Amar Sangbad
ঢাকা শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২৪,

রমজানে নিত্যপণ্যের দাম নিয়ে শঙ্কা

শাহাদাত হোসাইন শিশির

শাহাদাত হোসাইন শিশির

মার্চ ১, ২০২৪, ০৯:০৩ পিএম


রমজানে নিত্যপণ্যের দাম নিয়ে শঙ্কা

পবিত্র মাহে রমজান মুসলিম উম্মাহর কাছে একটি সমৃদ্ধ বরকতময় মাস। এ মাস মুসলমানদের সিয়াম সাধনার মাস। যেখানে বিশ্বের অন্যান্য দেশে রমজান আসলে দ্রব্যমূল্যের দাম কমে সেখানে বাংলাদেশের ভিন্ন চিত্র দেখা যায়। প্রতিদিনই বাড়ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর কয়েকটি বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা যায়।

এদিকে, রোজায় পণ্যের দাম কমা নিয়েও শঙ্কায় আছে ক্রেতারা।

প্রতিবছরই রমজান মাস এলে বেশ কিছু পণ্যের মূল্য হঠাৎ অনেক বেড়ে যায়। আসন্ন পবিত্র রমজানের আগেই বাজারে অস্থিরতা শুরু হয়েছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম দফায় দফায় বেড়েই চলেছে। এরইমধ্যে বাড়তে শুরু করেছে খেজুর, ছোলা, ডালের দাম। এতে বিপাকে পড়েছেন ক্রেতারা।

পণ্যের আমদানিকারকরা দাম বেড়ে যাওয়ার জন্য দায়ী করছেন শুল্কায়নের নতুন পদ্ধতি ও ডলারের দর বেড়ে যাওয়াকে। একই সঙ্গে গুটিকয়েক ব্যবসায়ীকে আমদানির অনুমতি দেয়ায় এই দাম বৃদ্ধি বলে দাবি আমদানিকারকদের।

একটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বছরজুড়ে বাংলাদেশে ছোলার তেমন চাহিদা না থাকলেও শুধুমাত্র রমজান মাসেই ইফতারের সামগ্রী হিসেবে অন্তত ৮০ হাজার মেট্রিক টন ছোলার চাহিদা থাকে। তারপরও বছরে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে অস্ট্রেলিয়ান ছোলার পাশাপাশি স্থলবন্দরগুলো দিয়ে প্রায় দেড় লাখ মেট্রিক টন ভারতীয় ছোলা আমদানি হয়।
রাজধানীর বাজারের চিত্র বলছে, আসন্ন রোজাকে ঘিরে অন্যান্য ডালের সঙ্গে ছোলার দামও বেড়েছে। পাইকারি বাজারে বর্তমানে প্রতিকেজি ছোলা ৯৮  টাকা যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ৮৫ টাকা।

বুটের ডাল ১০৫ টাকা যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ৮৫ টাকা। কেঙ্গারু মসুরের ডাল ১৩০ টাকা যা এক মাস আগে ১২৪ টাকা। দেশি মসুরের ডাল ১২৪ টাকা যা এক মাস আগে ১০৫ টাকা আর আমদানিকৃত ১০৪ টাকা। দেশি মুগ ডাল ১৫৬ টাকা যা এক মাস আগে ছিল ১১০ টাকা, আমদানিকৃত মুগ ডাল ১৪৮ টাকা। মটর ডাল ১০৬ টাকা যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ৮২ টাকা। অ্যাংকর ডাল ৭৬ টাকা যা এক মাস আগে ছিল ৫৪ টাকা। ডাবলি ৬৮ টাকা যা এক মাস আগে ছিল ৫৬ টাকা।

কাওরান বাজারের ব্যবসায়ী জুয়েল হোসেনসহ অন্যান্য খুচরা বিক্রেতারা দৈনিক আমার সংবাদকে বলেন, পাইকারিতে দাম বেড়ে যাওয়ায় খুচরায়ও বাড়াতে হয়েছে।

জুয়েল বলেন, বর্তমানে পাইকারিতে নিম্নমানের ছোলা ৯৫ টাকা এবং সাদা ছোলা ভালো মানের ৯৮, ১০০ টাকা কেজি কেনা পড়ছে। প্রতিকেজি খুচরায় বিক্রি করছি ১১০-১২০ টাকা।

