলেও যোগদান করে ৮২৩ জন। যা থেকে আরও ৯৮ জন কম যোগদান করেন। শারীরিক পরীক্ষা, লিখিত, মনস্তত্ব পরীক্ষা ও কম্পিউটার টেস্টে অংশগ্রহণ করে সফলতার সঙ্গে উত্তীর্ণ হওয়ার পরও প্রার্থীদের সুপারিশ করা হয়নি।

পরবর্তীতে মনস্তত্ব পরীক্ষা ও কম্পিউটার টেস্টে উত্তীর্ণ ৮৮ জন সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্টে রিট করেন। শুনানি শেষে আদালত রুল জারি করেন। গত ১৭ মে প্রাথমিক শুনানি শেষে রুল জারি করেন।

হাইকোর্টে রিট পিটিশন চলমান থাকা অবস্থায় চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি পুনরায় বাংলাদেশ পুলিশের ক্যাডেট সাব-ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) পদের প্রকৃত শূন্যপদের বিপরীতে নিয়োগের লক্ষ্যে উপযুক্ত আগ্রহী পুরুষ ও নারী চাকরিপ্রার্থীদের কাছ থেকে আবেদনপত্র আহ্বান করা হয়। ৮৮ জন রিটকারী পদ সংরক্ষণের জন্য বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শকের কাছে আবেদন করেন। ওই আবেদন নিষ্পত্তি না করায় বাংলাদেশ পুলিশের ৮৮টি সাব-ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) পদ সংরক্ষণের জন্য হাইকোর্টে একটি সম্পূরক আবেদন করেন।

সেই সম্পূরক আবেদনের শুনানি নিয়ে হাইকোর্টর উক্ত বেঞ্চ সম্পূরক আবেদন মঞ্জুর করে বাংলাদেশ পুলিশের ৮৮ টি সাব-ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) পদ সংরক্ষণের নির্দেশ দেন।

আরএস

Link copied!