Amar Sangbad
ঢাকা শুক্রবার, ১২ আগস্ট, ২০২২, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯

পদ্মাসেতুতে বাইক চলাচলে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবিতে জাজিরায় মানববন্ধন

হিমেল আহম্মেদ অপি, জাজিরা (শরীয়তপুর)

হিমেল আহম্মেদ অপি, জাজিরা (শরীয়তপুর)

জুলাই ৬, ২০২২, ০৮:৫৯ পিএম


পদ্মাসেতুতে বাইক চলাচলে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবিতে জাজিরায় মানববন্ধন

পদ্মাসেতুর জাজিরা প্রান্তে বুধবার (৬ জুলাই) বেলা ১১ টায় মানববন্ধন করেছে শরীয়তপুর বাইকার্স নামক একটি মোটরসাইকেল চালক সংগঠন।

এসময়ে মহাসড়ক ও আন্তজেলায় মোটরসাইকেল চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞার এবং পদ্মাসেতুতে মোটরসাইকেল চলাচলের নিষেধাজ্ঞার সিন্ধান্তকে প্রত্যাহারের জোর দাবি জানান শরীয়তপুরের বাইকার্সরা।

এর আগে গত ৫ জুলাই মহাসড়কে মোটরসাইকেল চলাচলের বিধিনিষেধ অপসারণের জন্য সুপারিশ প্রসঙ্গে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি জমা দেন এই সংগঠনটি।

পদ্মাসেতু উদ্ধোধনের দ্বিতীয় দিন (২৭ জুন) থেকেই সেতুতে সকল ধরনের মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন সেতু কর্তৃপক্ষ। 

এদিকে গত ৩ জুলাই ঈদযাত্রা নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে যৌক্তিক কারণ ছাড়া ঈদের আগে তিন দিন, ঈদের দিন এবং ঈদের পরে তিন দিন- এই সাত দিন এক জেলা থেকে আরেক জেলায় মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ করার সিন্ধান্ত নেন সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়।একই সময়ে দেশের সব মহাসড়কে রাইড শেয়ারিং বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেন এই বিভাগ।

তবে এমন সিন্ধান্তে ক্ষোপ প্রকাশ করেছেন শরীয়তপুরের বাইকার সংগঠন গুলো। তাদের দাবি সেতু হওয়ার আগে অনেক প্রত্যশা নিয়ে অপেক্ষায় ছিল বাইকার্সরা। কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনাকে কেন্দ্র করে সরকারের এমন সিদ্ধান্তে ক্ষতিগ্রস্ত মোটরসাইকেল চালকরা।

এ বিষয়ে আন্দোলনকারীদের সাথে কথা বলতে গেলে শরীয়তপুর বাইকার্সের এডমিন রোকন উদ্দীন জানান, 'আমরা বাইকাররা বাধ্য হয়ে আজ রাস্তায়। আমাদের যাদের ড্রাইভিং লাইসেন্স আছে,সব লিগ্যাল ডকুমেন্টস আছে, হেলমেটও আছে এরপরেও আমাদের রাস্তায় বাইক নিয়ে উঠতে না দেওয়া এবং আমাদের সবার স্বপ্নের পদ্মাসেতুতে উঠতে না দেওয়ায় আমরা আমাদের নাগরিক ও সাংবিধানিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছি।
 
আমরা চাই ঈদের আগেই আমাদের পদ্মাসেতুতে এবং হাইওয়েতে চলার অনুমোদন করা হোক। পাশাপাশি সড়ক আইন-২০১৮ বাস্তবায়ন হোক শক্তভাবে। ড্রাইভিং লাইসেন্স ও হেলমেট ব্যাতিত কোন বাইক চললেই শাস্তির আওতায় আনা হোক।

এ বিষয়ে শরীয়তপুর বাইকার্সের আর এক সদস্য মোঃ নোমান সিদ্দিক জানান, 'ঈদকে কেন্দ্র করে মহাসড়ক মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা প্রতিবাদে সারাদেশে যে মানববন্ধন করা হচ্ছে তারই ধারাবাহিতায় আজকে শরীয়তপুর বাইকার্সদের শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়েছে। আমাদের দাবি পদ্মা সেতুতে কেন আমাদের উঠতে দেওয়া হবে না, পদ্মাসেতুতে বাইকাররা উঠতে পারবে না কেন, মহাসড়কে ৭ জুলাই থেকে ১৩ জুলাই নিষিদ্ধ থাকবে কেনো?

সর্বসাধারণের গণপরিবহনের ভোগান্তি এড়াতে মোটরসাইকেল ব্যবহার করা হয়ে থাকে। মোটরসাইকেল যে সবাই বিনোদনের জন্য বা ঘুরার জন্য ব্যবহার করে এমন নয় অনেকে জীবনের তাগিদে মোটরসাইকেল ব্যবহার করে থাকে। মোটরসাইকেল যদি ঈদ মৌসুমে সাত দিন বন্ধ রাখা হয় সে ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে মোটরসাইকেল চালকরা খুবই ভোগান্তির মুখে পড়বে। আমরা চাচ্ছি সরকারের এই নিষেধাজ্ঞা অবিলম্বে প্রত্যাহার করা হোক, যাতে সর্বস্তরের বাইকেররা নির্বিঘ্নে  ঈদযাত্রায় বাইক ব্যবহার করতে পারেন।