খুচরা বাজারে বর্তমানে প্রতিকেজি ছোলা বিক্রি হচ্ছে ১১০ থেকে ১২০ টাকা, এক মাস আগে ৭৫ থেকে ৮৫ টাকা। কেঙ্গারু ব্র্যান্ডের প্রতিকেজি মসুরের ডাল বর্তমানে ১৪০ টাকা যা এক মাস আগে ছিল ১৩০ টাকা। দেশি মসুরের ডাল ১৩৫ টাকা যা এক মাস আগে ১২০ টাকা। আমদানিকৃত ১১০ টাকা যা আগে ছিল ৮০-৮৫ টাকা। দেশি মুগ ডাল ১৭০ টাকা যা এক মাস আগে ১২০ টাকা। ডাবলি ৭৫ টাকা যা এক মাস আগে ছিল ৬০ টাকা। মটর ডাল ১২০ টাকা যা এক মাস আগে ছিল ১০০ টাকা। অ্যাংকর ৭৫ টাকা যা আগে ছিল ৬০ টাকা এবং বুটের ডাল ১০৫ টাকা যা এক মাস আগে ছিল ৯০ টাকা।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ডাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম আমার সংবাদকে বলেন, ডাল ও ছোলার দাম ডলারের বাড়তি দামের কারণেই বাড়ছে। সরকারকে ডলারের নির্ধারিত দর কার্যকরে উদ্যোগ নিতে হবে। এসব পণ্যের বড় আমদানিকারকদের পাশাপাশি ছোটদেরও এলসি (ঋণপত্র) নিশ্চিত করতে হবে। তাহলে বাজারে প্রতিযোগিতা থাকবে। এ ছাড়া রমজান উপলক্ষ্যে বিশেষভাবে শুল্কছাড় দেওয়া গেলে দাম কিছুটা কমবে।

বাদামতলি ফলের আড়ত ঘুরে দেখা গেছে, বাজারে এখন যেসব খেজুর পাওয়া যায় সেগুলোর মধ্যে সবচেয়ে দামি খেজুর মেডজুয়েল। মেডজুয়েল ৫ কেজির প্রতিকার্টুনের দাম আগে ছিল ৫৯০০ থেকে ৬০০০ হাজার টাকা, যা বর্তমানে দাম বেড়ে ৬৭০০ টাকা থেকে ৭ হাজার টাকা। মাবরুম আগে ছিল ৪০০০ থেকে ৪৫০০ টাকা এখন বিক্রি হচ্ছে ৫৫০০ থেকে ৬০০০ টাকা, মরিয়ম ছিল ৩৬০০ টাকা এখন বিক্রি হচ্ছে ৪০০০ টাকা। আজোয়া ছিল ৩৫০০ টাকা, এখন ৪৩০০ টাকা খেজুরের রানি ছুক্কারি ছিল ১২০০ টাকা এখন ১৫০০ টাকা। মাসরুক ছিল ১৫০০ টাকা এখন ২৪০০ টাকা, দাবাস ছিল ১৫০০ টাকা, এখন ২১০০ টাকা। এছাড়া আলজেরিয়ার ফিট খেজুর ছিল ১১০০ টাকা এখন ২০০০ টাকা। লুলু/বড়ই ছিল ১৫০০ টাকা এখন ১৮০০ টাকা এবং বস্তাখেজুর ছিল ১৩০ টাকা এখন সেটা ১৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

প্রতিনিয়ত চিনির বাজার অস্থিরতা বিরাজ করছে। শবে বরাতের পরে প্রতি বস্তায় কমেছে ২০০ টাকা। প্রতি কেজি চিনি বর্তমানে ১৪০ টাকা যা এক মাস আগে ছিল ১৩৬ টাকা। খুচরা বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৫৫ টাকা কেজি দরে। 
রুহ আফজা গত বছর বিক্রি হয়েছিল ৩৬০ টাকা। এ বছর নতুন দাম বেড়ে ৫৬০টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়াও বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরেই চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ, প্রতিকেজি ১২০ টাকা। এখনো পেঁয়াজের দাম কমার কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি বাজারে। আদা-রসুনেরও দাম বেড়েছে ২০ টাকা পর্যন্ত। প্রতিকেজি ২৪০টাকার নিচে আদা বা রসুন কেনা যাচ্ছে না।

এদিকে আসন্ন রমজান উপলক্ষ্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের জোগান নিশ্চিত করতে ব্যবসায়ীদের নির্দেশসহ মনিটরিং বাড়ানো ও অভিযানে নেমেছে সরকার।

শিশির/ইএইচ

Link copied!