Amar Sangbad
ঢাকা বুধবার, ২৫ মে, ২০২২, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

গোপালগঞ্জ পৌর নির্বাচনে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীদের দৌড় ঝাঁপ

নিজস্ব প্রতিবেদক

মে ১০, ২০২২, ০৩:২১ পিএম


গোপালগঞ্জ পৌর নির্বাচনে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীদের দৌড় ঝাঁপ

আগামী ১৫ জুন গোপালগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পরই পৌরসভা জুড়ে বইছে উৎসবের আমেজ। ইতোমধ্যে মেয়র পদে সম্ভাব্য এক ডজন  প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে কাজ করছেন।

গোপালগঞ্জ পৌরসভার আগামী ১৫ জুন ভোট গ্রহনের দিন ঠিক করে গত ২৫ এপ্রিল তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেখ তারিখ ১৭ মে, বাছাই ১৯ মে, মনোনয়নপত্র  প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৬ মে। উল্লেখ্য গোপালগঞ্জ পৌরসভায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে ১৫ টি ওয়ার্ডে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে।

২০২১ সালে পার্শ্ববর্তী ৬টি  ইউনিয়ন গোবরা, বোড়াশী, লতিফপুর, হরিদাসপুর, দূর্গাপুর ও রঘুনাথপুরের বেশ কিছু এলাকা অন্তর্ভুক্ত করে পৌরসভার আয়তন বাড়ানো হয়। ইতোমধ্যে পৌরসভাকে সম্প্রসারণ করে ৯টি ওয়ার্ড থেকে ১৫টি ওয়ার্ডে বাড়ানো হয়েছে। সুযোগ এসেছে নির্বাচনের। নির্বাচন নিয়ে সাধারন মানুষ থেকে শুরু করে সকল রাজনৈতিক নেতাদের মনে আশার সঞ্চার হয়েছে। মেয়র প্রার্থীরা নিজ নিজ এলাকায় নতুন আঙ্গীকে লবিংয়ের পাশা পাশি কাজ করে চলছেন মাঠে।

গোপালগঞ্জ পৌর নির্বাচনে আ.লীগের মেয়র পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, সদ্য বিদায়ী মেয়র ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী লেয়াকত হোসেন লেকু, সাবেক মেয়র ও শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসমত আলী সিকদার চুন্নু, সাবেক মেয়র ও জেলা শ্রমিকলীগের আহবায়ক রেজাউল হক সিকদার রাজু, জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক শেখ রকিব হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এম বদরুল আলম বদর, সাবেক কাউন্সিলর ও জেলা যুবলীগের সভাপতি জিএম সাহাব উদ্দিন আজম, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ত্রান ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মুসফিকুর রহমান লিটন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এস এম নজরুল ইসলাম (নতুন), জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সফিকুল আলম কাকনের স্ত্রী ইয়াছমিন আলম, গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা নাছিমা খানম, গোপালগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সদস্য আবুল ফাত্তাহ সজু ও মোঃ ফারজু আলম।

সদ্য বিদায়ী মেয়র সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী লেয়াকত হোসেন লেকু বলেন, দলীয় মনোনয়ন পেয়ে পূনরায় মেয়র নির্বাচিত হলে আমার অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করবো। এ ছাড়া নতুন ৬টি ওয়ার্ডে রাস্তা, ড্রেন, পানি সহ সকল প্রকার সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করবো।

সাবেক মেয়র ও জেলা শ্রমিকলীগের আহবায়ক রেজাউল হক সিকদার রাজু বলেন, আমি গরিবের বন্ধু, পৌরবাসী আমাকে আবারও ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করলে গরিব দুঃখির ভাগ্যের পরিবর্তনের জন্য কাজ করে যাবো।

সাবেক কাউন্সিলর ও জেলা যুবলীগের সভাপতি জিএম সাহাব উদ্দিন আজম বলেন, আমি দির্ঘদিন  কাউন্সিলর হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছি। ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছি। পৌরবাসী আমাকে ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করলে, আমি আমার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে পৌরবাসীর সার্বিক উন্নয়নে কাজ করে যাবো।

জেলা আওয়ামী লীগের ত্রান ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক শেখ রকিব হোসেন বলেন, আমি একজন সৌখিন মানুষ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে দলীয় মনোনয়ন দেন। আর আমি মনোনয়ন পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হলে, গোপালগঞ্জকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন, সাজানো গোছানো আধুনিক পৌরসভা হিসেবে গড়ে তুলবো।

আমারসংবাদ/কেএস