Amar Sangbad
ঢাকা বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০২২, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

সড়ক দখল করে বৃক্ষরোপন, উত্তেজনা

ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি

ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি

নভেম্বর ১৯, ২০২২, ০৪:৪২ পিএম


সড়ক দখল করে বৃক্ষরোপন, উত্তেজনা

সিলেটের ওসমানীনগরের দয়ামীর ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর গ্রামে সড়ক দখল করে বৃক্ষরোপনকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে বলে জানিয়েছেন গ্রামবাসী। এ ব্যাপারে গত বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন গ্রামবাসী।

জানা যায়, মোহাম্মাদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে গ্রামের ভেতরে প্রবেশ করা আরসিসি দ্বারা পাকা সড়কটি যুগযুগ ধরে ব্যবহার করে আসছেন গ্রামবাসী। সড়কটি বিদ্যালয়ের সামন দিয়ে গিয়ে মহাসড়কে সংযোগ স্থাপন করেছে। সম্প্রতি সড়কের বিদ্যালয় নিকটবর্তী অংশ নিজের দাবি করে সুপারি গাছের চারা রোপন করেছেন একই গ্রামের নজরুল ইসলাম লিঙ্কন ও তার দুই ভাই। এমনকি মসজিদের জায়গা দখল করে ভাসমান দোকান বসিয়ে কিছু জায়গা দখল করে আছে। বিষয়টি নিয়ে গ্রামবাসীর মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করায় যখন-তখন সংঘর্ষের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে বলে জানা গেছে।

শনিবার সকালে সরেজমিনে দেখা যায়, মোহাম্মদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং জামে মসজিদের সামন থেকে আরসিসি দ্বারা পাকা সড়কটি গ্রামের ভেতরে প্রবেশ করেছে। বিদ্যালয় নিকটবর্র্তী স্থানে সড়করে দুই দিকে অনেকগুলো সুপারি গাছের চারা লাগানো রয়েছে।

এসময় কথা হলে গ্রামের মসজিদের মোতয়াল্লি ও প্রাথমিক বিদ্যালয় কমিটির সহ সভাপতি আবদুল করিম বলেন, এই সড়ক ব্যবহার করে গ্রামের শতাধিক পরিবারের লোক বিদ্যালয়, মসজিদ, কবরস্থান এবং হাওরে যাতায়াত করে থাকেন। সম্প্রতি লিঙ্কন ও তার ভাইরা সড়কটি নিজের দাবি করে দুই পাশে সুপারি চারা লাগিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে গ্রামে উত্তেজনা বিরাজ করছে জানিয়ে বিষয়টির সঠিক সুরাহার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বলে জানান তিনি।

স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাদেক আলী বলেন, গ্রামবাসীর অর্থায়নে সড়কটি পাকা করা সড়কটি বাপ-দাদার আমল থেকে ব্যবহার করে আসছি।

গ্রামের মসকুদ আলী বলেন, ১৯৯৬ সালে এই সড়ক নিয়ে মারামারি করে  রক্তারক্তির পর মামলা হয়েছে। সেই মামলা হেরে হাজতবাসও করেছে লিঙ্কন। ঝামেলা তৈরি করার উদ্দেশ্যে গাছের পাশের গাছের চারা রোপন করেছে।

অভিযুক্ত নজরুল ইসলাম লিঙ্কন ও তার ভাই আক্তার মিয়া বলেন, আমাদের বাড়ি সীমানা থেকে বিদ্যালয় পর্যন্ত সড়কের অংশটি আমাদের নিজস্ব তাই আমরা গাছের চারা রোপন করেছি। 

স্থানীয় ইউনিয়নের পরিষদের মেম্বার রুম্মান আহমদ বলেন, বিষয়টি জানার পর আমি সরেজিমন গিয়েছি। গ্রামবাসীর মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করায় বিষয়টি পুলিশকে অবগত করেছি।

ওসমানীনগর থানার এসআই নিজাম উদ্দিন বলেন, অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে দুই পক্ষকে বৈধ কাগজপত্র নিয়ে থানায় আসতে বলেছি।

কেএস 

Link copied!