Amar Sangbad
ঢাকা মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২৪,

জমিদারি শাসন দেশের মানুষ আর হতে দেবে না: ফখরুল

মো. মাসুম বিল্লাহ

মার্চ ৬, ২০২৩, ০৮:৪০ পিএম


জমিদারি শাসন দেশের মানুষ আর হতে দেবে না: ফখরুল

জমিদারি শাসন দেশের মানুষ আর হতে দেবে না মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এরা (আওয়ামী লীগ) মনে করে দেশটা তাদের তালুকদারি, এটা তাদের জমিদারি। এটার মালিক তারা। আর আমরা হচ্ছি সব প্রজা। এভাবে তারা দেশ চালাতে চায়। এ জমিদারি শাসন এবার দেশের মানুষ আর হতে দেবে না। মানুষ রাস্তায় নেমেছে। তারা আমাদের নেতা তারেক রহমানের নেতৃত্বে অতি দ্রুত আমাদের বুকের ওপরে বসে থাকা দানবকে সরাবে।

সোমবার (৬ মার্চ) বিকেলে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) কার্যালয়ে উত্তরাঞ্চল ছাত্র ফোরাম ও বাংলাদেশ ছাত্র ফোরামের যৌথ উদ্যোগে তারেক রহমানের ১৭তম কারাবন্দি দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে উত্তাল জনসমুদ্রে যে তরঙ্গের সৃষ্টি হয়েছে তা ভাসিয়ে নিয়ে যাবে এই ফ্যাসিবাদী সরকারকে। আসুন আজকে আমরা তারেক রহমানের এই কারাবন্দি দিবসে সবাই শপথ নেই—তারেক রহমান দেশে ফিরে আসবেন। যেদিন আসবেন সেদিন বাংলাদেশের মানুষ উত্তাল তরঙ্গের মতো সুনামিতে এই সরকারকে ভাসিয়ে নিয়ে যাবে।

তিনি বলেন, দেশের জনগণ সেই অবস্থা তৈরি করবে যে অবস্থার মধ্য দিয়ে তিনি দেশে ফিরে আসবেন। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না। এই সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, সংসদ বিলুপ্ত করতে হবে এবং নতুন একটি নির্বাচন কমিশন গঠনের মধ্য দিয়ে নির্বাচন হবে। সে নির্বাচনে জনগণ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবে। সেই সময়ে তারেক রহমান দেশে এসে আমাদের নেতৃত্ব গ্রহণ করবে এবং বাংলাদেশকে নতুন করে স্বপ্ন দেখাবে।

তারেক রহমানের নেতৃত্বের প্রশংসা করে মির্জা ফখরুল বলেন, তারেক রহমান অসাধারণ মেধাবী একজন নেতা। তিনি আজ থেকে নয়, যখন রাজনীতিতে প্রবেশ করেছেন সেই সময়ে প্রমাণ করেছেন তার অসাধারণ দক্ষতা, অসাধারণ দূরদৃষ্টি এবং জনগণকে সংগঠিত করবার তার একটা অসাধারণ যোগ্যতা। তার যোগ্যতাটা কোথায়? তিনি বিএনপিকে একটা সিস্টেমের মধ্যে নিয়ে এসেছেন, একটা ব্যবস্থার মধ্যে নিয়ে এসেছেন, যে ব্যবস্থায় পার্টি অ্যাকটিভ হয়েছে, গোটা দল এখন সক্রিয় হয়ে উঠেছে। যেখানে আগে আমাদের বিভিন্ন সংগঠন ও তার ইউনিটগুলো সেভাবে কাজ করতে পারছিল না আজকে তারা সক্রিয় হয়ে কাজ করছে।

তিনি বলেন, তারেক রহমান আমাদের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতীক, গণতন্ত্রের প্রতীক, আমাদের উন্নত জীবনযাত্রার প্রতীক। তিনি যে ১০ দফা দিয়েছেন সেটাতে দেখবেন জনগণের দাবির সব আছে। রাষ্ট্রের সংস্কারের কথা বলা হয়েছে। এই সংস্কারের বিষয়ে উনি (তারেক রহমান) বলেছেন, নির্বাচনের পরে যারা অংশগ্রহণ করবে তাদের নিয়ে একটা জাতীয় সরকার গঠন করা হবে। কত বড় বাস্তববাদী কথা সবাইকে সাথে নিয়ে আমরা এ দেশে যে সমস্যাগুলো তৈরি হয়েছে তা দূর করব। আজকে ওরা (আওয়ামী লীগ) যে অবস্থা তৈরি করেছে এটাকে আমূল পরিবর্তন না করলে এ দেশ চালানো সম্ভব হবে না।

উত্তরাঞ্চল ছাত্র ফোরামের উপদেষ্টা ও ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ফজলুর রহমান খোকনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আযম খান, চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন, সমাজকল্যাণবিষয়ক সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন, ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক রকিবুল ইসলাম বকুল, সহসাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল খালেক, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের সদস্য সচিব কাদের গণি চৌধুরী, ছাত্রদলের বর্তমান সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ প্রমুখ বক্তব্য দেন।

Link copied!